মোদির ডাকা দলীয় সভাপতিদের বৈঠকেও যাচ্ছেন না মমতা

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

মোদির ডাকা দলীয় সভাপতিদের বৈঠকেও যাচ্ছেন না মমতা

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:০৬ অপরাহ্ণ, জুন ১৮, ২০১৯

মোদির ডাকা দলীয় সভাপতিদের বৈঠকেও যাচ্ছেন না মমতা

ভারতের নয়াদিল্লিতে বুধবার সমস্ত দলের সভাপতিদের নিয়ে অনুষ্ঠিতব্য বৈঠকের বিষয়ে মঙ্গলবার নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূলের প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানায়, ‘এক দেশ, এক নির্বাচন’ নিয়ে আলোচনার জন্য বৈঠক বুধবার ডাকা হয়েছে। সেই বৈঠকেই যোগদানের জন্য দলের সভাপতিদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। কিন্তু মমতা বলছেন, বিষয়টি নিয়ে এগিয়ে যেতে আলোচনাই যথেষ্ঠ নয়।

ইতিমধ্যেই কয়েকটি বিরোধীদল সরকারের আলোচনার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে।

সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ জোশিকে লেখা চিঠিতে পুরো বিষয়টি নিয়ে শ্বেতপত্র প্রকাশের দাবি করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছেন, বিষয়টি নিয়ে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা প্রয়োজন।

চিঠিতে মমতা লিখেছেন, ‘এক দেশ, এক নির্বাচনের মতো একটি স্পর্শকাতর ও গুরুতর বিষয় নিয়ে এত কম সময়ে আলোচনা হতে পারে না। বিষয়টি নিয়ে সংবিধান বিশেষজ্ঞ, নির্বাচন বিশারদ এবং সমস্ত দলের সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা প্রয়োজন।’

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চিঠিতে আরও লেখেন, ‘বিষয়টি নিয়ে তাড়াহুড়ো করার পরিবর্তে, আমার অনুরোধ, সমস্ত দলের কাছে বিষয়টি নিয়ে শ্বেতপত্র প্রকাশ করা হোক, এবং তাদের যথেষ্ঠ সময় দিয়ে মতামত জানতে চাওয়া হোক। যদি আপনারা এভাবে করেন, তাহলেই আমরা আমাদের মতামত ঠিকভাবে দিতে পারব।’

গোটা ভারতে লোকসভা ও বিধানসভার নির্বাচন একসঙ্গে করার জন্য ‘এক দেশ, এক নির্বাচন’র কথা ভাবা হচ্ছে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে মোদি সরকারের সঙ্ঘাত চরমে পৌঁছেছিল নির্বাচনের বেশ কয়েক মাস আগে থেকেই। ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র প্রভাবে বাংলায় কতটা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এবং কী ধরনের সাহায্য রাজ্যের প্রয়োজন, সে সব নিয়ে আলোচনার জন্য নরেন্দ্র মোদি ভোটের মাঝেই ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে। কিন্তু মমতা সে সময় মোদির সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি।

ভোট শেষ হওয়ার পর নরেন্দ্র মোদির শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে যাবেন বলে প্রথমে জানিয়েছিলেন মমতা, পরে সে সিদ্ধান্তও বদলে ফেলেন তিনি।

এমআর/এসবি

 

দক্ষিণ এশিয়া: আরও পড়ুন

আরও