সিলেটে লবণকাণ্ড, গুজবের পেছনে ছুটছে সবাই

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

সিলেটে লবণকাণ্ড, গুজবের পেছনে ছুটছে সবাই

দিপু সিদ্দিকী, সিলেট ১০:৫৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৮, ২০১৯

সিলেটে লবণকাণ্ড, গুজবের পেছনে ছুটছে সবাই

হঠাৎ করে লবণশূন্য হয়ে পড়েছে সিলেট নগরী ও আশপাশের উপজেলাগুলোর খুচরা দোকানগুলো। লবণের দাম কেজি প্রতি দেড়শ থেকে দুইশ টাকায় বিক্রি হচ্ছে-এমন গুজবে ক্রেতারা হুমড়ি খেয়ে পড়েন লবণ কিনতে।

সোমবার দিনভর গুজব ছড়ালেও সন্ধ্যার পর থেকে তা মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়ে। ফলে ক্রেতাদের সামাল দিতে দোকানীদের বেগ পেতে হয়। অভিযোগ রয়েছে, বিভিন্ন এলাকাভিত্তিক ছোট ছোট দোকানগুলোর ব্যবসায়ীরা অতিরিক্ত মুনাফার লোভে লবণ বিক্রি বন্ধ করে দেন সন্ধ্যার পর থেকে। এতে করে গুজব আরো ডানা মেলে।

রাত ৯টার পর থেকে সিলেট নগরীর আম্বরখানা-টিলাগড় রোড, কুমারপাড়া, কাজিটুলা, চৌকিদেখি, আখালিয়া বালুচরসহ বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিনে দেখা যায়, বড় কিংবা ছোট কোনো দোকানেই লবণের মজুদ নেই। একের পর এক ক্রেতা লবণ কিনতে

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বলছে, এ ধরনের গুজব কেউ ছড়ালে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সিলেট নগরীর উত্তর কাজিটুলা এলাকার দোকানী নবীর হোসেন বলেন, লবণের দাম বাড়ার গুজবে ক্রেতারা হুমড়ি খেয়ে পড়েন। একেকজন ২ থেকে ৫ কেজি করে লবণ কিনে নিয়েছেন। মাত্র আধাঘণ্টার ব্যবধানে দোকানের সকল লবণ শেষ হয়ে যায়। পূর্বনির্ধারিত ৩৫ টাকা দামে লবণ বিক্রি করেছি। গুজব এমন ডালপালা মেলেছে, শিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত সকল শ্রেণির মানুষ লবণ কিনতে ভিড় করছেন। অনেকে মোটর সাইকেল কিংবা সিএনজি অটোরিকসা করে দূর দূরান্ত থেকে এসে লবণ কিনছেন।

তিনি বলেন, ক্রেতারা কোথা থেকে যেন শুনেছেন লবণের দাম বেড়ে প্রতি কেজি ১৫০ থেকে ২০০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। ফলে তারা পেঁয়াজের মতো দাম বাড়ার আগেই নিত্যপ্রয়োজনীয় অত্যাবশকীয় এ উপকরণ কিনতে চান।

স্থানীয় কয়েকজন রাজনৈতিক নেতা বলছেন, সরকারবিরোধী একটি কুচক্রী মহল দেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডগুলোকে আড়াল করতে গুজব ছড়িয়ে সাধারণ মানুষকে বিক্ষুব্ধ করতে চাচ্ছে। দেশের শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতিকে অশান্ত করে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের জন্য এসব মিথ্যা বানোয়াট অপপ্রচারের আশ্রয় নিয়েছে একটি রাজনৈতিক মহল।

সিলেটের জকিগঞ্জ থানার ওসি মীর মো. আব্দুন নাসের বলেন, ‘গুজব সৃষ্টিকারীদের ধরতে আমরা মাঠে নেমেছি। খোঁজ নিয়ে জেনেছি, লবণের দাম বাড়েনি, কেউ লবণের দাম নিয়ে কারসাজি যাতে না করেন। এরপরও কোন ব্যবসায়ী গুজবে কান দিয়ে কারসাজি করলে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

সিলেট নগরীর আম্বরখানা রোডের ব্যবসায়ী সুলতান আহমদ বলেন, ক্রেতারা সব ছেড়ে শুধু লবণ চাচ্ছেন। তারা বলছেন, বিভিন্ন স্থানে লবণের দাম বেড়ে গেছে। ফলে আগেভাগেই সংগ্রহ করতে প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। একেকজন ৩ থেকে ৫ কেজি করে লবণ কিনছেন।

নগরীর উপকন্ঠে বালুচরের আবদুর রব বলেন, লবণের দাম হঠাৎ করে বেড়ে যাওয়ার খবরে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। কানকথায় পড়ে লোকজন লবণের পেছনে ছুটছেন। এ ধরনের পাগলামিকে সুযোগ হিসেবে নিতে পারে অসাধু ব্যবসায়ীরা।

দক্ষিণ সুরমার ব্যবসায়ী খালেদ খান বলেন, অবস্থা এমন দাঁড়িয়েছে লোকজন লবণের গুজবের পেছনে হয়রান হচ্ছে। বিভিন্ন এলাকায় লবণ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে খবর শুনলেও কেউ বেশি দামে কিনেছেন, এমন কারো সাক্ষাৎ পাইনি।

আখালিয়া এলাকার সংবাদকর্মী শাহীন আহমদ বলেন, শুধু শুনছি লবণ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু কে বা কারা বেশি দামে বিক্রি করছে কিংবা কিনেছেন, তাদের সন্ধান পাইনি।

সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিজন কুমার সিংহ বলেন, ‘লবণের দাম বৃদ্ধির গুজব ছড়িয়ে কেউ বিভ্রান্তি ছড়ানোর চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

সিলেটের পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন আহমদ তার ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেন, প্রিয় সিলেটবাসী, বাজারে নিত্য-প্রয়োজনীয় সামগ্রীর পর্যাপ্ত সরবরাহ রয়েছে। কোনো নিত্য-প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দাম বাড়তে পারে এমন গুজবে কান না দেয়ার জন্য সকলকে বিশেষভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি।

এআরই

 

সিলেট: আরও পড়ুন

আরও