ধোনির ক্যাপ্টেনস নক জেতাতে পারল না চেন্নাইকে

ঢাকা, বুধবার, ১৮ জুলাই ২০১৮ | ৩ শ্রাবণ ১৪২৫

আইপিএল ২০১৮

ধোনির ক্যাপ্টেনস নক জেতাতে পারল না চেন্নাইকে

পরিবর্তন ডেস্ক ১:৫৯ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১৬, ২০১৮

print
ধোনির ক্যাপ্টেনস নক জেতাতে পারল না চেন্নাইকে

জয়ের জন্য শেষ ৩ ওভারে চেন্নাই সুপার কিংসের প্রয়োজন ছিল ৫৫ রান। ক্রিজে অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি ও রবিন্দ্র জাদেজা। কিন্তু ভক্তদের মন ঠিক ভরসা করতে পারে না। ক্যাপ্টেন কুলকে যে চেনা রুদ্রমূর্তিতে দেখা যায়নি অনেকদিন। শেষ পর্যন্ত প্রয়োজনীয় ৫৫ রানের ৫০ই তুলে ফেলল চেন্নাই। যার ৪১ রান এলো সেই ফুরোতে বসা ধোনির ব্যাট থেকেই। তারপরও ৪ রানে হেরে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের বিপক্ষে ট্রাজিক হিরো হয়েই থাকলেন ধোনি।

মোহালিতে দলটির দেয়া ১৯৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করে ৫ উইকেট হারিয়ে চেন্নাইয়ের ইনিংস শেষ হয় ১৯৩ রানে।

রানের পাহাড়ের পেছনে ছুঁটতে গিয়ে ১৭ রানেই প্রথম উইকেট হারায় চেন্নাই। ৫৬ রানে তৃতীয় ব্যাটসম্যান সাজঘরে ফেরার পর জুটি বাঁধেন আমবাতি রাইডু ও ধোনি। ৪৯ করে দলীয় ১১৩ রানে বিদায় নেন রাইডু। সেখান থেকে ধোনি ও জাদেজা জুটি বাঁধলেও রান তোলার গতি বেশ কমে যায়। শেষ ৩ ওভারে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় রান দাঁড়ায় ৫৫ তে। কিন্তু ধোনির ব্যাটের জবাব দেওয়া তখনও বাকি ছিল। ১৮তম ওভারে ধোনি-জাদেজা মিলে তোলেন ১৯ রান। ১৯ তম ওভারের দ্বিতীয় বলে জাদেজা আউট হন। সে ওভারে ২ ছক্কা ও ১ চারে ধোনি নেন ১৯ রান। জয়ের জন্য শেষ ওভারে প্রয়োজন ছিল ১৭ রান। ডোয়াইন ব্রাভো প্রথম বলে একটি সিঙ্গেল নিয়ে ধোনিকে ব্যাটিং প্রান্তে পাঠান। তৃতীয় বলে চার মারেন এই ডানহাতি। শেষ ৩ বলে জয়ের জন্য দরকার ১১ রান। চতুর্থ বলে কোন রান নিতে পারেননি ধোনি। পঞ্চম বল কাভার অঞ্চল দিয়ে পাঠান তিনি। তবে ডিপ পয়েন্টের ফিল্ডার সেটাকে চার হওয়া থেকে বাঁচায়। মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে যায় চেন্নাইয়ের পরাজয়। তারপরও শেষ বলটায় বিশাল এক ছক্কা মারেন ধোনি। দল হেরে গেল চার রানে। ১৮তম ওভারের আগে ব্যক্তিগত ৩০ বলে ৩৮ রান তুলেছিলেন ধোনি। ম্যাচ শেষে তা দাঁড়িয়েছিল ৪৪ বলে অপরাজিত ৭৯ রানে। মোট ৫টি ছয় ও ৬টি চার।

ধোনি ঠিকই বার্তা দিয়ে গেলেন, এখনও ফুরিয়ে যাননি তিনি। পাঞ্জাবের পেসার অ্যান্ড্রু টাই ৪৭ রান খরচায় ২ উইকেট পান।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নামে পাঞ্জাব। ব্যাটিং দানব ক্রিস গেইল ও অপর ওপেনার লোকেশ রাহুলের ঝড়ো শুরুতে তারা ৭ উইকেট হারিয়ে ১৯৭ রানের পাহাড়ে ওঠার ভিত্তি পায়। রান আরও বেশি হতে পারত। তবে মিডল অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা দ্রুত উইকেট হারানোয় তা সম্ভব হয়নি। ৩৩ বলে ৪টি ছক্কা ও ৭ চারে দলীয় সর্বোচ্চ ৬৩ রানের ইনিংস খেলেন গেইল। চেন্নাইয়ের শার্দুল ঠাকুর ও ইমরান তাহির ২টি করে উইকেট পান।

ম্যাচসেরার পুরস্কার পান গেইল।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব : ১৯৭/৭ (২০ ওভার) (রাহুল ৩৭, গেইল ৬৩, মায়ানক ৩০, যুবরাজ ২০, ফিঞ্চ ০, নায়ার ২৯, অশ্বিন ১৪, টাই ৩*, বারিন্দার ০*; চাহার ০/৩৭, হরভজন ১/৪১, শার্দুল ২/৩৩, তাহির ২/৩৪, ওয়াটসন ১/১৫, ব্রাভো ১/৩৭)।

চেন্নাই সুপার কিংস : ১৯৩/৫ (২০ ওভার) (ওয়াটসন ১১, বিজয় ১২, রাইডু ৪৯, বিলিংস ৯, ধোনি ৭৯*, জাদেজা ১৯, ব্রাভো ১*; বারিন্দার ০/৩৭, মোহিত ১/৪৭, টাই ২/৪৭, মুজিব ০/১৮, অশ্বিন ১/৩২, যুবরাজ ০/১০)।

ফলাফল : কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব ৪ রানে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : ক্রিস গেইল।

এসএম/এএস

 
.



আলোচিত সংবাদ