হাদিসের গল্প : নবীজির ক্ষমা প্রদর্শন

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

হাদিসের গল্প : নবীজির ক্ষমা প্রদর্শন

পরিবর্তন ডেস্ক ৮:৫১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৯, ২০১৮

হাদিসের গল্প : নবীজির ক্ষমা প্রদর্শন

প্রতিশোধ নেয়ার সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও সীমা-লঙ্ঘন কারীকে মার্জনা করা একটি উদার ও মহৎ গুণ। রাসূলুল্লাহ (সা.) এ-গুণে সর্বাপেক্ষা গুণান্বিত ছিলেন। আল্লাহ তাআলা বলেন:

خُذِ الْعَفْوَ وَأْمُرْ بِالْعُرْفِ وَأَعْرِضْ عَنِ الْجَاهِلِينَ

“তুমি ক্ষমাকে অবলম্বন করো, সৎকর্মের আদেশ দাও এবং অজ্ঞদেরকে এড়িয়ে চলো।” (সুরা আ’রাফ: ১১৯)

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কর্তৃক ক্ষমা প্রদর্শনের অনেক ঘটনাবলির বিবরণ বিশুদ্ধ সূত্রে বর্ণিত আছে, নীচে দু’টি উল্লেখ করা হল। তিনি যখন মক্কা বিজয় করলেন, কুরাইশের বিশেষ বিশেষ ব্যক্তিবর্গকে তাঁর চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় নতশীরে উপবিষ্ট পেলেন। তিনি তাদেরকে বললেন:

يا معشر قريش: ما تظنون أني فاعل بكم ؟ قالوا أخ كريم، ابن أخ كريم، قال: فاذهبوا فأنتم الطلقاء،

হে কুরাইশগণ! তোমাদের সাথে এখন আমার আচরণের ধরন সম্পর্কে তোমাদের ধারণা কি ? তারা বলল : আপনি উদার মনস্ক ভাই ও উদার মনস্ক ভাইয়ের ছেলে। রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন: ‘যাও, তোমরা মুক্ত।’ তিনি তাঁর ও সাহাবায়ে কেরামের বিরুদ্ধে করা সমস্ত অপরাধ ক্ষমা করে দিলেন।

রাসূলুল্লাহ (সা.) কে হত্যার উদ্দেশ্যে এক লোক আসল, কিন্তু তা ফাঁস হয়ে গেল। সাহাবিগণ বললেন : হে আল্লাহর রাসূল! এই লোক আপনাকে হত্যা করার মনস্থ করেছে, এ-কথা শুনে লোকটি ভীত হয়ে অস্থির হয়ে পড়ল। রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন,

لن تراع، لن تراع، ولو أردت ذلك  أي قتلي لم تسلط علي.

ভয় করো না, ভয় করো না, যদিও তুমি আমাকে হত্যা করার ইচ্ছা করেছ কিন্তু তুমি আমাকে হত্যা করতে পারবে না।

কেননা আল্লাহ তাআলা তাঁকে অবহিত করেছেন যে, তিনি তাঁকে মানুষের কাছ থেকে রক্ষা করবেন। রাসূলুল্লাহ (সা.) তাকে ক্ষমা করে দিলেন অথচ সে তাঁকে হত্যা করার মনস্থ করেছিল!

এমএফ/

আরও পড়ুন...
নবী-জীবনে সত্যবাদিতা : কাফেরদের সাক্ষ্য ও আমাদের শিক্ষা

 

নবী ও সাহাবা-চরিত: আরও পড়ুন

আরও