১৭ মে : জঞ্জাল ধুয়ে পবিত্রতার পরশ বুলানোর শপথের দিন

ঢাকা, শনিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৮ | ৩ ভাদ্র ১৪২৫

১৭ মে : জঞ্জাল ধুয়ে পবিত্রতার পরশ বুলানোর শপথের দিন

মাজহারুল ইসলাম শামীম ২:৫৪ পূর্বাহ্ণ, মে ১৭, ২০১৮

print
১৭ মে : জঞ্জাল ধুয়ে পবিত্রতার পরশ বুলানোর শপথের দিন

অন্ধকারের দিন ফুঁড়ে একগুচ্ছ আলোর রোশনাই
প্রতিক্ষার প্রহর পেরিয়ে, জেগে ওঠে তরুণ বনসাই
ঝেঁকে বসা অন্যায় শৃঙখলে যখন আর পারছিনা
মুক্তির উঠোনে একটাই মুখ, দেশরত্ন শেখ হাসিনা।

১৭ই মে। প্রকৃতির চোখে আনন্দের কান্না। মমতাময়ীর স্পর্শে জেগে ওঠার প্রয়াস দুর্বাঘাসের, আবার সবুজ হবে, চারিদিকে এই প্রত্যয়। বিমানবন্দরে সামরিক স্বৈরতন্ত্রের সকল হুমকি ধামকি উপেক্ষা করে সোনার জমিনে পা রাখলেন বঙ্গকন্যা। ততোক্ষণে উত্তাল বিমানবন্দরের মাটি, শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত ঢাকা যেন প্রাণ ফিরে পেল। ৭৫ এর পনের আগষ্টের সেই কালো ছায়ায় আলোর রোশনাই নেমে এলেন শেখ হাসিনা। জানালেন, এই মাটি থেকে সমস্ত জঞ্জাল ধুয়ে মুছে পবিত্রতার পরশ বুলানোর শপথ তার।

১৯৮১ এর ১৭ মে। রাজনৈতিক বাস্তবতায় আওয়ামীলীগ তখন দোদুল্যমান এক ক্ষুদ্রতরী, জনমানুষের ভালোবাসার গুনে জ্বলে থাকা নিভু নিভু প্রদীপের নাম। দলীয় কাউন্সিলে শেখ হাসিনাকে সভাপতি করা হয়েছে ঠিকই কিন্তু চারিদিকে তখনো অসহযোগিতার কালো কালো হাত, সেখানে দাঁড়িয়ে তিনি শুরু করলেন নতুন দিনের। ভালোবাসা আর স্নেহ দিয়ে হয়ে উঠলেন মাটি ও মানুষের একমাত্র আশ্রয়। স্যাটেলাইটের এই বাংলাদেশ আজ যে অপ্রতিরোধ্য গতিতে সমগ্র বিশ্বে নিজের অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে, তার শুরুটা এই ১৭ই মে। তাই বাংলাদেশের রাজনৈতিক বাস্তবতায় এই দিনটির গুরুত্ব অপরিসীম।

১৯৮১ এর সামরিক শাসক জিয়ার হাত ধরে ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠিত হতে থাকা জামায়াত শিবির, স্বাধীনতাবিরোধী সাম্প্রদায়িক মৌলবাদ শক্তির উত্থানে যখন টালমাটাল মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, যখন এদেশে জাতির জনকের নাম নেয়ার পথ রুদ্ধ হয়ে যাচ্ছিলো, তখন এ পথভ্রষ্ট সময়ের হাল ধরলেন তিনি। নিজের সৃষ্টিশীল মেধা আর অক্লান্ত পরিশ্রমে আওয়ামীলীগ কে পুনরায় জাগ্রত করলেন, স্বৈরাচার এরশাদের বিরুদ্ধে দেশরত্নের ডাকে রাজপথে নেমে আসলো লক্ষ মানুষ।

এভাবেই শত প্রতিকুলতা পেরিয়ে যে মানবিক বাংলাদেশ গড়ায় প্রত্যয় নিয়ে আজকের এই দিনে বাংলাদেশে পা রাখলেন তা আজ সারা বিশ্বে এক অনন্য মডেল। তলাবিহীন ঝুড়ির বাংলাদেশ আজ অভিজাত স্যাটেলাইট ক্লাবের গর্বিত সদস্য। বিশ্বের বুকে আজ বাংলাদেশ অনন্য বিস্ময়।

লেখক
সাবেক প্রশিক্ষণ সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ

লেখকদের উন্মুক্ত প্লাটফর্ম হিসেবে পরিচালিত হচ্ছে মুক্তকথা বিভাগটি। পরিবর্তনের সম্পাদকীয় নীতি এ লেখাগুলোতে সরাসরি প্রতিফলিত হয় না।
 
.


আলোচিত সংবাদ