গীতিকবি গৌরী প্রসন্ন মজুমদারের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ঢাকা, ৪ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

গীতিকবি গৌরী প্রসন্ন মজুমদারের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

পাবনা প্রতিনিধি ১০:১৬ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ২০, ২০১৯

গীতিকবি গৌরী প্রসন্ন মজুমদারের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

মান্না দে’র কণ্ঠে তুমুল জনপ্রিয় ‘কফি হাউসের আড্ডা’সহ কালজয়ী অসংখ্য আধুনিক বাংলা গানের রচয়িতা গৌরী প্রসন্ন মজুমদারের মৃত্যুবার্ষিকী আজ।

পাবনা ফরিদপুর উপজেলার গোপালনগরের এই সন্তান ১৯৮৬ সালের ২০ আগস্ট কলকাতায় মারা যান।

কিংবদন্তি এই গীতিকবির ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকীতে পৈতৃক ভিটায় তাঁর স্মৃতি ধরে রাখতে সংগ্রহশালা গড়ে তোলার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

১৯২৫ সালের ৫ ডিসেম্বর পাবনার ফরিদপুর উপজেলার গোপালনগরের প্রখ্যাত জমিদার পরিবারে জন্ম নেন গৌরী প্রসন্ন। বাবা কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজের অধ্যাপক উদ্ভিদবিদ গিরিজা প্রসন্ন মজুমদার। গৌরী প্রসন্ন শৈশবে কলকাতায় চলে গেলেও ফিরে আসেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়। ভর্তি হন এডওয়ার্ড কলেজে।

পরে ১৯৫১ সালে ভর্তি হন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে। দেশভাগের পর ১৯৬৫ সালে স্বপরিবারে চলে যান কলকাতায়।

বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রচারিত হতো গৌরী প্রসন্নের সঞ্জীবনী অসংখ্য গান। ‘মাগো ভাবনা কেন, শত্রু এলে অস্ত্র হাতে ধরতে জানি’, শোন একটি মুজিবরের থেকে লক্ষ মুজিবরের কণ্ঠস্বরের ধ্বনি প্রতিধ্বনি আকাশে বাতাসে ওঠে রণি’ গানগুলো মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রেরণা দিয়েছিল।

গৌরী প্রসন্নের পাবনার পৈতৃক বাড়ি এখন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। স্মৃতিচিহ্ন বলতে রয়েছে পাশাপাশি দাঁড়িয়ে থাকা তিনটি তালগাছ আর একটি ঘাট বাঁধানো পুকুর। মূল বাড়ি এখন জঙ্গল আর ময়লারস্তূপে ঠাসা।

১৯৭৪-৭৫ সালে গোপালনগর মৌজায় মজুমদার এস্টেটের ৩৩ একর জমি সরকার অধিগ্রহণ করে হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করে। বর্তমানে সেখানে ৫০ শয্যার হাসপাতালের কার্যক্রম চলছে।

গোপালনগরের প্রবীণ বাসিন্দা বাবলু লাহিড়ী জানান, ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আমন্ত্রণে বাংলাদেশ সফরে এসে শেষবারের মতো পৈতৃক ভিটায় আসেন গৌরী প্রসন্ন মজুমদার। ভারতে চলে যাবার সময় গোপালনগরে তাদের বিশাল উঠানসহ তিনতলা বাড়ি ছিল। আশির দশকে কিছু কিছু স্মৃতিচিহ্ন থাকলেও এখন তার কিছুই অবশিষ্ট নেই।

তিনি আরও জানান, স্মৃতি ধরে রাখার উদ্যোগ না থাকায় নতুন প্রজন্মের অনেকেই জানে না বিখ্যাত এই মানুষটির জন্ম গোপালনগরে।

গৌরী প্রসন্ন মজুমদারের ভাতুষ্পুত্র চন্দন মজুমদার জানান, এমন বিখ্যাত ব্যক্তির পরিবারের সদস্য হিসেবে তিনি গর্বিত। কিন্তু দুঃখ, তাঁর কোনো স্মৃতিই ধরে রাখতে পারিনি।

ফরিদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা আহমদ আলী জানান, গৌরী প্রসন্ন মজুমদারের পৈত্রিক ভিটাতেই হাসপাতাল করা হয়েছে। এতে অনেক স্থাপনা ভেঙে ফেলতে হয়েছে।

স্থানীয়ভাবে লিখিত আবেদন পেলে কিংবদন্তি এই গীতিকবির স্মৃতি ধরে রাখার উদ্যোগ নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

আরজে/আইএম

 

সংগীত: আরও পড়ুন

আরও