হযরত ওমর (রা.) এর তাকওয়া

ঢাকা, ২৭ জানুয়ারি, ২০১৯ | 2 0 1

হযরত ওমর (রা.) এর তাকওয়া

পরিবর্তন ডেস্ক ৭:০৭ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২৭, ২০১৮

হযরত ওমর (রা.) এর তাকওয়া

আব্দুল্লাহ ইবন ওমর (রা.) হতে বর্ণিত তিনি তার পিতা ওমর (রা.) হতে বর্ণনা করে বলেন,

«كان فرض للمهاجرين الأولين أربعة آلاف في أربعة، وفرض لابن عمر  رضي الله عنه ثلاثة آلاف وخمسمائة، فقيل له: هو من المهاجرين فلم نقصته من أربعة آلاف؟ قال: إنما هاجر به أبواه. يقول: ليس هو كمن هاجر بنفسه »

ওমর (রা.) প্রথম যুগের মুহাজিরদের জন্য চার হাজার করে হিস্সা নির্ধারণ করেন। আর তিনি আব্দুল্লাহ ওমর (রা.) জন্য নির্ধারণ করেন তিন হাজার পাঁচশ। তখন তাকে বলা হল, তিনিতো প্রথম যুগে যারা হিজরত করছে তাদের মধ্যে একজন। সে হিসেবে সে আমাদের সমান পায়। আপনি তাকে চার হাজার থেকে পাঁচশ কমালেন কেন? উত্তরে ওমর (রা.) বললেন, সে তার মাতা পিতার সাথে হিজরত করেছে। সুতরাং, সে তাদের মত হবে না, যারা নিজের থেকে হিজরত করছিল। (বুখারি: ৩৯১২) 

কারণ, আব্দুল্লাহ ওমর (রা.) ছোট ছিলেন, তাই তাকে তার মাতা-পিতা উভয়ে হিজরত করান। এ কারণে তাকে যারা ইসলামের প্রথম যুগে হিজরত করেছেন তাদের অন্তর্ভুক্ত করেননি।

সালাবাহ ইবনে আবি মালেক (রা.) বলেন,

إن عمر بن الخطاب رضي الله عنه قسم مروطا بين نساء من نساء المدينة، فبقي مرط جيد، فقال له بعض من عنده: يا أمير المؤمنين، أعط هذا ابنة رسول الله التي عندك. يريدون أم كلثوم بنت علي رضي الله عنه  -لأنها حفيدة النبي فقال عمر رضي الله عنه: أم سليط أحق. وأم سليط من نساء الأنصار ، قال عمر: رضي الله عنه فإنها كانت تزفر لنا القرب ، ممن بايع رسول الله يوم أحد. تزفر: تخيط.

ওমর ইবন খাত্তাব (রা.) মদিনার নারীদের মধ্যে কিছু কাপড় বিতরণ করেন। বিতরণের পর একটি ভালো কাপড় অবশিষ্ট থেকে গেলে তার নিকট উপস্থিত কেউ বলল, হে আমীরুল মুমিনিন! এ কাপড়টি রাসূল (সা.) এর নাতনী উম্মে কুলসুম বিনতে আলী (রা.) কে দিয়ে দিন। কারণ, তিনি রাসূল (সা.) এর নাতনী। এ কথা শুনে ওমর (রা.) বললেন, উম্মে সুলাইম তার চেয়েও অধিক হকদার। উম্মে সুলাইম হল আনসারি নারী, যারা রাসূল (সা.) এর হাতে বাইয়াত গ্রহণ করেন। ওমর (রা.) আরও বলেন, উম্মে সুলাইম ওহুদের যুদ্ধে আমাদের জন্য পানির মশক সিলাই করতো। (বুখারি: ২৮৮১) 

ওমর (রা.) কাপড়টি তার স্ত্রীকে দান করতে অস্বীকার করেন। অথচ সে ছিল রাসূল (সা.) এর নাতনী। কারণ, তার স্থান উম্মে কুলসুমের নীচে।

সুবহানাল্লাহ! তারাই তো আমাদের পূর্বসূরি। আমরা যেন তাদের কাজগুলো আমাদের জীবনে শিক্ষা হিসেবে নেই। আল্লাহ তাওফিক দান করুন। আমীন।

এমএফ/

আরও পড়ুন...
খলিফা হযরত উমর (রা.) ও ইসলামি খিলাফত
হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর-পুত্র সালেম (রহ.) এর তাওয়াককুল

 

নবী ও সাহাবা-চরিত: আরও পড়ুন

আরও