হিজরী সনের উৎপত্তি যেভাবে

ঢাকা, শনিবার, ৯ নভেম্বর ২০১৯ | ২৪ কার্তিক ১৪২৬

হিজরী সনের উৎপত্তি যেভাবে

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৪০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০১, ২০১৯

হিজরী সনের উৎপত্তি যেভাবে

ইসলামপূর্ব আরবের লোকেরা বিশেষ একপ্রকার চন্দ্র-সৌর গণনাভিত্তিক বর্ষপঞ্জি ব্যবহার করতো। যেখানে চাঁদ ও সূর্য উভয়ের আবর্তনের হিসাবকে ভিত্তি করে বছরের হিসাব করা হতো।

৬৩৭/৬৩৮ খ্রিস্টাব্দে দ্বিতীয় খলীফা হযরত উমর (রা.) সর্বপ্রথম হিজরী সন প্রবর্তন করেন।

সাহাবী হযরত আবু মুসা আশআরী (রা.) একবার হযরত উমর (রা.) এর কাছে লিখেন, “আমীরুল মুমিনিনের কাছ থেকে আমাদের কাছে অনেক পত্রই আসে, কিন্তু কোনটির আদেশ মানবো তা আমরা বুঝতে পারি না। আমরা হয়তো কোন পত্র পাই শাবান মাসের, কিন্তু গত হওয়া শাবান, না চলমান শাবান বোঝোনো হয়েছে তা আমরা বুঝতে পারি না।”

এই প্রেক্ষিতে অন্যান্য সাহাবীদের সঙ্গে পরামর্শ করে উমর (রা.) সিদ্ধান্ত নেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) এর হিজরতের বছর থেকে ইসলামী সনের হিসাব শুরু করা যেতে পারে। কেননা, মুসলিম উম্মাহর জন্য এটি এমন একটি ঘটনা, যার ফলে পৃথিবীর বুকে তারা নতুন একটি জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। হিযরতের ঘটনা থেকে এই ক্যালেন্ডারটি হিজরী ক্যালেন্ডার হিসেবে পরিচিতি লাভ করে।

কিছু সাহাবী রমযান থেকে এই বর্ষের সূচনার পক্ষে মত প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু উমর (রা.) মুহররম মাসকেই প্রথম মাস হিসেবে অধিক যথার্থ মনে করেন। হজ শেষ হওয়ার পর পরই এই মাসটি শুরু হওয়ায় উমর (রা.) মুহররম মাসকে বছরের প্রথম মাস হিসেবে গণ্য করে বছরের হিসাব শুরু করেন।

৩৫৪ দিনে এক হিজরী বছর সম্পন্ন হয়। চাঁদ দেখার উপর নির্ভরশীল এই বছর সৌর বর্ষ থেকে ১১ দিন কম হওয়ায় প্রতিবছরই আগের বছরের তুলনায় এটি ১১ দিন করে অগ্রসর হতে থাকে।

সারাবিশ্বের মুসলমানরা তাদের ইবাদত পালনের জন্য এই বর্ষপঞ্জি ব্যবহার করে থাকেন। বর্তমানে শুধু সউদি আরবে হিজরী বর্ষ রাষ্টীয়ভাবে সরকারী ক্যালেন্ডার হিসেবে স্বীকৃত।

এমএফ/

 

তাহজিব / মুসলিম ঐতিহ্য : আরও পড়ুন

আরও