‘অ্যামাজন জঙ্গলে বিদেশি স্বার্থ রক্ষায় কাজ করছে এনজিওগুলো’

ঢাকা, ১০ মে, ২০১৯ | 2 0 1

‘অ্যামাজন জঙ্গলে বিদেশি স্বার্থ রক্ষায় কাজ করছে এনজিওগুলো’

পরিবর্তন ডেস্ক ৫:০৪ অপরাহ্ণ, মে ১১, ২০১৯

‘অ্যামাজন জঙ্গলে বিদেশি স্বার্থ রক্ষায় কাজ করছে এনজিওগুলো’

বিশ্বের বৃহত্তম রেইনফরেস্ট অ্যামাজনের রক্ষণাবেক্ষণ ব্রাজিলের আভ্যন্তরীণ বিষয় এবং বিদেশিদের এতে হস্তক্ষেপ বন্ধ করা উচিৎ বলে মন্তব্য করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্টের প্রধান নিরাপত্তা উপদেষ্টা।

সংবাদমাধ্যমকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে জেনারেল অগুস্তো হেলেনো পেরেইরা বলেন, ‘অ্যামাজন সারা বিশ্বের সম্পদ এই ধারনাটা আমার পছন্দ না, এটা একদম ফালতু কথা।’

‘অ্যামাজন ব্রাজিলের জঙ্গল, ব্রাজিলের উত্তরাধিকার, এবং ব্রাজিলের কল্যাণে এটা ব্রাজিলেরই দেখাশোনা করা উচিৎ,’ বলেন জেনারেল পেরেইরা।

পেরেইরা এমন সময়ে এই মন্তব্য করলেন যখন দেশটির সরকার খনি ও কৃষি সংশ্লিষ্ট মহলের চাপে বিদ্যমান সংরক্ষিত এলাকা পুনঃসমীক্ষা করার কথা ভাবছে। এমাসে দেশটির প্রেসিডেন্ট বিভিন্ন মহলের সমালোচনার মুখে নিউইয়র্কে একটা সফর বাতিল করেছেন। বিশেষ করে মেয়র বিল ডি ব্লাসিও এবং আন্দোলনকর্মীরা অ্যামাজন রেইনফরেস্ট সম্পর্কে প্রেসিডেন্টের অবস্থানের সমালোচনা করেছেন।

সংরক্ষণ বিষয়ক বিজ্ঞানীরা বলছেন জলবায়ু পরিবর্তন বিতর্কে এই বন বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

হাইতিতে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কর্মসূচিতে অংশ নেয়া পেরেইরা ব্রাজিলের সক্রিয় বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বা এনজিওগুলোকে বিভিন্ন তীব্র ভাষায় আক্রমণ করে আসছেন। তার মতে, এসব এনজিও বিদেশি রাষ্ট্রের স্বার্থ উদ্ধারের জন্য কাজ করছে।

‘অ্যামাজনে একদম অপ্রয়োজনীয় এবং পৈশাচিক বিদেশি প্রভাব রয়েছে। এনজিওগুলো কৌশলগত, অর্থনৈতিক এবং ভূরাজনৈতিক স্বার্থ লুকাচ্ছে,’ বলেন তিনি।

বিভিন্ন নীতিমালা শিথিল করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে এবছরের জানুয়ারিতে ক্ষমতায় আসেন বলসোনারো। তার মতে, পরিবেশবাদী ও আদিবাসীদের স্বার্থ রক্ষায় কাজ করা এনজিওগুলো খনি ও কৃষি শিল্পকে ব্যাহত করছে।

প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর তার প্রথম পদক্ষেপ ছিল ন্যাশনাল ইন্ডিয়ান এজেন্সির আদিবাসীদের এলাকা চিহ্নিত করার অধিকার বাতিল করা। তিনি দেশটির বনবিভাগকে সরিয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতায় নিয়ে গেছেন। এসব পদক্ষেপ কংগ্রেস বাতিল করতে পরে। আদিবাসী আন্দোলন কর্মী ও পরিবেশবাদীরা এসব পদক্ষেপে ক্ষুব্ধ হলেও ব্রাজিলের শক্তিশালী কৃষি লবি এতে খুশি হয়েছে।

এ মাসেই ব্রাজিলের আটজন সাবেক পরিবেশ এক খোলা চিঠিতে সতর্ক বার্তা দিয়ে বলেছেন, বলসনারো পরিবেশ সুরক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংস করছেন এবং বিদেশে দেশটির ভাবমূর্তি নষ্ট করছেন। জবাবে বর্তমান পরিবেশমন্ত্রী রিকার্ডো সালেস বলেন, তার সরকার সুশাসন বজায় রেখেছে এবং এনজিওগুলো ব্রাজিলের সুনাম নষ্ট করছে।

পেরেইরা বলেন, ‘বাকি পৃথিবীর ক্ষতি না করে আমাজনে টেকসই উন্নয়নের ক্ষমতা আমাদের রয়েছে। এখন আমি অ্যামাজন সম্পর্কে বাকি পৃথিবীর কাছ শিক্ষা নিতে পারব না।’  

এমআর/এএসটি

 

দক্ষিণ আমেরিকা: আরও পড়ুন

আরও