উপজেলা পরিষদ চত্বরে হামলার শিকার ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বার

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

উপজেলা পরিষদ চত্বরে হামলার শিকার ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বার

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি ৮:৫৭ অপরাহ্ণ, জুন ১৭, ২০১৯

উপজেলা পরিষদ চত্বরে হামলার শিকার ইউপি চেয়ারম্যান-মেম্বার

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা পরিষদে কাজে আসা এক ইউপি চেয়ারম্যান ও এক মেম্বার উপজেলা পরিষদ চত্বরে দুর্বৃত্তের হামলার শিকার হয়েছেন।

তারা হলেন ঘোগাদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ্ আলম ও ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ। আহতদের গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জানা যায়, সোমবার বিকেলে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার ঘোগাদহ ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ উপজেলা পরিষদে কাজের জন্য এসে অফিস থেকে বের হয়ে যাওয়ার সময় কয়েকজন যুবক তাকে আতর্কিতভাবে এসে উপজেলা চত্বরের গাছ বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে তারা ইউপি মেম্বারকে এলোপাতাড়ি কিল, ঘুষি ও লাথি মেরে আহত করে।

খবর পেয়ে উপজেলা পরিষদে থাকা ঘোগাদহ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহ্ আলম ওই ইউপি সদস্যকে উদ্ধারের জন্য গেলে যুবকরা ইউপি চেয়ারম্যানকেও এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মেরে আহত করে সটকে পড়ে।

পরে স্থানীয়রা আহত ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারকে গুরুতর আহত অবস্থায় কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

আহত ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলমের চাচাতো ভাই বাবলু জানান, ঘোগাদহ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে ঘোগাদহ নুরানী ও হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও মাদ্রাসা সংলগ্ন মসজিদ সংস্কারে এডিবি’র বরাদ্দের এক লাখ ১০ হাজার টাকার কাজ করা হয়।

তিনি বলেন, পদাধিকার বলে এই সংস্কার কাজের কমিটির সভাপতি ওই ওয়ার্ডের মেম্বার আবুল কালাম আজাদ। ওই কাজের বিল উত্তোলনের জন্য ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যান উপজেলা পরিষদে আসেন। বিলের কাগজে উপজেলার চেয়ারম্যানকে স্বাক্ষর করতে বললে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমান উদ্দিন মঞ্জু তাদের গালাগাল করেন। এক পর্যায়ে তিনি তাদের অপেক্ষা করতে বলে বাইরে চলে যান। পরবর্তীতে ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ পরিষদ থেকে বের হয়ে আসার সময় এ হামলার ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়যে জানতে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আমান উদ্দিন মঞ্জুর সাথে কথা বলার জন্য সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে তার মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও উপজেলা চেয়ারম্যান সাড়া দেননি।

কুড়িগ্রাম সদর ইউএনও নিলুফার ইয়াছমিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন, ঘটনার সময় আমি আমার অফিস রুমে ছিলাম। উপজেলা চত্বরের গাছবাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে। আহত ইউপি চেয়ারম্যান আমার রুমে এসে ঘটনাটির বর্ণনা দেন। তিনি এ সময় অসুস্থতা ফিল করায় আমি তাকে হাসপাতালে পাঠিয়েছি।

আহত ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি মেম্বারকে হাসপাতালে দেখতে আসা কুড়িগ্রাম জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিনুল ইসলাম মঞ্জু মণ্ডল বলেন, এ ঘটনা যারা ঘটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে দলীয় ও আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম সদর থানার এসআই সফিক জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু এখন পর্যন্ত থানায় কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এইচআর

 

রংপুর: আরও পড়ুন

আরও