ভাইফোঁটার থালায় ভিন্ন স্বাদের ৫ মিষ্টান্ন

ঢাকা, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

ভাইফোঁটার থালায় ভিন্ন স্বাদের ৫ মিষ্টান্ন

পরিবর্তন ডেস্ক ১:৪৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৪, ২০১৮

ভাইফোঁটার থালায় ভিন্ন স্বাদের ৫ মিষ্টান্ন

ভাইফোঁটার থালা মানেই পাঁচ রকম মিষ্টি, এরপর তো টুকটাক খাবার আছেই৷ তবে এর সঙ্গে যদি থাকে আপনারই হাতের তৈরি কোনও রেসিপি, তাহলে তো কথাই নেই৷ বিষয়টা যে রীতিমতো জমে যাবে তা বলাই বাহুল্য৷ আসুন এবার আমরা ভাইফোঁটার থালায় মিষ্টি রাখবো তবে সেটা সম্পুর্ণ ভিন্ন সাজে। ভিন দেশি আর ভিন্ন পাঁচ মিষ্টি স্বাদে ভাইফোঁটার থালা সাজুক। আসুন তাহলে জেনে নেই রেসিপিগুলো। 

১. চকোলেট সালামি

উপকরণ :

কুকিং চকোলেট ১৫০ গ্রাম,

প্লেন চকোলেট বিস্কুট ৩ প্যাকেট,

পেস্তাকুচি ২৫ গ্রাম,

আমন্ড ২০ গ্রাম,

কাজু ১৫ গ্রাম,

ভ্যানিলা এসেন্স কয়েক ফোঁটা,

মাখন ১ চামচ।

প্রণালি :

প্যানে পানি গরম করুন। একটা পাত্রে সব বিস্কুট গুঁড়ো করে রাখুন। বাদাম কুচিয়ে নিন। গরম পানির উপর একটা পাত্র ধরে তাতে মাখন ও চকোলেট দিন। চকোলেট গলে গেলে তাতে ভ্যানিলা এসেন্স, ৩/৪ বিস্কুটগুঁড়ো ও বাদাম মেশান। নামিয়ে ফ্রিজে রেখে দিন ৪-৫ মিনিট। একটা সিলভার ফয়েলে বাকি বিস্কুটগুঁড়ো ছড়িয়ে তার ওপর সেমি সলিড চকোলেটের মিশ্রণ রেখে সিলিন্ডারের মতো আকারে গড়ে সিলভার ফয়েলে রোল করে নিন। ফ্রিজে রাখুন। শক্ত হলে স্লাইস করে পরিবেশন করুন। যদি শক্ত হয়ে যাওয়ার জন্য কাটতে অসুবিধে হয় তাহলে মাখন কিছুক্ষণ বের করে রাখুন এবং স্লাইস করে আবার ফ্রিজে রেখে শক্ত করে নিন।

২. কালারফুল ব্রোকেন গ্লাস পুডিং

উপকরণ :

দুধ আধা লিটার

গুঁড়ো দুধ আধা কাপ

চিনি ১ কাপ

চায়না গ্রাস ১২ গ্রাম (বাজারে/ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে পাবেন)

যেকোনো তিন রংয়ের জেলো পাউডার

প্রাণালি:

তিন রংয়ের জেলো তিনটি বাটিতে প্যাকেটের গায়ের নিয়ম অনুযায়ী বানিয়ে ফ্রিজে রেখে দিন। না হলে ঠিক মতো জমবে না আর ভেঙে যাবে। (একটা পরামর্শ, প্যাকেটের গায়ে যে পরিমাণ পানি দেওয়ার কথা লেখা থাকে, চাইলে অর্ধেক পানি ব্যবহার করতে পারেন। তাহলে জেলো ভালো জমবে আর ঘন হবে।) চায়না গ্রাস ছোট টুকরা করে কেটে নিন। চুলায় দুধ দিন আর চায়না গ্রাসগুলো দিয়ে দিন। দুধ গরম হতে থাকলে মাঝে মাঝে নেড়ে দিন যেন পুড়ে না যায়। এবার গুঁড়ো দুধ এর মধ্যে দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে দিন। যতক্ষণ পর্যন্ত চায়না গ্রাসগুলো ভালো করে গলে না যাবে ততক্ষণ দুধ গরম করতে থাকুন। জ্বাল দিতে দিতে দুধ বেশ ঘন করুন। এখন এই দুধ থেকে এক চামচ পরিমাণ নিয়ে একটা প্লেটে ঢালুন আর কয়েক মিনিট অপেক্ষা করুন। যদি দেখেন এটা পুডিংয়ের মতো হয়েছে তাহলে চুলায় রাখা পুডিং মিশ্রণটি তৈরি। এবার চিনি দিয়ে আরও কয়েক মিনিট চুলায় রেখে নামিয়ে নিন। মিশ্রণটি নেড়ে ঠাণ্ডা করুন।

এবার ফ্রিজে রাখা রঙিন জেলিগুলো বের করে কিউব করে কাটুন। একটা যে কোনো আকারের বাটি নিন, কিউব করা জেলিগুলো অর্ধেকের কম পরিমাণ নিয়ে বাটিতে ছড়িয়ে দিন। এবার পুডিং মিশ্রণটি কিছু পরিমাণ ঢালুন। তারপর আবার জেলি দিন। এভাবে আরও দুটি লেয়ার তৈরি করুন।

এভাবেই হয়ে গেলো মাজাদার কালারফুল ব্রোকেন গ্লাস পুডিং। ফ্রিজে কমপক্ষে ৩০ মিনিটের জন্য রেখে দিন। যে কোন সময় বের করে সুন্দর করে কেটে পরিবেশন করুন।

৩. রাজেস্থানি বুন্দিয়া

উপকরণ

বেসনের মিশ্রণের জন্য :

বেসন ১ কাপ।

পানি দেড় কাপ।

লবণ ১/৪ চামচ।

বেকিং পাউডার ১/৪ চা-চামচ।

বেকিং সোডা ১/৪ চা-চামচ।

বিভিন্ন খাবার রঙ (ইচ্ছা)

সিরার জন্য:

পানি ২ কাপ।

চিনি ২ কাপ।

এলাচ ২,৩ টি।

ভাজার জন্য :

ডুবো তেলে ভাজার জন্য পরিমাণ মতো তেল। একটা চামচ যেটাতে অনেকগুলো ছোট ছোট ফুটা থাকে (বাজারে পাবেন)।

প্রণালি :

খাবার-রং বাদে বাকি সব উপকরণ মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। যেন খুব ঘন বা পাতলা না হয়। যদি দুতিন রকম রং ব্যবহার করতে চান তবে দুতিনটা বাটিতে মিশ্রণ ভাগ করে নিন। এক এক বাটিতে এক ফোঁটা করে এক এক রং মিশিয়ে দিন। হলুদ রংয়ের মিশ্রণটা বেশি পরিমাণ রাখবেন।

চুলায় আঁচে সব উপকরণ দিয়ে দিন। আঁচ মাঝারি রাখবেন। সিরা যেন বেশি ঘন আবার পাতলা না হয়। আঙুল দিয়ে একটু নিয়ে দেখুন আঠালো ভাব হয়েছে কিনা। সিরা নামিয়ে ফেলুন চুলা থাকে।

প্যানে তেল গরম করুন। একটু বড়সড় প্যান নিলে ভালো হবে। এখন ফুটোওয়ালা চামচ দিয়ে মিশ্রণ তুলে গরম তেলে ধরে আবার উঠিয়ে ফেলুন। হাতল ধরে চামচটা উঠান আবার তেলে দিন।

এভাবে মিশ্রণটা তেলে ছেড়ে দিন। খুব সাবধানে সবকিছু করবেন। একে গরম তেল, তার উপর চামচ বার বার উঠাতে হবে। বুন্দিয়াগুলো মচমচে না হওয়া পর্যন্ত ভাজতে থাকুন। বাকি মিশ্রণ দিয়ে এভাবেই ভেজে তুলুন।

সব বুন্দিয়া ভাজা হলে, এবার গরম সিরায় সবগুলো বুন্দিয়া ছেড়ে দিন।

আস্তে আস্তে নেড়ে মিশিয়ে দিন। বুন্দিয়াগুলো সিরার রসটা যখন শুষে নেবে দেখতে আরও সুন্দর আর বড় লাগবে। বুন্দিয়া সিরা থেকে উঠিয়ে পরিবেশন করুন।

৪. বুকো পানদান

উপকরণ:

সাবু দানা ২ কাপ

কনডেন্সড মিল্ক ১টা

ডানো ক্রিম ১টা

হাফ কেজি তরল দুধ (ঘন করে ১ কাপ করে নিতে হবে)

ডাব নারিকেল এর শাঁস (নারিকেল এর শাঁস খুব নরম বা খুব শক্ত হবে না ও চারকোনা করে কাটা)

জেলাটিন জমিয়ে ৪ কোনা করে কাটা।

আঙুর, আম, বা পছন্দের কোনো ফল (চারকোনা করে কাটা দিতে পারেন-ইচ্ছামত)

পছন্দ মতো ফুড কালার

প্রণালি:

সাবু দানা পানিতে সিদ্ধ করে নিন। খেয়াল রাখবেন যাতে গলে না যায়। এই সময় ফুড কালার মিশিয়ে নিন।

পানি ঝরিয়ে ১টা বাটিতে নিয়ে কনডেন্স মিল্ক, ক্রিম, ঘন দুধ, ফল, নারিকেলে শাঁস ও জেলাটিন সব একসাথে মিক্স করে নিন।

এবার গ্লাস বা বাটিতে করে সুন্দর করে সাজিয়ে ২ ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে ঠাণ্ডা করে পরিবেশন করুন মজাদার ফিলিপিনো খাবার বুকো পানদান।

৫. চকলেট ‘পট দা ক্রিম’

উপকরণঃ

চকলেট – ৬০ গ্রাম,

হেভি ক্রিম – ৯০ গ্রাম,

দুধ– ৫০ গ্রাম,

ডিমের কুসুম – ২ টি,

চিনি – ১৫ গ্রাম বা আপনি যেমনটা মিষ্টি পছন্দ করেন।

প্রণালি:

প্রথমে ওভেনে অথবা ফুটন্ত পানির উপরে বাটি রেখে যেকোনো উপায়ে চকলেট গলিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে নিন।

এরপর একটি প্যানে দুধ ও ক্রিম একসাথে মিশিয়ে ভালো করে জ্বাল দিয়ে নিন। এবং চকলেটের উপরে ঢেলে দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ফেলুন।

এবার আরেকটি বাটিতে ডিমের কুসুমের সাথে চিনি মিশিয়ে ফেলুন।

এরপর এই মিশ্রণে ধীরে ধীরে দুধ ও চকলেটের মিশ্রণ দিয়ে নেড়ে মেশাতে থাকুন ভালো করে। এরপর এই মিশ্রণটি ছেঁকে ছোটো ছোটো বাটি বা মোল্ডে ঢেলে দিন।

একটি বেকিং ট্রে অর্ধেকটা পানি পূর্ণ করুন এবং এতে মোল্ডগুলো রেখে ২৫০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডে বেক করে নিন ৩০ মিনিট।

যদি ওভেনে না করতে চান তাহলে একটি বড় সসপ্যান ধরণের পাত্র চুলায়। এর ঠিক মাঝে একটি পাতিল রাখার স্ট্যান্ড বসিয়ে দিন। এতে দিন ১/৪ অংশ পানি। একটি বাটি রেখে তার উপরে মিশ্রণপূর্ণ মোল্ড দিয়ে স্ট্যান্ডের উপর বসিয়ে ঢেকে দিন। সসপ্যান ধরণের পাত্রটিও ভালো করে ঢেকে উপরে ভারি কিছু দিয়ে চাপা দিন। এখন আগুন জ্বালিয়ে পানি জ্বাল করতে থাকুন। ২০-২৫ মিনিটেই হয়ে যাবে।

এরপর নামিয়ে ফ্রিজে রেখে ঠাণ্ডা করে পছন্দমতো সাজিয়ে পরিবেশন করুন সুস্বাদু ‘চকলেট পট দা ক্রিম’।

ইসি/