তায়েফ নগরীর ঐতিহাসিক দুর্গসমূহ

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

তায়েফ নগরীর ঐতিহাসিক দুর্গসমূহ

পরিবর্তন ডেস্ক ৮:৪৭ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ০২, ২০১৮

তায়েফ নগরীর ঐতিহাসিক দুর্গসমূহ

তায়েফ সৌদি আরবের একটি জনপ্রিয় পর্যটন শহর। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে সমৃদ্ধ এই শহরের জনপ্রিয়তা কেবল তার প্রাচীন প্রকৃতির জন্য নয়, বরং বিভিন্ন ঐতিহাসিক যুগের সাক্ষী এর প্রাচীন দুর্গগুলো বিশ্বের নানা দেশের পর্যটকদের মনোযোগ আকর্ষণ করেছে।

তায়েফে ইসলামী সভ্যতার বিশেষ স্থাপত্যশিল্পের বিস্ময়কর উদাহরণ হয়ে এই দুর্গগুলো আজও টিকে আছে। এই দুর্গগুলোর নকশা এমনভাবে করা হয়েছে, যার ওপর তলায় রাখা হয়েছে পর্যবেক্ষণ চেম্বার। ফলে যুদ্ধের সময় এ দুর্গগুলো বহিঃশত্রুর আক্রমণ প্রতিরোধের পাশাপাশি যেকোনো সম্ভাব্য আক্রমণ থেকে প্রতিরক্ষার জন্য পর্যবেক্ষণ টাওয়ার হিসেবেও ব্যবহৃত হতো। যুদ্ধের ব্যবহার ছাড়াও আবাসিক ভবন হিসেবেও এর কৌশলগত গুরুত্বও রয়েছে।

আধুনিক ইতিহাসের শিক্ষক সাদ আল-যুদি বলেন, ‘তায়েফের দক্ষিণের এই দুর্গগুলো শহরের বাসিন্দাদের আবাসের জন্যই শুধু নয়, বরং যেকোনো অভ্যন্তরীণ বা বহিরাগত আক্রমণ হতে শহরবাসীকে রক্ষার জন্য একদল দক্ষ কনস্ট্রাক্টরদের দ্বারা নির্মিত হয়েছিল।’

আল-যুদি আরও বলেন, ‘তায়েফের অধিবাসীরা তাদের বিশেষ স্থাপত্যশৈলীতে এই দুর্গগুলো নির্মাণ করে। তারা চারপাশ ঘেরা পাহাড় থেকে পাথর সংগ্রহ করে এই ভিন্ন আকৃতির দুর্গগুলো নির্মাণে তা ব্যবহার করে।’ 

দুর্গগুলো মজবুত করতে কনস্ট্রাক্টরদের নির্মাণশৈলীর আকর্ষণীয় একটি দিক হলো, ‘দুর্গের নিচে প্রথমে ভারী পাথর এবং তার ওপরে এর তুলনায় কিছু হালকা পাথর (অনূর্ধ্ব ১৫ মিটার উচ্চতার) দিয়ে দুর্গগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। যার ফলে শত্রুর আক্রমণ প্রতিরোধে একটি শক্তিশালী এবং স্থিতিশীল প্রতিরক্ষামূলক বেস তৈরি হয়েছে।

দুর্গের অভ্যন্তরে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা রাখা হয়েছিল। তীব্র শীত বা গ্রীষ্মের প্রচণ্ড গরমে দুর্গের ভারী পাথরের আড়ালে তাপমাত্রার তীব্রতা অনুভব করা যেত না। এ ছাড়া মরুঝড় থেকেও দুর্গুগুলো অধিবাসীদের রক্ষা করতো।

ইতিহাস বিষয়ক স্কলার মোনা উসাইরি বলেন, ‘তায়েফের এই পাথুরে স্থাপত্যগুলোর ভেতরে ও বাইরের রঙিন নকশাগুলো বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। পুরুষরা যখন দুর্গের নির্মাণকাজে ব্যস্ত থাকতো, নারীরা দুর্গের ভেতরে ও বাইরে তখন নকশার কাজগুলো করতো। দুর্গগুলোর দেওয়ালে বিভিন্ন রঙিন নকশা তাদের কারুকর্মেরই প্রতিচ্ছবি।’

ইতিহাসপ্রেমী যেকোনো পর্যটকের জন্যই তায়েফ একটি উত্তম পর্যটনস্থল এবং সেখানে তাদের যাওয়া উচিত।

আরব নিউজের প্রবন্ধ অনুবাদ করেছেন মুহাম্মাদ ফয়জুল্লাহ।

এমএফ/আরপি

 

তাহজিব / মুসলিম ঐতিহ্য : আরও পড়ুন

আরও