১৭ কোম্পানির শেয়ারে বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে

ঢাকা, রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯ | ৯ চৈত্র ১৪২৫

১৭ কোম্পানির শেয়ারে বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে

জাহিদ সুজন ১২:৫৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৮

১৭ কোম্পানির শেয়ারে বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে

অব্যাহত বিক্রয় চাপ, কমছে শেয়ার দর। প্যানিক সেল করছে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। কিন্তু বিনিয়োগ উপযোগী শেয়ার খুজে বিনিয়োগ অব্যাহত রখেছে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা। এরই ধারাবাহিকতায় নভেম্বর মাস শেষে বাজারের তালিকাভুক্ত ১৭ কোম্পানির শেয়ারে বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) তথ্য বিশ্লেষণে এমন তথ্য জানা গেছে।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অব্যাহত দর পতনে বাজারের সিংহভাগ কোম্পানির শেয়ার বিনিয়োগ উপযোগী দরে রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে নতুন বিনিয়োগ করা উত্তম। কারণ, বর্তমান সময়ে বিনিয়োগ করলে বাজারের ঊর্ধ্বমুখী অবস্থায় হাতে থাকা শেয়ার বিক্রয় করে দ্রুত মুনাফা সংগ্রহ করা যাবে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত পহেলা নভেম্বর পুঁজিবাজারের প্রকৌশল খাতের তালিকাভুক্ত বিবিএস ক্যাবলসের শেয়ার দর ছিল ১১৯.১ টাকা। কিন্তু ২৯ নভেম্বর তা ৮৬.১ টাকায় নেমে এসেছে। অর্থাৎ এক মাসের ব্যবধানে কোম্পানিটির শেয়ার দর কমেছে ৩৩ টাকা বা ৩৮.৩২ শতাংশ।

কিন্তু এসময় বিবিএস ক্যাবলসের বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে প্রায় ০.৮৪ শতাংশ। ৩১ অক্টোবর শেষে কোম্পানিটির বিদেশি বিনিয়োগ ছিল ০.১৮ শতাংশ। কিন্তু ৩০ নভেম্বর শেষে তা ১.০২ টাকায় স্থিতি পেয়েছে।

এদিকে, বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ায় কোম্পানিটির সাধারণ বিনিয়োগকারীদের শেয়ার কমেছে। ৩১ অক্টোবর শেষে কোম্পানিটির সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে ৫৪.৭১ শতাংশ শেয়ার ছিল। ৩০ জুন শেষে তা ৫৩.৬৯ শতাংশে নেমে এসেছে।

এদিকে, আইসিবি থার্ড এনআরবি মিউচুয়্যাল ফান্ডে বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে ২.২১ শতাংশ। ইস্যু মূল্যের নিচে থাকা কোম্পানিটির শেয়ারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের এমন আগ্রহের রহস্য জানা যায় নি। এদিকে, নভেম্বর মাসে কোম্পানিটির প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগও বেড়েছে।

এছাড়া ১.১৩ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স সার্ভিসেস লিমিটেডের। ৩১ অক্টোবর শেষে কোম্পানিটির বিদেশি বিনিয়োগ ছিল ১.১০ টাকা। কিন্তু ৩০ নভেম্বর শেষে তা ২.২৩ টাকায় স্থিতি পেয়েছে। এসময় কোম্পানিটির প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ২৪.৫৬ শতাংশ থেকে কমে ২৩.৩৫ শতাংশে স্থিতি পেয়েছে।

এদিকে, প্রায় ১ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে সিটি জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের। ৩১ অক্টোবর শেষে কোম্পানিটির বিদেশি বিনিয়োগ ছিল ০.০৯ শতাংশ। কিন্তু ৩০ নভেম্বর শেষে কোম্পানিটির বিদেশি বিনিয়োগ ১ শতাংশে স্থিতি পেয়েছে।

এসময় কোম্পানিটির প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের বিক্রয় চাপ দেখা গেছে। গত ৩১ অক্টোবর কোম্পানিটির প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ৩৪.০৬ শতাংশ। কিন্তু ৩০ নভেম্বর শেষে তা ২৭.৩৮ শতাংশে নেমে এসেছে।

বিদেশি বিনিয়োগ বাড়া কোম্পানিগুলোর তালিকায় আরো ছিল-ব্র্যাক ব্যাংক, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস কোম্পানি, গ্রিন ডেল্টা মিউচুয়্যাল ফান্ড, আইসিবি এম্পলয়ি প্রভিডেন্ড মিউচুয়্যাল ফান্ড, আইডিএলসি, এলআরবি গ্লোবাল মিউচুয়্যাল ফান্ড, ওরিয়ন ইনফিউশন, প্যাসিফিক ডেনিমস, পাওয়ার গ্রিড, প্রাইম ব্যাংক ফাস্ট আইসিবি এএমসিএল মিউচুয়্যাল ফান্ড, রেনেটা, তাকাফুল লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও উত্তরা ব্যাংক।

দেশের শীর্ষ মার্চেন্ট ব্যাংক এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব এইচ মজুমদার পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, বিদেশি বিনিয়োগকারীরা সবসময় দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগ করে। এজন্য তারা গবেষনা লব্ধ তথ্যের সর্বোত্তম ব্যবহার করে।

তিনি বলেন, পুঁজিবাজারের বর্তমান অবস্থা বিনিয়োগের জন্য সর্বোত্তম। এমন পরিস্থিতি বিনিয়োগ করলে বাজারের ঊর্ধ্বমুখী অবস্থায় অল্প সময়ে ভাল মুনাফা করা যাবে।

জেডএস/এএসটি