ক্রোয়াট বীর লভরেন বললেন 'ফ্রান্স ফুটবল খেলেনি'

ঢাকা, শনিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৮ | ২ ভাদ্র ১৪২৫

ক্রোয়াট বীর লভরেন বললেন 'ফ্রান্স ফুটবল খেলেনি'

পরিবর্তন ডেস্ক ৫:০৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০১৮

print
ক্রোয়াট বীর লভরেন বললেন 'ফ্রান্স ফুটবল খেলেনি'

মাত্র শেষ হওয়া রাশিয়া বিশ্বকাপের চমক ক্রোয়েশিয়া। আর এই দলের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ডিফেন্ডার দেজান লভরেন। রোববারের ফাইনালে ৪-২ গোলে হেরে ক্রোয়াট রূপকথা শেষ হয়েছে। কিন্তু যাদের কাছে হারয় বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হতে পারলো না তারা সেই ফ্রান্সকে এবার বেশ একহাত নিলেন লভরেন। তিনি বললেন, ২০১৮ বিশ্বকাপ ফাইনালে ফ্রান্স 'ফুটবল খেলেনি'।

জ্লাতকো দালিচের দল ফাইনালে দুর্দান্ত শুরু করেছিল। এবং শেষ পর্যন্ত লড়ে গেছে। কিন্তু ভাগ্য বারবার তাদের বিপক্ষে গেছে। আত্মঘাতী গোলের পর বিতর্কিত পেনাল্টিরও শিকার হয়েছে। দ্বিতীয়ার্ধে ৬ মিনিটের মধ্যে দুই গোল করে অবশ্য ফ্রান্স ৪-১ এর লিড নিয়ে ক্রোয়াটদের খুন করে ফেলে সেখানেই। কিন্তু বেলজিয়ামের বিপক্ষে সেমি ফাইনালে যেমন বর্তমান বিশ্বজয়ী কোচ দিদিয়ের দেশমের ট্যাকটিকস সমালোচিত হয়েছিল তেমনই সমালোচনার দুয়ার এবার খুললেন লিভারপুলের তারকা লভরেন।

'আমার মনে হয় ওদিন আমরাই ভালো ছিল, সব মিলিয়ে।' ক্রোয়াট সেন্টার ব্যাক বলেছেন, 'ফ্রান্স তো ফুটবল খেলেনি। তারা শুধু তাদের সুযোগের অপেক্ষায় ছিল এবং গোল করেছে।' সমালোচনার মধ্যে অবশ্য সমীহটাও রাখছেন লভরেন, 'ওটা তাদের কৌশল এবং সেটাকে সম্মান জানাতে হবে। তারা টুর্নামেন্টের প্রত্যেকটা ম্যাচই ওভাবে খেলেছে।'

১৮ মিনিটে খেলার ধারার বিপরীতে আত্মঘাতী গোলে এগিয়ে গিয়েছিল ফ্রান্স। ১০ মিনিট পর সমতা আনে ক্রোয়েশিয়া। কিন্তু ভিএআরের সহায়তায়া আর্জেন্টাইন রেফারি নেস্তর পিতানা পেনাল্টির নির্দেশ দেন। সম্ভাব্য সেই হ্যান্ডবল নিয়ে বিতর্ক এখনো চলছে। ২-১ এ পিছিয়ে পড়া ক্রোয়েশিয়া বিরতির পর দ্রুত আরো দুই গোল খেলে আর ফিরতে পারেনি। যদিও একটি গোল ফেরত দিয়েছিল ৬৯ মিনিটে।

লভরেন পেনাল্টির ওই সিদ্ধান্তকে জটিল মুহূর্ত ব্যাখ্যা করে বলেছেন, 'আমি হতাশ এই কারণে যে হারতে হলো তাও তাদের চেয়ে ভালো ফুটবল খেলে। তারপরও যা অর্জন করেছি মানে বিশ্বের দ্বিতীয় হয়েই আমি গর্বিত। আমার দেশের সবার জন্য গর্বিত। ওই সিদ্ধান্তটা দেখলে এখন আক্ষেপ লাগে আমাদের কিন্তু এর কোনো মানে হয় না। হয়তো এই ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে কয়েকটা মাস লাগবে। অবশ্য সব মিলিয়ে আমি সুখী।'

ক্যাট

 
.


আলোচিত সংবাদ