চাঁপাইনবাবগঞ্জের বাজারে বাড়তি খাজনা আদায়ের অভিযোগ

ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

চাঁপাইনবাবগঞ্জের বাজারে বাড়তি খাজনা আদায়ের অভিযোগ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি ৫:২৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৫, ২০১৯

চাঁপাইনবাবগঞ্জের বাজারে বাড়তি খাজনা আদায়ের অভিযোগ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার তহাবাজারে বাড়তি খাজনা আদায়ের অভিযোগ করেছেন সবজি, পেয়াজ, মসলাসহ বিভিন্ন কাচাপন্য বিক্রি করা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। খাজনা কমানোর দাবি জানিয়ে তারা জেলা প্রশাসক ও মেয়রের কাছে আবেদন জানিয়েছেন।

সবজি বিক্রেতা মো. সজলু ও মো. গোলাম রাব্বানী বলেন, ১ আটি শাক বিক্রি করলে খাজনা দিতে হচ্চে ৮০ পয়সা, সেখানে ওই শাকটি সর্বোচ্চ তিন টাকায় পায়কারি বিক্রি করতে হয়। ওই শাক আমরা কৃষকের কাছে কত টাকায় কিনব আর কি লাভ করব প্রশ্ন রাখেন তিনি।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার শ্রিরামপুরের সবজী চাষী মোশারফ হোসেন জানান, তিনি নিজ জমিতে পুঁইশাক, পাট, লাল শাকসহ বিভিন্ন সবজী চাষ করে আসছেন।

তিনি বলেন, তহাবাজারে প্রতি আটি পুঁইশাকে দুই টাকা খাজনা দিতে হয়, আর প্রতি আটি পুঁইশাক ৪ থেকে ৫ টাকায় পায়কারী বিক্রি করতে হয়, লাল শাকে ৮০ পয়সা খাজনা দিতে হয়। সবজি বিক্রির একটা বড় অংশই তার চলে যায় খাজনায়। ফলে তিনি এখানে সবজি বিক্রি ছেড়ে বিভিন্ন হাটে সবজি বিক্রি করা শুরু করেছেন।

এ বিষয়ে তহা বাজারের ইজারাদার লাল মোহাম্মদ জানান, ইতিপূর্বে যে নিয়মে খাজনা আদায় করা হয়েছে, সে একই নিয়মে খাজনা আদায় করা হচ্ছে, বাড়তি কোন খাজনা নেয়া হচ্ছে না। শাকের আটি প্রতি ৮০ পয়সা করে নেয়া আগেও ছিলো বলেন তিনি। আটি প্রতি খাজনা নেওয়ার নিয়ম আছে কি, তার উত্তরে তিনি বলেন কাগজে যা লেখা আছে তা দেখে খাজনা আদায় করলে ইজারা মূল্যই উঠবে না।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম জানান, খাজনা আদায়ের মূল্য তালিকা ইজারাদারকে দৃশ্যমানভাবে বাজারে টাঙানোর জন্য বলা হয়েছে, যাতে কোন্ পণ্যে কত খাজনা নেয়া হচ্ছে ব্যবসায়ীরা জানতে পারবেন। এতে করে বাড়তি খাজনা নেয়ার সুযোগ থাকবে না।

এআরএন/এইচকে

 

রাজশাহী: আরও পড়ুন

আরও