বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে রক্তাক্ত পশ্চিমবঙ্গ, নিহত ৪

ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে রক্তাক্ত পশ্চিমবঙ্গ, নিহত ৪

পরিবর্তন ডেস্ক ১০:২১ পূর্বাহ্ণ, জুন ০৯, ২০১৯

বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষে রক্তাক্ত পশ্চিমবঙ্গ, নিহত ৪

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে ক্ষমতাসীন তৃণমূল ও কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপির মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত চারজনের মৃত্যু হয়েছে বলে স্থানীয় গণমাধ্যমে বলা হয়েছে। শনিবার উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালিতে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় আরও অনেকে গুলিবিদ্ধ এবং নিখোঁজ রয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রের বরাত দিয়ে বলছে আনন্দবাজার। তবে পুলিশ তিনজনের মৃত্যুর খবর স্বীকার করছে।

খবরে বলা হয়েছে, স্থানীয় তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখের বাহিনী শনিবার সন্ধ্যায় হামলা চালায় বলে বিজেপির অভিযোগ। প্রথমে ওই এলাকায় তৃণমূলের বৈঠক হয় এবং বৈঠক শেষে বিজেপির পতাকা খুলতে শুরু করে তৃণমূল, তা থেকেই ঘটনার সূত্রপাত বলে রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসুর দাবি।

কিন্তু জেলা তৃণমূলের সভাপতি জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের পাল্টা অভিযোগ, বৈঠক শেষে মিছিল বার করেছিল তৃণমূল। সেই মিছিলে হামলা চালিয়ে তৃণমূল কর্মী কায়ুম মোল্লাকে গুলি করে ও কুপিয়ে খুন করা হয়।

তবে বিজেপি জ্যোতিপ্রিয়র দাবি প্রত্যাখ্যান করে বলছে, বাড়ি বাড়ি হামলা চালিয়ে গুলি করা হয়েছে বিজেপি কর্মীদের, তাতে অন্তত তিন বিজেপি কর্মীর মৃত্যু হয়েছে, জখম ও নিখোঁজ আরও অনেকে। আর বেপরোয়া গুলি চালানোর সময় তৃণমূলের গুলিতেই তৃণমূল কর্মী কায়ুম মোল্লা নিহত হয়েছে।

তৃণমূলের একটি সূত্র বলছে, এদিন বিকেলে ন্যাজাটে তাদের বুথ স্তরের দলীয় বৈঠক ছিল। তার পর একটি মিছিল বর হলে বিজেপি তার ওপর হামলা চালায়। মিছিলের পেছনে থাকা তৃণমূল কর্মী কায়ুম মোল্লাকে প্রথমে গুলি করা হয় এবং পরে টেনে নিয়ে গিয়ে কুপিয়ে মারা হয়। এর পরই পাল্টা প্রতিরোধে নামে তৃণমূল।

তবে তৃণমূলের অপর সূত্রের দাবি, বৈঠক চলাকালীনই বিজেপি আক্রমণ চালায়।

বিজেপির দাবি, তৃণমূলই প্রথম তাদের ওপর হামলা চালায়। যার জেরে দলের তিন কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

দলীয় সূত্র বলছে, নিহতরা হলেন- প্রদীপ মণ্ডল, তপন মণ্ডল এবং সুকান্ত মণ্ডল।

গভীর রাতে বিজেপির একটি সূত্রে দাবি করা হয়, তাদের দলের আরও দুইজন নিহত হয়েছেন। তাদের নাম দেবব্রত মণ্ডল ও শঙ্কর মণ্ডল।

রাতে রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু দাবি করেন, সংঘর্ষে তাদের দলের পাঁচ কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। সায়ন্তনবাবুর কথায়, ‘পাঁচজন বিজেপি কর্মীর মৃত্যু হয়েছে, তার মধ্যে তিনজনের মৃতদেহ পাওয়া গেছে। বাকি দুইজনের দেহ পুলিশ সরিয়ে ফেলেছে বলে আমাদের কাছে খবর আসছে।’

তিনি বলেন, তাদের চারজন নিখোঁজ রয়েছে। ওই চারজনের মধ্যে শঙ্কর মণ্ডল এবং দেবদাস মণ্ডল নামে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে বলে আমরা খবর পেয়েছি। কিন্তু পুলিশ মৃতের সংখ্যা কমিয়ে দেখাতে ওই দুইজনের দেহ গুম করার চেষ্টা করছে।

তবে পুলিশ বা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ দাবির সত্যতা স্বীকার করা হয়নি এখনও।

পুলিশের পক্ষ থেকে সর্বশেষ বলা হয়েছে, বিজেপির দুইজন নিহত হয়েছেন।

আরপি

 

দক্ষিণ এশিয়া: আরও পড়ুন

আরও