বাঁধ ভাঙা উল্লাস পরীক্ষার্থীদের (ভিডিও)

ঢাকা, রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৮ আশ্বিন ১৪২৫

বাঁধ ভাঙা উল্লাস পরীক্ষার্থীদের (ভিডিও)

পরিবর্তন প্রতিবেদক ২:৪৮ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৭

কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পেয়ে বাঁধ ভাঙা উল্লাসে উচ্ছ্বসিত পরীক্ষার্থীরা। মাঠের মাঝখানে কেউ দেখাচ্ছে ‘ভি’চিহ্ন, আবার আরেক দল বিভিন্ন রকম বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে বিজয়ের উল্লাস প্রকাশ করছে। প্রত্যাশা পূরণ হওয়ায় বইছে আনন্দের ঢেউ।শনিবার দুপুরে রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজে গিয়ে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী (পিইসি), জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) এবং জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের এই উল্লাস লক্ষ করা যায়। শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি উল্লাস প্রকাশ করেন শিক্ষক ও অভিভাবকরাও।

এর আগে শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ফলাফল হস্তান্তর করেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। ফলাফল হস্তান্তরের পর থেকেই শিক্ষার্থীরা স্কুল প্রাঙ্গণে জড়ো হতে থাকে। এর পর দুপুর ২টার দিকে স্কুলের নোটিস বোর্ডে ফলাফল টানানোর পর আনন্দে মেতে ওঠে ভিকারুননিসা স্কুলের প্রাঙ্গণ। 

এ সময় স্কুলের মাঠে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন প্রকারের বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে নেচে গেয়ে আনন্দ করে তাদের কাঙ্ক্ষিত ফলাফল উদযাপন করছে। তাদের এই বাঁধ ভাঙা উচ্ছ্বাসে এ সময় তাদের সঙ্গী ছিল শিক্ষক ও অভিভাবকরা। সবাই ‘ভি’চিহ্ন দেখিয়ে ও স্কুল মাঠে দল বেঁধে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে।

এমন উচ্ছ্বাসের কারণ হিসেবে শিক্ষার্থীরা বলছে, পরীক্ষার আগে অনেক কষ্ট করেছি। এখন কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পেয়ে অনেক ভালো লাগছে। এই ভালো ফলাফল অর্জন করতে আমাদের সব থেকে বেশি সহায়তা করেছে মা-বাবা এবং শিক্ষকরা। এই ফলাফলে আমরা যেমন খুশি তেমনি আমাদের মা-বাবা ও শিক্ষকরাও অনেক খুশি। তাই আজকের দিনটি সবার সঙ্গে আনন্দ করে কাটাব আমরা।

নাদিয়া আফরোজ পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, জিপিএ-৫ পেয়েছি। খুব ভালো লাগছে। আরো বেশি ভালো লাগছে মা-বাবার স্বপ্ন পূরণ করতে পেরেছি।

আরেক পরীক্ষার্থী বলে, অনেক আনন্দ লাগছে। বাবা-মা ও শিক্ষকের অবদান অনেক বেশি। তাদের কারণেই আজ আমি ভালো ফলাফল করতে পেরেছি।

জিপিএ-৫ পাওয়া মানহার মা পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, খুব চিন্তায় ছিলাম। এখন ভালো লাগছে। মেয়ে ভালো রেজাল্ট করায় কতটা আনন্দিত আমি তা বলে বোঝাতে পারব না।

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস বলেন, অন্যান্য বছরের মতোই আমাদের স্কুলের ফলাফল ভালো হয়েছে। শতভাগ শিক্ষার্থী পাস করেছে। ৯৯ শতাংশ জিপিএ-৫ পেয়েছে। ফলাফলে আমরা খুশি। এটা সম্ভব হয়েছে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সহযোগিতায়। তাই সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন।

এএম/আরপি