‘বিনিয়োগকারীদের ক্ষতিতে বিএসইসি চুপ থাকবে না’

ঢাকা, সোমবার, ২৩ জুলাই ২০১৮ | ৮ শ্রাবণ ১৪২৫

‘বিনিয়োগকারীদের ক্ষতিতে বিএসইসি চুপ থাকবে না’

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৬:১৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৭, ২০১৭

print
‘বিনিয়োগকারীদের ক্ষতিতে বিএসইসি চুপ থাকবে না’

কারসাজি চক্রের কারণে বিনিয়োগকারীদের ক্ষতি হলে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা চুপ থাকবে না। এজন্য আইন প্রণয়ন ও তার কঠোর বাস্তবায়নে কাজ করছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

বৃহস্পতিবার  রাজধানীর শিল্পকলা মিলনায়তেনে ক্যাপিটাল মার্কেট এক্সপো ২০১৭ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে কোম্পানির শেয়ারের মূল্য নির্ধারণে ৪টি পদ্ধতি নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু কিছু প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী সেই পদ্ধতি অনুসরণ না করেই কাল্পনিক দাম দিয়ে বিডিং করছে। যা অযুক্তি। এমন ক্ষেত্রে সময়িক সময়ের জন্য ইস্যুয়ার শেয়ারের ভাল মূল্য পেলেও দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। বুক বিল্ডিং প্রক্রিয়ায় শেয়ারের দাম নির্ধারণে অনিয়ম হলে বিএসইসি চুপ করে বসে থাকবে না।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন,  নানামুখী সংস্কারের মধ্যে দিয়ে পুঁজিবাজার শক্তিশালী অবস্থানে এসেছে। এখন পুঁজিবাজার অনেক শক্তিশালী। পুঁজিবাজারে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণও বেড়েছে। বিনিয়োগ নির্ভর পুঁজিবাজার গড়ে না উঠলে তা কখনো স্থিতিশীল হবে না।

পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের আসেতে আমন্ত্রণ জানাচ্ছি না জানিয়ে তিনি বলেন, অনেকে মনে করেন আমরা বিভিন্ন সভা সেমিনারের মাধ্যমে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের আসতে আমন্ত্রণ জানাচ্ছি। কিন্তু তা না। আমরা শুধু বিনিয়োগকারীদের সচেতন করার জন্য কাজ করছি। যার মাধ্যমে সচেতন বিনিয়োগকারীরা পুঁজিবাজারে আসবে।

অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান ড. এ কে মোমেন বলেন, পুঁজিবাজারের উন্নয়নের জন্য সুপরিকল্পিত রোডম্যাপ তৈরি করতে হবে। আগামী ৫ বছরে পুঁজিবাজারকে আমরা কোথায় দেখতে চাচ্ছি তার জন্য পরিকল্পনা থাকা প্রয়োজন।

বিএসইসি’র কমিশনার ড. স্বপন কুমার বালা বলেন, দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগের জন্য পুঁজিবাজার কিভাবে ব্যবহার করা যায়- তা নিয়ে বিএসইসি  কাজ করছে। নতুন নতুন প্রডাক্ট-যেমন এটিএফ ফান্ড, স্মল ক্যাপ মার্কেট, ওটিসি মার্কেট বোর্ড গঠনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। বিশেষ অতিথি বিএসইসির চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সন্মানিত  অতিথি চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) চেয়ারম্যান ড.  এ কে আবদুল মোমেন, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ  (ডিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) কে এ এম মাজেদুর রহমান, ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোস্তাক আহমেদ ও বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংক অ্যাসোসিয়েশনের ছায়দুর রহমান।

এতে সভাপতিত্ব করেন আয়োজক প্রতিষ্ঠান অর্থসূচকের সম্পাদক জিয়াউর রহমান।

জেআইএস/এএসটি

 
.



আলোচিত সংবাদ