শবে বরাতে শেষ সময়ের স্পেশাল, নেশেস্তার হালুয়া

ঢাকা, বুধবার, ২২ মে ২০১৯ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

শবে বরাতে শেষ সময়ের স্পেশাল, নেশেস্তার হালুয়া

পরিবর্তন ডেস্ক ২:৪১ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২১, ২০১৯

শবে বরাতে শেষ সময়ের স্পেশাল, নেশেস্তার হালুয়া

এখন সব ঘরে ঘরেই চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। ছোলার ডালের হালুয়া, সুজির বরফি আরও কতো কি নিশ্চয়ই তৈরি করা হয়ে গেছে? এর সাথে তৈরি করতে পারেন নেশেস্তার হালুয়াও। না, গতানুগতিক নেশেস্তার হালুয়া নয়, এটা হবে একেবারেই অন্য রকম। অনেকেই নেশেস্তার হালুয়া তৈরিকে বেশ ঝামেলার মনে করেন। তাই আজ আপনাদের জন্য দেয়া হল নেশেস্তার হালুয়া তৈরির খুব সহজ পদ্ধতি।

নেশেস্তা হল সুজির মাড়। সুজি অনেক্ষণ ভিজিয়ে রাখলে যেই মাড় পাওয়া যায় তাকে নেশেস্তা বলা হয় যা হালুয়া তৈরির কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। নেশেস্তার হালুয়া খেতে বেশ। এর রং সচ্ছ হয় তাই এর সাথে বিভিন্ন ফুড কালার বিশেষ করে অরেঞ্জ কালারটি ব্যবহার করা হয় যা সত্যিই ফুটে ওঠে। বরফি করে কেটে ও ওপরে বাদাম দিয়ে এটা পরিবেশন করা হয়।

উপকরণ :

সুজি -২ কাপ

পানি-৫ কাপ

চিনি-১/২ কাপ বা  স্বাদ অনুযায়ী

লবন -১/৪ চা চামচ

ঘি/ বাটার - ১ টেবিল চামচ

কেওড়া জল - ১/৪ চা চামচ (ইচ্ছা )

ফুড কালার-১/৪ চা চামচ (আপনার পছন্দ মতো)

এলাচের গুঁড়া - ১/৪ চা চামচ

দারচিনির গুঁড়া -১/৪ চা চামচ

পেস্তাবাদাম কুচি-১/৪ চা চামচ (সাজানোর জন্য)

কাঠ বাদাম (এলমন্ড) কুচি - ২-৩ টুকরা (সাজানোর জন্য)

প্রণালি:

সুজি পানিতে আনুমানিক ৩ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখুন।

পরিবেশনের পাত্রটিতে একটি ঘি মাখিয়ে একপাশে রাখুন।

তারপর একটি পাতলা কাপড় দিয়ে পানিটা ছেঁকে একটি পাত্রে নিন।(এই হালুয়ার জন্য আমাদের সুজির ছাঁকা পানিটা লাগবে। এই রেসিপিতে ছেঁকে ফেলা সুজিটা  লাগবে না।)

এখন পানিসহ পাত্রটি মাঝারি আঁচে চুলায় দিন এবং নাড়তে থাকুন।

একে একে বাদামকুচিগুলো ছাড়া বাকি সব উপকরণ দিন এবং ক্রমাগত নাড়তে থাকুন।

হালুয়ার মতো ঘন না হয়ে আসা পর্যন্ত নাড়তে থাকুন।(প্রায় ৪০-৪৫ মিনিট পর্যন্ত লাগতে পারে।)

যখন হালুয়া পাত্রের পাশ থেকে ভাঁজ হয়ে উঠে আসা শুরু করবে তখন চুলা থেকে নামিয়ে ঘি মাখানো পাত্রে ঢেলে নিন এবং সমানভাবে পাত্রে ছড়িয়ে দিন। এখন হালুয়ার উপরে বাদাম কুচিগুলো ছড়িয়ে দিয়ে ঠাণ্ডা হওয়ার জন্য রেখে দিন।

হালুয়া সম্পুর্ণ ঠাণ্ডা হয়ে গেলে আপনার পছন্দমতো আকারে কেটে পরিবেশন করুন।

ইসি/