‘সোনালী আঁশের শেয়ার দরের অস্বাভাবিক উত্থানের কারণ নেই’

ঢাকা, ১৮ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

‘সোনালী আঁশের শেয়ার দরের অস্বাভাবিক উত্থানের কারণ নেই’

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১:৪০ অপরাহ্ণ, জুন ১৭, ২০১৯

‘সোনালী আঁশের শেয়ার দরের অস্বাভাবিক উত্থানের কারণ নেই’

পুঁজিবাজারের পাট খাতের তালিকাভুক্ত সোনালী আঁশের শেয়ারের দর বাড়ার কোনো কারণ নেই বলে জানিয়েছে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ। সাম্প্রতিক সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার দরের অস্বাভাবিক উত্থানের কারণ জানতে চাইলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে (ডিএসই) এ তথ্য জানায় কোম্পানিটি। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, কোম্পানিটির শেয়ারের অস্বাভাবিক দাম বাড়ার পেছনের কারণ জানতে চেয়ে ১৬ জুন নোটিশ পাঠানো হয়। এর জবাবে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সম্প্রতি প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারের যে অস্বাভাবিক দাম বেড়েছে তার জন্য তাদের কাছে অপ্রকাশিত কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই।

ডিএসই’র বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, গত ৯ জুন কোম্পানিটির প্রতিটি শেয়ারের দর ছিল ৪০৫ টাকা। যা টানা বেড়ে ১৬ জুন দাঁড়ায় ৫৩০ টাকায়। অর্থাৎ পাঁচ কার্যদিবসের ব‍্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ারের দর বেড়েছে ১২৫ টাকা।

এই দর বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতেই ডিএসই থেকে কোম্পানিটিকে নোটিশ পাঠানো হয় এবং কোম্পানি কর্তৃপক্ষের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে বিনিয়োগকারীদের সতর্ক করতে তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

তৃতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, জুলাই’১৮ থেকে মার্চ’১৯ অর্থাৎ বিগত ৯ মাসে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৮১ টাকা। যা আগের বছরের একই সময় ছিল ১.৩৭ টাকা। অর্থাৎ এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার দর কমেছে ৪৩.০৬ শতাংশ।

এ সময় শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ২২৬.৭১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর অর্থ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৭.২১ টাকা (নেগেটিভ)।

এদিকে, তৃতীয় প্রান্তিকের শেষ তিন মাসে অর্থাৎ জানুয়ারি’১৯ থেকে মার্চ’১৯ শেষে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪১ টাকা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ০.৬২ টাকা।

৩০ জুন ২০১৮ সমাপ্ত অর্থ বছরে কোম্পানিটি ১০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে।

ডিএসই’র ওয়েবসাইট সূত্রে জানা যায়, ১৯৮৫ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় সোনালী আঁশ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। ‘এ’ ক্যাটাগরির আওতাভুক্ত কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ১০ কোটি টাকা। কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ২ কোটি ৭১ লাখ ২০ হাজার টাকা।

কোম্পানিটির সর্বমোট শেয়ারের ৫০.৮০ শতাংশ রয়েছে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের হাতে। বাকি শেয়ারের মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে আছে ৪৩.৫৭ শতাংশ শেয়ার। আর প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ৫.৬৩ শতাংশ শেয়ার আছে।

জেডএস/আরপি

 

শেয়ারবাজার: আরও পড়ুন

আরও