যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে বেশি টাকা খরচ হয়েছে ভারতের নির্বাচনে

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯ | ৪ আষাঢ় ১৪২৬

যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে বেশি টাকা খরচ হয়েছে ভারতের নির্বাচনে

পরিবর্তন ডেস্ক ৭:৪২ অপরাহ্ণ, জুন ০৯, ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে বেশি টাকা খরচ হয়েছে ভারতের নির্বাচনে

এ বছর ভারতের সাধারণ নির্বাচন কেবল বিশ্বের সবচেয়ে বড় নির্বাচন ছিল না। একই সঙ্গে এটা বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল নির্বাচনও ছিল বলে রোববার জানিয়েছে মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন।

এসময় রাজনৈতিক দলগুলো, প্রার্থীরা, এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলো প্রায় ৮৬০ কোটি ডলার খরচ করেছে বলে জানা গেছে গবেষণায়।

এর তুলনায়, ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট ও কংগ্রেস নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রে খরচ হয়েছে ৬৫০ কোটি ডলার।

অলাভজনক মার্কিন সংস্থা ওপেন সিক্রেটসের উদ্ধৃতি দিয়ে সিএনএন এই তথ্য জানায়।

দিল্লী-ভিত্তিক সেন্টার ফর মিডিয়া স্টাডিজ (সিএমজি) এবছর ভারতের জাতীয় ও রাজ্য ভিত্তিক নির্বাচনে ব্যয়ের পরিমাণ নিয়ে গবেষণা করেছে। তাদের তথ্য অনুযায়ী ২০১৪ সালের নির্বাচনের ব্যয়ের তুলনায় ২০১৯ সালের নির্বাচনে দ্বিগুণ অর্থ ব্যয় হয়েছে সেখানে।

লোকসভা নির্বাচনে বিপুল ভোটে জিতে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসায় নরেন্দ্র মোদি ভারতের সাম্প্রতিক ইতিহাসের সবচেয়ে শক্তিশালী ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়েছেন। বিজেপির নেতৃত্বাধীন জোট পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষের দুই তৃতীয়াংশ আসন জিতেছে।

সিএনএন জানায়, বিজেপির পিছনে মোদির জনপ্রিয়তা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে, কিন্তু সিএমএসের গবেষণায় পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে দলটি অর্থনৈতিক ভাবেও এগিয়ে ছিল। তারই ভিত্তিতে হিন্দু জাতীয়তাবাদ ও জাতীয় নিরাপত্তার ইস্যুকে কেন্দ্র করে দেশজুড়ে প্রচারণা চালায় দলটি।

বিজেপি একাই এবছরের নির্বাচনের মোট ব্যয়ের ৫৫% শতাংশ খরচ করেছে, যার পরিমাণ হচ্ছে ৪৫০ কোটি ডলার।

তাদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বাধীন কংগ্রেস দল খরচ করেছে মোট ব্যয়ের ১৫%-২০%। এক সময় কংগ্রেসকেই ভারতে সরকার গঠনকারী স্বাভাবিক দল হিসেবে বিবেচনা করা হলেও, ২০১৯ সালের নির্বাচনে তারা নিম্নকক্ষের ৫৪৩ আসনের মধ্যে পেয়েছে মাত্র ৫২টি আসন। ইতিহাসে কংগ্রেস এর চেয়ে বাজেভাবে নির্বাচনে পরাজিত হয়েছিল মাত্র একবার।

২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনে ভোট দিয়েছিল ৬০ কোটি মানুষ, যার জন্য ১০ লাখেরও বেশি ভোটদান কেন্দ্র তৈরি করতে হয়েছিল।

এপ্রিল থেকে মে মাস পর্যন্ত চলা নির্বাচনে কাজ করেছেন প্রায় এক কোটি কর্মকর্তা। এসময় কর্তৃপক্ষই ব্যয় করেছেন ১০০ কোটি ডলার।

নির্বাচনে ব্যয়কৃত অর্থের ১০%-১২% শতাংশ নগদ টাকা হিসেবে ভোটারদের দেয়া হয়েছে বলে দাবী করেছে সিএমএস।

এগার সপ্তাহ জুড়ে নির্বাচনী প্রচারণার সময় ভারতের নির্বাচন কমিশন ৫০ কোটি ডলারেরও বেশি নগদ টাকা, স্বর্ণ, মদ, ও বিভিন্ন মাদক বাজেয়াপ্ত করেছিল বলে জানায় সিএনএন।

এমআর/এএসটি