পূজায় জলখাবারের আয়োজন

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

পূজায় জলখাবারের আয়োজন

পরিবর্তন ডেস্ক ২:১৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯

পূজায় জলখাবারের আয়োজন

গরম গরম ফুলকো লুচি, আলুর দম, ছোলার ডাল এবং  সাথে মিষ্টান্ন। পূজার জলখাবারে আর কি চাই? আগের রাতে একটু গুছিয়ে রাখলে সকালে তৈরি করতে পারবেন গরম গরম লুচি আর আলুর দম। চাইলে আলুর দম রাতে করে রাখতে পারেন। তো চলুন দেখে নেওয়া যাক ফুলকো লুচি, আলুর দম ও ছোলার ডাল তৈরির প্রণালী। সাথে মিষ্টান্ন থাকলো নারিকেলের নাড়ু ও কমলার ক্ষীর।

আলুর দমের জন্য :

আলুর দম সব চাইতে মজাদার হয় নতুন আলু দিয়ে কিংবা বগুড়ার আলু দিয়ে তৈরি করলে। বানাতে এমন কোনো বাড়তি সময় লাগে না, এবং পরিবেশন করা যায় ভাত- রুটি- পরোটার সঙ্গেও।

উপকরণ:

আলু ডুমো করে কাটা- ২ কাপ

আদা বাটা- ১ চা চামচ

রসুন বাটা- ১ চা চামচ

পিঁয়াজ বেরেস্তা- ১/৪ কাপ

হলুদ গুঁড়া- ১/৪ চা চামচ

মরিচ গুঁড়া- ১/২ চা চামচ

ধনিয়া গুঁড়া- ১/২ চা চামচ

জিরা ভাজা গুঁড়া- ১/২ চা চামচ

কাঁচা মরিচ ফালি- ইচ্ছামত

পাঁচ ফোড়ন- ১ চা চামচ

তেল- ২ টেবিল চামচ

ঘি- ১ টেবিল চামচ

ধনেপাতা- ইচ্ছা মতো

লবণ- স্বাদ মতো

প্রণালি: আলু আধা সিদ্ধ করে নিন এক চিমটি হলুদ দিয়ে। পানি ঝরিয়ে নিন। কড়াইতে তেল দিয়ে আদা ও রসুন বাটা দিয়ে একটু ভাজুন। হলুদ, মরিচ, ধনিয়া ও লবণ দিন। অল্প পানি দিয়ে ভালো করে কসান। আলু দিয়ে দিন, অল্প একটু পানি দিন। ফুটে উঠলে পিঁয়াজ বেরেস্তা ও জিরা গুঁড়া দিয়ে দিন। ঢাকনা দিয়ে রান্না করুন। পানি টেনে আসলে ভালো করে নেড়ে আলুগুলো একটু ভাঙ্গা ভাঙ্গা করে দিন।

এবার আরেকটা প্যানে ঘি গরম করুন, তাতে পাঁচ ফোড়ন দিয়ে দিন। এবং পুরো মিশ্রণটা আলুর মাঝে ঢেলে দিয়ে বাগাড় দিন। খেয়াল রাখবেন পাঁচ ফোড়ন যেন পুড়ে না যায়, তাতে পুরো খাবারে তিতে ভাব চলে আসবে।

ফুলকো লুচি ফুলবে যেভাবে :

অনেকেই মনে করেন লুচির ময়দায় বেশি করে তেল বা ঘি এর খামির দিলে লুচি ফুলবে ভালো। অনেকেই ভাবেন খামিরকে বুঝি আধ ঘণ্টা ভেজা কাপড়ে ঢেকে রাখলে লুচি ফুলকো হবে। সত্যি বলতে কি, করতে হবে না এসব কিছুই। আপনার চট করে বানানো লুচিই হবে ফুলকো আর নরম। কেবল অনুসরণ করুন নিচের এই পদ্ধতি।

উপকরণ :

ময়দা ২ কাপ,

তরল ঘি ১ টেবিল চামচ,

লবণ স্বাদ মতো,

বেকিং পাউডার ১/২ চা চামচ,

পানি প্রয়োজন মতো,

তেল ভাজার জন্য।

প্রণালি : ময়দার সঙ্গে ঘি ও লবণ দিয়ে ময়ান দিন। প্রয়োজনমত পানি দিয়ে বেশ নরম খামির করুন। খামির বেশ ভালো করে হাত দিয়ে ডলে ডলে মাখান। রেখে দেয়ার প্রয়োজন নেই মোটেও। তেল গরম হতে দিন, এবং সেই ফাঁকেই ছোট ছোট লুচি বেলে গরম তেলে লাল করে ভেজে নিন। মনে রাখবেন, লুচি যেন খুব পাতলা না হয়। আবার একেবারে মোটাও না হয়।

নারকেল দিয়ে ছোলার ডাল

উপকরণ :

ছোলার ডাল ১ কাপ,

নারকেল কুচি আধা কাপ,

ঘি, তেল, লবণ, জিরা, আদা বাটা, চিনি পরিমাণ মতো।

তেজপাতা ও শুকনা মরিচ ৪টা করে।

প্রণালি : লবণ দিয়ে ছোলার ডাল সেদ্ধ করে নিন। ঘি মেশানো তেলে তেজপাতা, শুকনো মরিচ ও এলাচি-দারুচিনি ফোড়ন দিতে হবে। এতে নারকেল কুচি একটু ভেজে নিয়ে তাতে আদা বাটা, আস্ত জিরা ও কিশমিশ দিতে হবে। এবার সেদ্ধ ডাল ঢেলে দিয়ে নেড়েচেড়ে পরিমাণমতো লবণ-চিনি দিতে হবে। নামানোর আগে একটু ঘি ও বাটা গরম মসলা মেশাতে হবে।

এবার আর কি, পরিবেশন করুন গরম গরম লুচি ছোলার ডাল আর আলুর দম। চাইলে সঙ্গে পরিবেশন করতে পারেন ডিম ভাজা, গরম রসগোল্লা, পায়েস কিংবা স্রেফ লেবু আর সবুজ সালাদ!

নারকেলের গুড়ের নাড়ু

উপকরণ:

নারকেল ২টি,

গুড় ৩০০ গ্রাম,

প্রণালি: গুড় ও নারকেল কড়াইয়ে দিয়ে নাড়তে হবে। নাড়তে নাড়তে একসময় মিশ্রণটি মাখা মাখা হয়ে এলে একপর্যায়ে মিশ্রণটির নারকেল থেকে যখন তেল বের হবে, তখন বুঝতে হবে সেটি নাড়ু বানানোর জন্য উপযুক্ত। এরপর মিশ্রণটি বেটে গোলাকৃতি বানিয়ে পরিবেশন করতে হবে। বাটার ব্যবস্থা না থাকলে হাতে গোলা বানিয়েও তৈরি করা যায় গুড়ের নাড়ু।

কমলার ক্ষীর

উপকরণ :

বড় কমলালেবু ৩টি

১ লিটার দুধ

চিনি পরিমাণ মতো

কাজু, পেস্তা, কাঠবাদাম, কিসমিস ইচ্ছামত

অরেঞ্জ ফ্লেভার ও কালার চাইলে দিতে পারেন (ঐচ্ছিক)

প্রণালি :

দুধ ও চিনি একসাথে জ্বাল দিয়ে ঘন করে নিন। এমনভাবে জ্বাল দেবেন যেন পুড়ে বা লেগে না যায়। যেন ক্রিমের মত সুন্দর ও স্মুথ হয়।

নামিয়ে ঠাণ্ডা করুন ফ্যানের বাতাসে। অরেঞ্জ ফ্লেভার মিশিয়ে দিন। কালার দিতে চাইলে চুলায় থাকা অবস্থাতেই দিয়ে দিন।

কমলালেবু ছিলে শুধু ভিতরের অংশগুলো সাবধানে বের করে নিন। দুধে মিশিয়ে দিন।

সাজাতে চাইলে উপরে কিশমিশ, আর বাদাম কুচি উপর দিতে পারেন।

৩০ মিনিট ফ্রিজে রাখুন তারপর পরিবেশন করুন।

ইসি/

 

রেসিপি ও রেস্তোরা: আরও পড়ুন

আরও