পঞ্চগড়ে ভারতীয় গরু না থাকায় খুশি খামারিরা

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

পঞ্চগড়ে ভারতীয় গরু না থাকায় খুশি খামারিরা

পঞ্চগড় প্রতিনিধি ১২:২৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১০, ২০১৯

পঞ্চগড়ে ভারতীয় গরু না থাকায় খুশি খামারিরা

পঞ্চগড়ের বিভিন্ন পশুর হাটে এবার ভারতীয় গরু না আসায় দেশি গরুর চাহিদা বেড়েছে। এসব গরুর দাম তুলনামূলকভাবে বেশি হওয়ার পরও বেচাকেনা জমে উঠেছে।

স্বাভাবিক বাজারদরের তুলনায় এবার বাজারে প্রতিটি গরু ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। দাম বেশি হওয়ায় বিক্রেতারা সন্তুষ্ট হলেও ক্রেতারা বিপাকে পড়েছে।

দেশের সর্ব উত্তরের ভারতীয় সীমান্ত ঘেঁষা জেলা শহর পঞ্চগড়। জেলার অবস্থানগত কারণে বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে ভারতীয় গরু প্রবেশ করলেও এবার ব্যতিক্রম ঘটেছে। হাটবাজারগুলোতে পর্যাপ্ত দেশীয় গরু উঠলেও দাম অনেক বেশি।

গত মৌসুমে যে গরু ৪০ হাজার টাকায় কেনা গেছে সেই গরু এবার ৪৫ থেকে ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বাজারে দেশি গরুর দাম ভাল পাওয়ায় স্থানীয় চাষী ও খামারিরা খুশি হলেও ক্রেতারা বিপাকে পড়েছে। তারপরও ঈদ গরুতো কিনতেই হবে।

এদিকে জেলার কোথাও ইনজেকশন পদ্ধতিতে গরু মোটা তাজাকরণ না করায় জেলার বাইরের ব্যাপারীদের কাছে পঞ্চগড়ের গরুর কদর ভালো। বাহিরের জেলার বেপারীরা এখানে গরু কিনতে এসে বিপাকে পরেছে তারা বলেছে পঞ্চগড়ে গরুর দাম বেশি।কোরবানীর পশুর প্রচুর আমদানিও প্রচুর।

পশু খামারি এনামুল হক ও আ: রশিদ হোসেন আলী পরিবর্তন ডটকমকে বলেন পশুর খাবারে দাম অনেক বেশি। সে কারণেই পশু পালন করতে অনেক খরচ হয়েছে বলে এবার দাম কিছুটা বেশি।

পঞ্চগড় শহরের নূতনবস্তি এলাকার কোরবানীর পশু ক্রেতা মো: আলমগীর হোসেন, ইসলামবাগ মহল্লার আমিরুরল ইসলাম পরিবর্তন ডটকমকে বলেন এবার গরুর দাম অনেক বেশি। গত বছরের তুলনায় গরু প্রতি ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা বেশি দরে কিনতে হচ্ছে। গরুর মালিকরাও বেশি দাম হাকাচ্ছে ।

দেশের দক্ষিনাঞ্চলের চট্রগ্রাম থেকে আসা গরুর বেপারি জাহাঙ্গীর হোসেন, নোয়াখালী থেকে আসা বেপারি সরাফত আলী পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, আমরা প্রতি বছর এ জেলা থেকে পশু কিনে চট্রগ্রাম, নোয়াখালী সহ অন্যান্য জেলায় বিক্রয় করি। এবার গরু কিনতে সাহস পাচ্ছি না তারপরেও কিছু হলেও কিনতে হবে। লাভ না হলেও খরচ তো উঠবে সে ভাবেই কিছু গরু কিনতে হবে।

এআরই

 

রংপুর: আরও পড়ুন

আরও