তাহিরপুর বাদাঘাট সড়ক নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ

ঢাকা, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

তাহিরপুর বাদাঘাট সড়ক নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ

বাবরুল হাসান বাবলু, তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) ১১:৩৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১১, ২০১৮

তাহিরপুর বাদাঘাট সড়ক নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ

তাহিরপুর বাদাঘাট এলজিইডি সড়ক নির্মাণ কাজে নিম্নমানের বালি পাথর ও বিটুমিন ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে কাজের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আমিনুল হক এন্ড কোং সুনামগঞ্জ। জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় লোকজন বার বার এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগে কথা বলে কাজের গুণগত মান ভালো করাতে পারছেন না বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

তাহিরপুর এলজিইডি কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, তাহিরপুর উপজেলা সদর থেকে বাদাঘাট ইউনিয়নের বাদাঘাট বাজার পর্যন্ত সড়কটির দৈর্ঘ্য ১০ কিলোমিটার। দীর্ঘ ২৩ বছর ধরেই সড়কটির বেহাল দশা। উপজেলার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ সড়ক। এ সড়কে উপজেলা সদরের সাথে সংযোগ রয়েছে ৭ ইউনিয়নের মধ্যে ৪ ইউনিয়নের।

সূত্র জানায়, সড়কটি প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্পে তালিকাভুক্ত থাকায় জরুরি ভিত্তিতে গত ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে দরপত্র আহ্বান করা হয় তিনটি অংশে। প্রথমটি বাদাঘাট হতে পাতারগাঁও পর্যন্ত। দ্বিতীয় ও তৃতীয় অংশ পাতারগাঁও হতে তাহিরপুর সদর সূর্য্যরেগাঁও গ্রাম পর্যন্ত। প্রথম অংশের কাজ পান আমনিুল হক এন্ড কোং ১ কোটি ৩৮ লক্ষ টাকা। অপর দু’অংশের কাজ পান ঠিকাদার অমল চৌধুরী ১ কোটি ৮৬ লক্ষ ৯৩ হাজার টাকা।

স্থানীয়দের অভিযোগ, কাজ শুরু থেকেই পাতারগাঁও অংশের ঠিকাদার আমিনুল এন্ড প্রটেকসন ওয়ালের ব্লক নির্মাণ থেকে শুরু করে সড়ক নির্মাণে নিম্নমানের বালি পাথর ও বিটুমিন ব্যবহার করে কাজ করছেন। যে কারণে কাজ চলমান অবস্থায় মোটরবাইক, ঠেলাগাড়ি, রিকশা কিংবা ছোট ছোট পিকআপভ্যান পরিবহনের সময় বিটুমিন উঠে যাচ্ছে।

বাদাঘাট ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামের ব্যবসায়ী আব্দুস সামাদ বলেন, স্থানীয় লোকজন এ বিষয়ে একাধিকবার উপজেলা প্রকৌশলীসহ ঠিকাদারদের লোকজনকে জানিয়েছে কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না।

বাদাঘাট-তাহিরপুর সড়করে বাদাঘাট পাতারগাঁও অংশের ঠিকাদার আমিনুল হক এন্ড কোং এর স্বত্ত্বাধিকারী আমিনুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে কোম্পানির পরিচালক প্রফুল্ল পালের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমরা সঠিকভাবে কাজ করছি, কাজে কোনোরকম অনিয়ম নেই।

সংশ্লিষ্ট কাজের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মাজেদুল হক বলেন, ডিজাইন অনুয়ায়ী কাজে ২৪ শতাংশ ডাস্ট রয়েছে। আর এ ডাস্ট থাকায় স্থানীয় লোকজন বলছেন নিম্নমানের কাজ হচ্ছে।

বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন বলেন, উপজেলা প্রকৌশল কার্যালয়ের লোকজনের উপস্থিতিতিতে ঠিকাদারের লোকজন কাজ করে। তদারকি কাজে নিয়োজিত ও ঠিকাদারের লোকজনকে আমি ব্যক্তিগতভাবে অনেকবার বলেছি গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটির কাজ গুণগতভাবে ভালো করার জন্য।

তাহরিপুর উপজলো প্রকৌশলী আলমগীর হোসনে বলেন, কাজের ত্রুটির বিষয়ে ঠিকাদারকে বলা হয়েছে।

বিএইচবি/বিএইচ/

 

সিলেট: আরও পড়ুন

আরও