বাংলাদেশে বিনিয়োগে সুযোগ-সুবিধা বিষয়ক সেমিনার ইতালিতে

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

বাংলাদেশে বিনিয়োগে সুযোগ-সুবিধা বিষয়ক সেমিনার ইতালিতে

ইসমাইল হোসেন স্বপন, ইতালি ১০:১৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৯

বাংলাদেশে বিনিয়োগে সুযোগ-সুবিধা বিষয়ক সেমিনার ইতালিতে

বাংলাদেশ দূতাবাস, ইতালির উদ্যোগে ইতালির দ্বিতীয় বৃহত্তম দ্বীপ সারদিনিয়া প্রদেশের রাজধানী কালিয়ারি শহরে এক বাণিজ্যিক সেমিনারের আয়োজন করা হয়।

২৪ অক্টোবর চেম্বার ভবনে অনুষ্ঠিত এ সেমিনারে চেম্বার অফ কমার্সের সহ-সভাপতিসহ প্রায় ৩০ জন ইতালিয়ান ব্যবসায়ী অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশের উন্নয়ন চিত্র, বিদ্যমান বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ, বিনিয়োগের সম্ভাব্য ক্ষেত্রসমুহ, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার বিষয়ে সেমিনারে আলোচনা হয়।

রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদারের সভাপতিত্বে সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চেম্বার অব কমার্সের সহ-সভাপতি এম মুসকাস।

স্বাগত বক্তব্য দেন সারদিনিয়ায় বাংলাদেশ অনারারি কনসাল ডা. সালবাতরে ফ্লোরিস। বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রথম সচিব (রাজনৈতিক) রাজীব ত্রিপুরা অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

রাষ্ট্রদূত প্রথমে বাংলাদেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতি সম্পর্কে উপস্থিত ব্যবসায়ীদের অবহিত করেন। এরপর উন্নত সমৃদ্ধ দেশে রূপান্তরিত করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন-২০২১ এবং ভিশন-২০৪১ সম্পর্কে এবং বিগত ১০ বছরে বাংলাদেশের ধারাবাহিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের বিষয়ে সেমিনারে বক্তব্য দেন।

তিনি বলেন, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক শক্তিশালীকরণে অর্থনৈতিক সহযোগিতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর এ সম্পর্ক উন্নয়নে কেন্দ্রীয় সরকারের ভূমিকার পাশাপাশি বিভিন্ন অঞ্চলের ব্যবসায়ীদের ভূমিকাও অনস্বীকার্য।

সেমিনারে ইকনমিক কাউন্সেলর মানস মিত্র একটি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন দেন। প্রেজেন্টেশনে তিনি বাংলাদেশের বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের বর্তমান অবস্থান এবং ইতালির সঙ্গে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্কের বিষয়ে আলোকপাত করেন।

সবশেষে তিনি বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (BEZA), বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (BIDA) এবং হাই-টেক পার্কে বিনিয়োগ করার সুযোগসহ বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা এবং বিনিয়োগের সম্ভাব্য ক্ষেত্র তুলে ধরেন।

বিনিয়োগের সম্ভাব্য ক্ষেত্র হিসেবে তিনি পোশাকশিল্প, কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য, ফার্মাসিউটিক্যাল, তথ্যপ্রযুক্তি, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, সিরামিকস, নবায়নযোগ্য শক্তি, ব্লু-ইকোনমি এবং ট্যুরিজম বিষয়ে প্রেজেন্টেশনে বিস্তারিত তুলে ধরেন।

উপস্থাপনার পর প্রশ্ন-উত্তর ও মুক্ত আলোচনা পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। উপস্থিত ব্যবসায়ীরা বিপুল আগ্রহ ও স্বতস্ফূর্তভাবে প্রশ্ন-উত্তর ও মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।

ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশ সরকারের যুগোপযোগী ট্যাক্স হলিডে, উদার বাণিজ্যনীতি ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত বিভিন্ন দিক ও অগ্রগতির বিষয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন করেন। রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার ও ইকনমিক কাউন্সেলর মানস মিত্র এসব প্রশ্নের উত্তর প্রদান করেন।

সন্ধ্যায় কালিয়ারি সিভিল সোসাইটির একটি ক্লাব-ডমিশিয়ান ডাইনিংয়ের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষির্কী উদযাপন উপলক্ষে একটি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন রাষ্ট্রদূত।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সারদিনিয়া অঞ্চলের রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন দেশের অনারেরি কনসালবৃন্দ।

এর আগে মঙ্গবার (২২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রাষ্ট্রদূত সারদিনিয়া প্রদেশের প্রশাসনিক প্রধান প্রিফেক্ট বি কোরদার সঙ্গে তাঁর কার্যালয়ে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন। প্রিফেক্ট বি কোরদার সারদিনিয়ার প্রদেশ সম্পর্কে রাষ্ট্রদূতকে অবহিত করেন।

তিনি জানান, ৭০০ এর অধিক বাংলাদেশি নাগরিক তার প্রদেশে বসবাস করছে, যাদের মধ্যে ১৫০ এর অধিক উদ্যোক্তা এবং অন্যরা বিভিন্ন পেশার সাথে জড়িত রয়েছেন।

বাঙালিদের সৎ এবং কঠোর পরিশ্রমী হিসেবে উল্লেখ করেন এ প্রশাসনিক প্রধান।

রাষ্টদূতও বাংলাদেশ সম্পর্কে প্রিফেক্টের কাছে তুলে ধরেন এবং বাংলাদেশি নাগরিকদের সারদিনিয়া অঞ্চলে সম্মানের সাথে বসবাসের সুযোগ করে দেয়ার জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

রাষ্ট্রদূত জানান, ইতালিতে বসবাসরত বাংলাদেশি নাগরিকগণ কৃষিকাজে এবং ট্যুরিজম সেক্টরে দক্ষতার সাথে কাজ করে ইতালির অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।

সারদিনিয়া অঞ্চলের কৃষি এবং ট্যুরিজম সেক্টরের উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশ সার্বিক সহযোগিতা করতে পারবে বলে তিনি প্রিফেক্টকে অবহিত করেন।

এইচআর

 

সাফল্য: আরও পড়ুন

আরও