‘সোনার ছেলে’ উপাধি পেলেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর

ঢাকা, রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ | ২ পৌষ ১৪২৫

‘সোনার ছেলে’ উপাধি পেলেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর

নীলফামারী প্রতিনিধি ৫:৫৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৫, ২০১৮

‘সোনার ছেলে’ উপাধি পেলেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর

সংস্কৃতি মন্ত্রী ও নীলফামারী-০২(সদর) আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূরকে ‘সোনার ছেলে’ উপাধি দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে নীলফামারী শহরের জেলা শিল্পকলা অডিটোরিয়ামে অবসরগ্রহণ করা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের একটি অনুষ্ঠানে এই উপাধি দেন অনুষ্ঠানের সভাপতি আব্দুল মান্নান।

শহরের মুন্সিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক ও উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান বলেন, আসাদুজ্জামান নুর শিক্ষক পরিবারের সন্তান। উনার বাবা-মা দুজনই ছিলেন শিক্ষক।

নীলফামারীকে উজ্জল করেছেন তিনি। উন্নয়নের পাশাপাশি অর্থনীতির চাকাকে করেছেন গতিশীল। উনার কারণে আমরা ভালো আছি। এজন্য তাকে ‘সোনার ছেলে’ উপাধি দেয়া হলো।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আসাদুজ্জামান নূর বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার সময়ে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো জাতীয়করণ শুরু করেন। তারপর একযোগে করলেন তারই কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, মানসিক প্রশান্তি এবং অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতা না থাকলে শিক্ষা প্রদানে অনীহা তৈরি হয় শিক্ষকদের। ফলে দেশের সকল বেসরকারি প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো জাতীয়করণ করে দিয়েছেন আমাদের নেত্রী।

যদি ভালো থাকতে চাই তাহলে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই মন্তব্য করে আসাদুজ্জামান নুর বলেন, আমার জীবনকালীন এত সরকার দেখলাম কিন্তু শেখ হাসিনার মতো কেউ উন্নয়ন করতে পারেন নি।

উদাহরণ টেনে মন্ত্রী বলেন, নীলফামারী থেকে মঙ্গা দূর করেছেন শেখ হাসিনা। তিনি জানেন কিভাবে দূর করতে হয়। শিল্পায়ন এবং কৃষিতে গতি ফিরিয়ে দেয়ায় আমাদের অভাব দূর হয়েছে।

উত্তরা ইপিজেডে বিএনপি এমনকি তত্বাবধায়ক সরকারের আমলেও কোনো অগ্রগতি হয়নি। শেখ হাসিনার কারণে সেখানে কাজ করছেন ৩২ হাজার শ্রমিক। আগামী দুই বছর পর সেখানে কাজ করবে ৫০ হাজার শ্রমিক।

অনুষ্ঠানে গুড়গুড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমিনুর রহমান, ছাড়ারপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল খালেক এবং কুকড়া ডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইন্দু ভুষণ রায় বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে খামাতপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সাদকাতুল বারী ও নতিব চাপড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক জহুরুল ইসলামের সঞ্চালনায় বিদায়ী শিক্ষকদের মধ্যে আলতাফ হোসেন বক্তব্য দেন।

জেলা আলীগের সাধারণ সম্পাদক মমতাজুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজুর রশিদ মঞ্জু, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মসফিকুল ইসলাম রিন্টু, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাহিদ মাহমুদ, জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি আরিফা সুলতানা লাভলী ও জেলা কৃষকলীগের সভাপতি অক্ষ্ময় কুমার রায় উপস্থিত ছিলেন।  

অনুষ্ঠানের সভাপতি আব্দুল মান্নান জানান, জাতীয়করণের আগে ও পরে নীলফামারী সদর উপজেলায় অবসরগ্রহণ করা ৮৩জনকে বিদায়ী সংবর্ধনা  দেয়া হয়।

তিনি জানান, অবসরগ্রহণ করা নারী শিক্ষকদের শাড়ি, মুসলিম শিক্ষকদের জায়নামাজ এবং সনাতন ধর্মাবলম্বিদের একটি করে কম্বল প্রদান করা হয় অনুষ্ঠানে।

এনএ/এএসটি