ফেসবুক নিজেই ইউজারদের মেসেজ, ব্যক্তিগত তথ্য অন্যদের দিচ্ছে

ঢাকা, সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯ | ৩ আষাঢ় ১৪২৬

ফেসবুক নিজেই ইউজারদের মেসেজ, ব্যক্তিগত তথ্য অন্যদের দিচ্ছে

পরিবর্তন ডেস্ক ২:৪২ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৯, ২০১৮

ফেসবুক নিজেই ইউজারদের মেসেজ, ব্যক্তিগত তথ্য অন্যদের দিচ্ছে

মাইক্রোসফট, নেটফ্লিক্স, স্পটিফাইয়ের মতো বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে ফেসবুক ইউজারদের ব্যক্তিগত মেসেজসহ বিভিন্ন তথ্য স্বেচ্ছায় দেখতে দিয়েছে। আগে ভুলক্রমে তথ্য বেহাত হয়ে গিয়েছে বলে দুঃখ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়াটি, কিন্তু এবার দেখা যাচ্ছে তারা নিজেরাই অন্য প্রতিষ্ঠানকে ইউজারদের তথ্য সরবরাহ করেছে।

এসব তথ্যের ব্যাপকতা আগের চেয়ে অনেক বেশি, মঙ্গলবার গভীর রাতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানায় মার্কিন পত্রিকা নিউইয়র্ক টাইমস।

নেটফ্লিক্স ও ও স্পটিফাইকে সোশ্যাল মিডিয়াটি ইউজারদের ব্যক্তিগত মেসেজ পড়ার সুযোগ করে দিয়েছিল, ফেসবুকের আভ্যন্তরীণ নথিপত্র থেকে জানতে পারে টাইমস। কোনও রকম অনুমতি না নিয়েই তারা মাইক্রোসফটের সার্চ ইঞ্জিনকে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের বন্ধুদের তালিকা দেখতে দিয়েছিল। একই সঙ্গে তারা অ্যামাজনকেও ইউজারদের বন্ধুদের মাধ্যমে তাদের নাম ও যোগাযোগের তথ্য জেনে নেয়ার সুযোগ করে দিয়েছিল।

তথ্য ফাঁস কেলেঙ্কারির সময় ফেসবুকের কর্ণধার মার্ক জাকারবার্গ বারবার আশ্বস্ত করেন, ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তথ্য কে কে দেখতে পারবে তা সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ করবে ইউজাররাই। কিন্তু ফেসবুকের অভ্যন্তরীণ নথি ও ৫০ জন সাবেক কর্মচারীর সঙ্গে কথা বলে টাইমস জানতে পারে এই প্রতিশ্রুতি সত্ত্বেও সোশ্যাল মিডিয়াটি ইউজারদের তথ্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে সরবরাহ করেছে।

ফেসবুক প্রায় ১৫০টি কোম্পানিকে তাদের ইউজারদের তথ্য ব্যবহার করতে দিয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠান মধ্যে ব্যাংক, প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান, দোকান, ও মিডিয়া অর্গানাইজেশনও রয়েছে, জানানো হয় টাইমসের প্রতিবেদনে।

অ্যামাজন ও অ্যাপলকে আজ পর্যন্ত ইউজারদের তথ্য সরবরাহ করে যাচ্ছে ফেসবুক।

২০১১ সালে ফেডারেল ট্রেড কমিশনের (এফটিসি) সঙ্গে ফেসবুক একটি চুক্তি করেছিল যাতে স্পষ্ট করে বলা আছে, সোশ্যাল মিডিয়াটি অনুমতি না নিয়ে কিছুতেই ইউজারদের ব্যক্তিগত তথ্য অন্য কাউকে দিতে পারবে না।
ফেসবুক ঠিক এই কাজটাই করেছে, টাইমসকে বলেন এফটিসির পরিচালক ডেভিড ভ্লাডেক। 'আমি কিছুতেই বুঝতে পারছি না বিনা অনুমতি তথ্য সরবরাহ করার সমর্থনে ওরা কী যুক্তি দিবে,' বলেন তিনি।

ফেসবুক কর্মকর্তা স্টিভ স্যাটারফিল্ড এক বিবৃতিতে দাবী করেন, এভাবে তথ্য সরবরাহ করা তাদের ইউজারদের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা নষ্ট হয়নি।

এমআর/এএসটি