নবীজির (সা.) সাহসিকতা

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮ | ২৯ কার্তিক ১৪২৫

নবীজির (সা.) সাহসিকতা

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:২৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৭, ২০১৮

নবীজির (সা.) সাহসিকতা

সাহসিকতা, নির্ভীকতা, যথা-সময়ে উদ্যোগ গ্রহণ রাসূলুল্লাহর (সা.) বিশেষ গুণ ছিল। তাঁর সাহসিকতা বড় বড় বীরদের কাছে অবিসংবাদিতভাবে স্বীকৃত। আলি ইবনে আবু তালিব (রা.) বলতেন,

كنا إذا حمى البأس، واحمرت الحدق ما تحت الأجفان من شدة الغضب نتقي برسول الله

‘যুদ্ধ যখন প্রচণ্ড রুপ নিত, প্রবলভাবে ক্রোধান্বিত হওয়ার ফলে চোখ রক্তিম বর্ণ ধারণ করত তখন আমরা (তীর-তরবারির আঘাত থেকে বাঁচার জন্য) রাসূলুল্লাহকে (সা.) রক্ষাকবচ হিসেবে গ্রহণ করতাম।’ 

ইমরান ইবনে হাছিন (র.) বলেন,

ما لقي رسول الله صلى الله عليه وسلم كتيبة ، إلا كان أول من يضرب

‘রাসূলুল্লাহ (সা.) কোনো বাহিনীর মুখোমুখি হলে প্রথম আঘাতকারী হতেন।’ 

রাসূলুল্লাহর (সা.) সাহসিকতার একটি নমুনা নিচে উল্লেখ করা হলো—

এক রাতে মদিনার এক প্রান্তে কারও চিৎকারের আওয়াজ শোনা গেল। কিছু মানুষ আওয়াজের দিকে অগ্রসর হলো, কিন্তু দেখা গেল রাসূলুল্লাহ (সা.) একাই আওয়াজের উৎসস্থলে তাদের আগে গিয়ে পৌঁছলেন। তিনি যখন অবস্থা দেখে ফিরছিলেন, তখন তাদের সাথে তাঁর সাক্ষাৎ হলো। 

তিনি ছিলেন আবু তালহার অস্ত্রসজ্জিত ঘোড়ার উপরে। তরবারি ছিল তাঁর কাধে। আবু তালহা বলতে লাগলেন,

كان النبي صلى الله عليه وسلم أحسن الناس ، وأجود الناس، وأشجع الناس، رواه البخارى

‘রাসূলুল্লাহ (সা.) ছিলেন সর্বাপেক্ষা সুন্দর, সর্বাপেক্ষা দানশীল, সর্বাপেক্ষা সাহসী।’ (বুখারী: ২৬০৮) 

এমএফ/আইএম

আরও পড়ুন...
আল্লাহর প্রতি মহানবী (সা.) এর অতুলনীয় সবর
নবী-জীবনে সত্যবাদিতা : কাফেরদের সাক্ষ্য ও আমাদের শিক্ষা
তায়েফে রক্তাক্ত প্রিয় নবী : ঘটনা ও শিক্ষা