আপনার জীবনের প্রত্যেকটি ক্ষেত্র অনুসরণ করে ফেসবুক

ঢাকা, রবিবার, ১৯ মে ২০১৯ | ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

আপনার জীবনের প্রত্যেকটি ক্ষেত্র অনুসরণ করে ফেসবুক

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:৫৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৯, ২০১৯

আপনার জীবনের প্রত্যেকটি ক্ষেত্র অনুসরণ করে ফেসবুক

ফেসবুক তাদের প্ল্যাটফর্মে বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের বিষয়ে আরও স্বচ্ছ প্রক্রিয়া অনুসরণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। কিন্তু বেশির ভাগ ব্যবহারকারীই এখনও ভালো করে জানেন না এসব বিজ্ঞাপনের জন্য তাদের কাছ থেকে কি ধরনের তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।

বুধবার একটি প্রতিবেদনে ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা সংস্থা পিউ রিসার্চ সেন্টার জানায়, বেশিরভাগ ব্যবহারকারী জানেন না ফেসবুক তাদের জীবনের প্রতিটি দিকের পুঙ্খানুপুঙ্খ তথ্য সংগ্রহ করছে।

গবেষণার সময় পিউ রিসার্চকে ৭৪ শতাংশ ফেসবুক ইউজার বলেন, ফেসবুক যে তাদের আগ্রহের বিষয়গুলোর তালিকা তৈরি করছে সেটি তারা জানতেন না। তাদের আগ্রহের বিষয়গুলো যে বিজ্ঞাপন দাতাদের জানিয়ে দিচ্ছে ফেসবুক সে বিষয়েও অবগত নন ইউজাররা।

ফেসবুকের প্রতিটি ইউজার প্রোফাইলে 'অ্যাড প্রেফারেন্সেস' পেইজে ইউজারদের এসব আগ্রহের বিষয় একত্রিত করা থাকে। সংস্কৃতি অঙ্গনের কোন কোন জিনিস ও ব্যক্তিত্বদের আপনি পছন্দ করেন, কি কি ধরনের পণ্য পছন্দ করেন, কোন ধরনের সংস্কৃতি এবং রাজনৈতিক মতবাদ আপনার পছন্দ এসব বিষয় মনে করে রাখে ফেসবুক। এরপর বিজ্ঞাপনদাতারা এসব তথ্য অনুযায়ী আপনাকে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে।

৫১ শতাংশেরও বেশি ইউজার জানান, তারা ফেসবুকের এই তালিকার বিষয়ে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না।
প্রতি পাঁচজনে এক জন ইউজার (২১ শতাংশ) জানায় তাদেরকে 'মাল্টিকালচারাল অ্যাফিনিটি' অর্থাৎ বিভিন্ন সংস্কৃতির সঙ্গে একাত্মতা বোধ করেন। এসব বিচিত্র সংস্কৃতির অনুসারীদের মধ্যে ৪৩ শতাংশকে ফেসবুক আফ্রিকান-আমেরিকান সংস্কৃতি ৪৩ শতাংশকে হিস্পানিক সংস্কৃতি, এবং ১০ শতাংশকে এশিয়ান-আমেরিকান সংস্কৃতির অনুসারী বলে চিহ্নিত করেছে।

'কে কোন সংস্কৃতির প্রতি অনুরক্ত তা চিহ্নিত করতে ফেসবুক এগুলোর বাইরে আর কোনও ক্যাটাগরি ব্যবহার করে না,' প্রতিবেদনে জানায় পিউ রিসার্চ।

ফেসবুকের জরিপে ৫১ শতাংশ ইউজারকে রাজনৈতিক ভাবেও চিহ্নিত করা হয়েছে। যাদের এরকম রাজনৈতিক শ্রেণীবিভাগ করা হয়েছে তাদের মধ্যে ৭৩ শতাংশ পিউ রিসার্চকে জানিয়েছে ফেসবুক তাদের রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি 'একদম সঠিকভাবে চিহ্নিত করেছে'।

২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে প্রভাবিত করার অভিযোগে সম্প্রতি তীব্র সমালোচনার সম্মুখীন হয় ফেসবুক। কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা নামের একটি প্রতিষ্ঠান ইউজারদের ব্যক্তিগত তথ্য ব্যবহার করে নির্বাচনকে প্রভাবিত করে। এরপর ফেসবুক প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তারা ইউজারদের ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ এবং সেগুলো তৃতীয় পক্ষকে সরবরাহ করতে আরও সাবধান থাকবে। বর্তমানে নিয়ম ভঙ্গ করে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকাকে ইউজারদের তথ্য দেয়ায় ফেসবুকের বিরুদ্ধে তদন্ত করছে মার্কিন কর্তৃপক্ষ।
কিন্তু এত কিছুর পরও ফেসবুক ঠিকই বিজ্ঞাপন দাতাদেরকে ইউজারদের পছন্দ অপছন্দের কথা বিরামহীন ভাবে জানিয়ে যাচ্ছে। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা কোন ধরনের বিজ্ঞাপন দেখতা চান সেটি নিয়ন্ত্রণ করার একটা টুল রয়েছে, কিন্তু সেটা সম্পর্কে ইউজারদেরকে অবহিত করতে বিশেষ কোনও উদ্যোগ নেয়নি ফেসবুক, বলেন অভিষেক নায়ার, কুপার্টিনো ক্যালিফোর্নিয়ার টেকনিক্যাল মার্কেটিং ম্যানেজার।

এমআর/এএসটি