ঈদ স্পেশাল লাচ্ছা সেমাইয়ের ১০ পদ

ঢাকা, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

ঈদ স্পেশাল লাচ্ছা সেমাইয়ের ১০ পদ

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:৩৫ অপরাহ্ণ, মে ৩১, ২০১৯

ঈদ স্পেশাল লাচ্ছা সেমাইয়ের ১০ পদ

ঈদ মানেই ভিন্নধর্মী আয়োজন আর দারুণ সব রেসিপি। আর ঈদ সেমাই ছাড়া তো ভাবাই যায় না। অনেকে আবার ঈদে দুধ সেমাই, সেমাইয়ের জর্দা, লাচ্ছা সেমাই, এমনকি ঝাল সেমাইও রান্না করে থাকেন। আজ আমরা আপনাকে জানাবো শুধু লাচ্ছা সেমাই রান্নার ১০ পদের ভিন্ন ভিন্ন স্বাদের সেমাইয়ের রেসিপি। আসুন আপনার এই ঈদের সেমাই রান্নায় নিয়ে আসুন ভিন্নতা।

১. রেশমি সেমাই

উপকরণ:

লাচ্ছা সেমাই ২ কাপ,

চিনি ২ কাপ,

জর্দার রং সামান্য,

ঘি আধা কাপ,

এলাচ ও দারচিনি চারটি করে,

গুঁড়া দুধ আধা কাপ,

আনারস আধা কাপ,

কিসমিস, পেস্তাবাদাম ও কাঠবাদাম ১ কাপ,

লবণ এক চিমটি।

প্রণালি:

কিসমিস, কাঠবাদাম ও পেস্তা বাদাম অল্প ঘি দিয়ে ভেজে নিতে হবে। সেমাই বাদামি করে ভেজে ঠান্ডা করতে হবে। গরম পানিতে দিয়ে ভাপে ছেঁকে নিতে হবে। আনারস কুরিয়ে রস ছেঁকে ছোবাটা আধা কাপ মেপে নিতে হবে। এখন ভাপা সেমাই, চিনি, আনারসের ছোবা, এলাচ, দারচিনি গুঁড়া, লবণ ও জর্দার রং সামান্য গুলে দিতে হবে। তারপর একসঙ্গে মাখতে হবে। এবার পাত্রটি একটি তাওয়ায় অল্প জ্বালে দমে বসাতে হবে। আঘা ঘণ্টা পর পাত্রের ঢাকনা খুলে নেড়ে দিতে হবে।

দ্বিতীয় ধাপের উপকরণঃ

জাফরান অল্প,

ডিম ২টা,

গুঁড়া দুধ আধা কাপ,

ডিমের জন্য চিনি সিকি কাপ,

পানি ১ কাপ (ডিমের জন্য),

ঘি সিকি কাপ (ডিমের জন্য)।

প্রণালি:

পরের সব উপকরণ একসঙ্গে ব্লেন্ড করে ঘি দিয়ে চুলায় দিতে হবে। ঘন ঘন নাড়তে হবে। একসময় এটি ছানার মতো হয়ে ঝরঝরে হবে; তখন আগে দমে দেওয়া সেমাইয়ের সঙ্গে ভালোভাবে মেশাতে হবে। বাকি ঘি ও বাদাম ভাজাগুলো মেশাতে হবে। পাঁচ মিনিট অল্প জ্বালে ঢেকে দমে রেখে বাটিতে সাজিয়ে পরিবেশন করুন।

২. নওয়াবি সেমাই-এর রেসিপি!

উপকরণ:

ঘি ২ টেবিল চামচ

লাচ্ছা সেমাই ২ প্যাকেট (প্রতি প্যাকেট ১৮০ গ্রাম করে)

চিনি ১ কাপ

গুঁড়া দুধ ৩ টেবিল চামচ

কাজু ও পেস্তা বাদাম ক্রাশ করা ১ টেবিল চামচ

ক্রিম তৈরির জন্য-

দুধ ১ লিটার

কন্ডেন্সড মিল্ক ১ কাপ

গুঁড়া দুধ ১/২ কাপ

ডানো অথবা নেসলে ক্রিম ১/২ কাপ

কর্নফ্লাওয়ার ৪ টেবিল চামচ

প্রণালি:

একটি ফ্রাই প্যানে ঘি দিন। ঘি একটু গরম হয়ে এলে লাচ্ছা সেমাইটি নেড়েচেড়ে হালকা করে ভেঁজে নিন। কিছুটা ভাঁজা হয়ে গেলে চিনি দিয়ে দিন এবং ভালোভাবে মিশিয়ে নিন।

নওয়াবি সেমাই প্রস্তুত প্রণালী ধাপ ১ লাচ্ছা সেমাই চিনি দিয়ে ভেঁজে নিন। চিনি ভালো করে মিশে যাওয়ার পর গুঁড়া দুধ দিয়ে ৬-৭ মিনিট নাড়াচাড়া করে রান্না করতে হবে। সেমাইয়ের রঙটি হালকা বাদামি হয়ে এলে নামিয়ে রাখুন।

এরপর ক্রিম তৈরি করার পালা। ১ লিটার দুধকে জ্বালিয়ে ১/২ লিটার করে নিতে হবে। এখন চুলায় মিডিয়াম আঁচে এই দুধের মধ্যে দিয়ে দিন কন্ডেন্সড মিল্ক এবং গুঁড়া দুধ।

ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এরপর ক্রিম দিয়ে ভালোভাবে নাড়াচাড়া করে, কর্নফ্লাওয়ার দিয়ে হ্যান্ড বিটার দিয়ে ভালোভাবে নেড়ে স্মুথ করে ফেলুন। ১০ মিনিট পর্যন্ত রান্না করতে থাকুন যা একটি ঘন ক্রিমে পরিনত হবে।

এখন ভেঁজে রাখা সেমাইগুলো একটি সারভিং ডিসে ১/৪ ভাগ ছড়িয়ে তুলে নিন। এরপর পুরো সেমাইটির উপরে সব ক্রিমগুলো আলতোভাবে ঢেলে দিন। এখন ৪-৫ মিনিট অপেক্ষা করুন।

ঠাণ্ডা হয়ে আসলে বাকি সেমাইটুকু হাত দিয়ে উপরে ভালোভাবে ছড়িয়ে দিন। এখন এর উপরে কাজু ও পেস্তা বাদাম সুন্দর করে ছড়িয়ে দিন।তৈরি হয়ে গেল মজাদার নওয়াবি সেমাই। উপভোগ করুন সবাই মিলে।

৩. গাজর দিয়ে লাচ্ছা সেমাই

উপকরণ:

তরল দুধ ১ লিটার।

লাচ্ছা সেমাই আধা প্যাকেট।

গুঁড়াদুধ ২ টেবিল-চামচ।

চিনি স্বাদ মতো।

এলাচ দারুচিনি কয়েকটি।

কনডেন্সড মিল্ক আধা কাপ।

বাদামকুচি ১ টেবিল-চামচ।

গাজর ১টি, গ্রেটার দিয়ে গ্রেট করা।

ভ্যানিলা ফ্লেইভার আধা চা-চামচ।

প্রণালি:

১ লিটার দুধ জ্বাল দিয়ে আধা লিটার করুন। এলাচ ও দারুচিনি দিয়ে জ্বাল দিতে হবে। এবার দুধে চিনি মেশান। এবং খানিকটা দুধ তুলে নিয়ে সেই দুধের মাঝেই গুঁড়াদুধ গুলিয়ে নিন। গোলানো গুঁড়াদুধ আবার তরল-দুধের সঙ্গে মিশিয়ে দিন।

এবার কনডেন্সড মিল্ক মিশিয়ে গাজর দিন। ভালো করে মিশিয়ে ভ্যানিলা ফ্লেইভার দিয়ে গুলিয়ে নিন। তৈরি হয়ে গেলো লাচ্ছা সেমাইয়ের জন্য দুধ। এবার প্যানে ঘি গরম করুন। ঘিয়ের মাঝে লাচ্ছা সেমাই ও বাদাম দিয়ে খুব অল্প আঁচে ভাজুন। কেবল ঘিয়ের গন্ধটা সেমাইতে যাওয়া চাই। হালকা লাল হলেই নামিয়ে ফেলুন।

সেমাইটা বাটিতে সাজিয়ে নিন। এবার গরম দুধ সেমাইয়ের ওপরে ছড়িয়ে দিন। ঠাণ্ডা করে পরিবেশন করুন।

৪. সেমাইয়ের কাস্টার্ড পুডিং

উপকরণ:

সেমাই- ১ কাপ

মাখন- ১ টেবিল চামচ

তরল দুধ- আড়াই কাপ

চিনি- স্বাদ মতো

ভ্যানিলা কাস্টার্ড পাউডার- ২ টেবিল চামচ

লিকুইড হুইপিং ক্রিম- আধা কাপ

ভ্যানিলা এসেন্স- ১ চা চামচ

কাঠবাদাম/পেস্তা বাদাম- সাজানোর জন্য

প্রণালি:

প্যানে মাখন গরম করে সেমাই ভেজে নিন। সেমাই বাদামি রং হয়ে আসলে ২ কাপ দুধ দিয়ে দিন। কিছুক্ষণ জ্বাল করুন সেমাই ও দুধ। ৬ থেকে ৭ মিনিট পর চিনি দিয়ে দিন। ভ্যানিলা কাস্টার্ড পাউডার আধা কাপ দুধ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। মিশ্রণটি অল্প অল্প করে ঢালুন সেমাইয়ের পাত্রে। ঢালার সময় নাড়তে হবে অনবরত। সেমাই থকথকে হয়ে গেলে স্কয়ার আকৃতির পাত্রে ঢেলে নিন। উপরের অংশ চামচ দিয়ে ভালো করে মসৃণ করুন।  

একটি বাটি ডিপ ফ্রিজে রাখুন। ১০ মিনিট পর বাটি বের করে লিকুইড হুইপিং ক্রিম ও ভ্যানিলা এসেন্স একসঙ্গে ফেটিয়ে নিন ভালো করে। ২ চা চামচ চিনি দিয়ে আবার ফেটান। ক্রিম প্রস্তুত হয়ে গেলে ঠাণ্ডা সেমাইয়ের উপর এক লেয়ারে বিছিয়ে দিন ক্রিম। কাঠবাদাম ও পেস্তাবাদাম কুচি ছিটিয়ে ফ্রিজে রেখে দিন সেমাইয়ের কাস্টার্ড পুডিং। ঠাণ্ডা হলে পরিবেশন করুন

৫. ডিম সেমাই

উপকরণ:

লাচ্ছা বা লম্বা সেমাই,

দুধ ১ কেজি,

ডিম ১টি,

চিনি পরিমাণ মতো,

এলাচ ও দারচিনি প্রয়োজন মতো

পরিবেশনের জন্য কিসমিস, বাদাম ও চেরি।

প্রণালি:

প্রথমে একটি পাত্রে দুধ নিয়ে ভালো মতো গরম করুন। দুধ ফুটে উঠলে আগুনের আঁচ কমিয়ে হাড়িতে ভালো মতো ফাটানো ডিমটাকে আস্তে আস্তে ঢালুন এবং চামচ দিয়ে নাড়ুন। এবার হাড়ির দুধ খুব ভালোভাবে নেড়ে ডিম ভালো মতো মিশিয়ে দিন। ডিম মেশানোর পর চিনি, দারচিনি, এলাচ দিন দুধে। সবকিছু একটু গরম হওয়ার পর সেমাই দিতে হবে। লাচ্ছা সেমাই হলে সোজা দুধের হাড়িতে ঢেলে দিন। তারপর দুধটাকে একটু ফুটিয়ে নামিয়ে ফেলুন। আর লম্বা সেমাই হলে আগে একটি পাতিলে ঘি কিংবা সয়াবিন তেল ঢেলে একটু লাল লাল করে ভেজে নিন। এরপর ভাজা সেমাই গরম দুধের হাড়িতে ঢেলে একটু ফুটিয়ে হাড়ি নামিয়ে আনুন। ব্যস, হয়ে গেলো আপনার ডিম সেমাই। পরিবেশনের আগে একটু ঠাণ্ডা করে ছোটো বাটিতে নিয়ে নিন। সেমাইর ওপরে কিসমিস, বাদাম, চেরি ছিটিয়ে দিয়ে মেহমানকে পরিবেশন করুন।

৬. লাচ্ছা সেমাইয়ের কুনাফা

উপকরণ:

লাচ্ছা সেমাই ১ প্যাকেট

তরল দুধ আধা কেজি

কর্ণফ্লাওয়ার ২টেবিল চামচ

ঘি আধা টেবিল চামচ

রোজ এসেন্স কয়েক ফোটা

চিনি স্বাদ মতো

পেস্তা গুঁড়া অথবা কাঠবাদাম কুচি, চেরি কুচি

সিরার জন্য-চিনি আধা কাপ

পানি আধা কাপের কম

লেবুর রস আধা চা চামচ

সিরা বানিয়ে ঠাণ্ডা করে নিন।

প্রণালি:

দুধ জ্বাল দিয়ে ঘন করে ৩০০গ্রাম পরিমানে এনে কর্ণফ্লাওয়ার পানির সাথে মিশিয়ে দুধে দিনচিনি, রোজ এসেন্স দিন। ঘন না হওয়া পর্যন্ত নাড়ুন ঘন ঘন নাড়বেন নয়তো পুড়ে যাবে নিচে ক্ষিরসা হয়ে গেলে নামিয়ে ঠাণ্ডা করুন। একটা বেকিং ডিসে ঘি গরম করে সেমাই অর্ধেক বিছান। এর উপর ক্ষিরসা দিয়ে আবার সেমাই দিন। প্রিহিট ওভেনে ১৯০ ডিগ্রিতে বেক করুন ১৫মিঃ

উপরে সুন্দর কালার হলে নামিয়ে নিন। উপরে পেস্তা গুড়া, বাদাম কুচি দিয়ে কেটে চিনির সিরা দিয়ে পরিবেশন করুন। ইচ্ছা হলে চিনির সিরা ছাড়াও খেতে পারেন।

৭. লাচ্ছা সেমাইয়ের লাড্ডু:

উপকরণ :

লাচ্ছা সেমাই ২০০ গ্রামের ১ প্যাকেট

কেওড়ার জল ১ চা-চামচ

যেকোনো ধরনের বাদামকুচি আধা কাপ

কিশমিশ ৪ টেবিল-চামচ

শুকনা নারিকেলগুঁড়া ৩ টেবিল-চামচ

ঘি ২ টেবিল-চামচ

কনডেন্সড মিল্ক আধা কাপ

এলাচগুঁড়া আধা চা-চামচ

প্রণালি :

প্রথমে একটা কড়াইয়ে সেমাই আর ঘি দিয়ে অল্প আঁচে সোনালি এবং মচমচে করে ভাজতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে যেন সেমাই পুড়ে না যায়। সেমাই সোনালি করে ভাজা হলে এর মধ্যে বাদামকুচি, কিশমিশ, এলাচগুঁড়া, শুকনা নারিকেলগুঁড়া দিয়ে এক, দুই মিনিট ভাজতে হবে। তারপর ভাজা সেমাইয়ের মধ্যে কনডেন্সড মিল্ক এবং কেওড়ার জল দিয়ে নেড়ে ভালো করে মিশিয়ে দিন এবং চুলার আঁচ কিছুটা বাড়িয়ে দুতিন মিনিট ভাজুন। যখন কনডেন্সড মিল্ক কিছুটা শুকিয়ে সেমাইয়ের মিশ্রণ আঠালো হয়ে আসবে তখন নামিয়ে ফেলুন। কিছুক্ষণ ঠাণ্ডা করুন। একদম ঠাণ্ডা করা যাবে না। একটু গরম থাকতেই পছন্দ মতো আকারের লাড্ডু বানিয়ে ফেলতে হবে। লাড্ডু ঠাণ্ডা হলে পরিবেশন করুন।

মনে রাখবেন: সেমাইতে কনডেন্স মিল্ক দেওয়ার পর বেশিক্ষণ চুলায় রেখে রান্না করলে সেমাইটা নরম হয়ে যাবে। লাড্ডু বানানোর পর মচমচে ভাবটা আর থাকবে না।

৮. ঝুড়ঝুড়ে স্বাদে লাচ্ছা সেমাই।:

উপকরণ:

সেমাই – ২ কাপ

সাদা এলাচ – ২ টি

দারচিনি – ২ ফালি

তেজপাতা – ছোট ২ টি

ঘি – ৩ চা চামচ

চিনি – ৪ টে. চামচ

প্রণালি:

একটি ফ্রাইপ্যানে ২ চা চামচ ঘি দিন। ঘি গলে গেলে তেজপাতা, দারচিনি ও সাদা এলাচ দিয়ে নাড়তে থাকুন। এরপর ঝুড়নো লাচ্ছা গুলো দিয়ে মাঝারী আঁচে নেড়ে নেড়ে খুব ভাল করে ভাজতে থাকুন। লাল লাল করে ভাজা হলে চিনি দিয়ে আবার ভাজুন। এবার বাকী ১ চা চামচ ঘি দিয়ে আবারও নাড়ুন, মোচমোচা করে ভাজা হলে নামিয়ে পাত্রে ঢালুন। সুন্দর পাত্রে ঢেলে পরিবেশন করুন।

৯. অনন্য স্বাদের লাচ্ছা সেমাই:

উপকরণ :

তরল দুধ ২ লিটার

লাচ্ছা সেমাই ১ প্যাকেট

গুঁড়ো দুধ ৫ টেবিল চামচ

চিনি স্বাদ মতো

এলাচ দারুচিনি কয়েকটি

লবণ এক চিমটি (চাইলে নাও দিতে পারেন। কিন্তু লবনে আসবে নিখুঁত স্বাদ)

কিসমিস এক মুঠো বাদাম কুচি ইচ্ছা মতো

ঘি দুই টেবিল চামচ

দুধের সর বা মালাই- আধা কাপ (চাইলে বেশি দেয়া যায়)

প্রণালি:

দুই লিটার দুধকে জ্বাল দিয়ে সোয়া এক লিটার করে ফেলুন। এলাচ দারুচিনি দিয়ে জ্বাল দিন। উপরে ঘন সর জমবে, সেটাকে তুলে রাখুন আলাদা করে।

এবার দুধে চিনি মেশান। এবং খানিকটা দুধ তুলে নিয়ে সেই দুধের মাঝেই পাউডার মিল্ক গুলিয়ে নিন। গোলানো গুঁড়ো দুধ আবার আসল দুধের সাথে মিশিয়ে দিন। এক চিমটি লবণ দিন। ব্যাস, তৈরি আপনার সেমাইয়ের জন্য গুঁড়ো দুধ।

এবার প্যানে ঘি গরম করুন। ঘিয়ের মাঝে লাচ্ছা সেমাই দিয়ে দিন। সাথে বাদাম ও কিসমিসও দিয়ে দিন। খুব অল্প আঁচে ভাজবেন, কেবল ঘিয়ের ফ্লেভারটা সেমাইতে যাওয়া চাই। হালকা লাল হলেই নামিয়ে ফেলুন। নেড়েচেড়ে খুব ভালো করে ভাজবেন।

সেমাইটা বাটিতে সাজিয়ে নিন। এবার গরম দুধ সেমাইয়ের ওপরে ছড়িয়ে দিন। কিন্তু না, সবটুকু দুধ দেবেন না। ৪ ভাগের ৩ ভাগ দুধ দিন। এবং কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। দেখবেন সেমাই সমস্ত দুধ টেনে নিয়ে ড্রাই হয়ে গিয়েছে।

এবার তুলে রাখে দুধের সর ওপরে ছড়িয়ে দিন। এবং বাকি দুধটুকু দিন। একসাথে পুরো দুধ দিয়ে ফেললে সেমাই পুরোটাই টেনে নেবে।

ব্যাস, এবার চেখে দেখুন অনন্য স্বাদের এক লাচ্ছা সেমাই।

১০. দুধ সেমাই

উপকরণ:

সেমাই ২০০ গ্রাম (৪০০ গ্রামের প্যাকেট দিয়ে ছোট পরিবার দুই পদের সেমাই রান্না করা যায়),

চিনি হাফ কাপ (আপনার ইচ্ছা কেমন মিষ্টি করবেন, খেয়াল করে),

এলাচি ৩টা,

দারুচিনি ৩ টুকরা,

তেজপাতা ১টা,

এক লিটার দুধ।

প্রণালি :

এক লিটার দুধ ভালো করে গরম করে কমাতে থাকুন, তাতে হাফ কাপ চিনি দিয়ে দিন (চিনি আপনার ইচ্ছার উপর)। এলাচি, দারুচিনি এবং থাকলে একটা তেজপাতা দিন। প্যাকেট থেকে সেমাই হাফ করে (২০০ গ্রাম) নিন। তার আগে খালি একটা গরম কড়াইতে সেমাইগুলো ভেজে নিন (তেল ছাড়াই ভালো, অনেকে তেল বা সামান্য ঘি দেন। ইচ্ছে হলে আপনিও দিতে পারেন)। মচমচে হলে তা গরম দুধে ঢেলে দিন। হালকা গরম থাকতেই পরিবেশন করুন।

ইসি/

 

রেসিপি ও রেস্তোরা: আরও পড়ুন

আরও