কবিরাজের গুড়পড়া খেয়ে ইমামের মৃত্যুর অভিযোগ

ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

কবিরাজের গুড়পড়া খেয়ে ইমামের মৃত্যুর অভিযোগ

পাবনা প্রতিনিধি ৬:৫১ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৪, ২০১৯

কবিরাজের গুড়পড়া খেয়ে ইমামের মৃত্যুর অভিযোগ

পাবনার সুজানগরে কবিরাজের গুড়পড়া খেয়ে আব্দুর রাজ্জাক (৩২) নামে এক মসজিদ ইমামের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে । শুক্রবার দিবারাতে উপজেলার নিয়োগী বনগ্রাম গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মারা যাওয়া ইমাম আব্দুর রাজ্জাক উপজেলার দুলাই গ্রামের মৃত ছকির উদ্দিনের ছেলে এবং নিয়োগীরবনগ্রাম (উত্তরপাড়া) জামে মসজিদের ইমাম।

সুজানগর থানা পুলিশ জানায়,  আব্দুর রাজ্জাক গত প্রায় ৫ বছর যাবৎ নিয়োগীরবনগ্রাম গ্রামের ব্যবসায়ী মোহাম্মদ আলী মদনার বাড়ি জায়গীর থেকে বাড়ির পার্শ্ববর্তী মসজিদে ইমামতি করতেন। গত সোমবার মোহাম্মদ আলীর একটি বসত ঘর থেকে তার ছেলে আব্দুল্লাহ আল মামুনের ৩ লাখ টাকা হারিয়ে যায়। মামুন তার হারানো টাকা খোঁজাখুজি করে না পেয়ে এক পর্যায়ে আব্দুর  রাজ্জাক ওই টাকা চুরি করছে বলে সন্দেহ করে। এরই এক পর্যায়ে ওইদিন দুপুরে মামুন তার হারানো টাকা আব্দুর রাজ্জাকের কাছে আছে কিনা পরীক্ষা করতে তাকে জনৈক কবিরাজের দেওয়া গুড়পড়া খাওয়ায়। আব্দুর রাজ্জাকসহ মোট তের জনকে গুড়পড়া খাওয়ানোর পরেও টাকার সন্ধান না পাওয়ায় ওই তের জনের কেউ টাকা নেননি বলে চলে যান কবিরাজ।

আব্দুর রাজ্জাকের স্ত্রী সাথী খাতুন অভিযোগ করেন, তার স্বামী একজন সৎ এবং ধার্মিক মানুষ। মসজিদের ইমাম হিসেবে তিনি এলাকায় সম্মানিত ব্যক্তি। তারপরও তাকে চোর সন্দেহ করে গুড়পড়া খাওয়ানো হয়। তিনি লজ্জায় বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েন। বিষয়টি মেনে নিতে না পেরে তিনি  শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

এরই এক পর্যায়ে শুক্রবার রাত ১০টার দিকে তিনি প্রচণ্ড ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে পড়েন। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় তাকে সুজানগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে শনিবার ভোর রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

 থানার অফিসার ইনচার্জ শরিফুল আলম বলেন, পড়াগুড়ের বিষক্রিয়ায় আব্দুর রাজ্জাকের মৃত্যু হয়েছে বলে তার পরিবার অভিযোগ করেছে। তবে ময়না তদন্ত রিপোর্ট হাতে না পাওয়া পর্যন্ত মৃত্যুর সঠিক কারণ বলা যাচ্ছে না।

সুজানগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. সেলিম মোরশেদ বলেন মৃত্যুর প্রকৃত কারণ বলা কঠিন। তবে মানসিক হতাশা থেকে হৃদক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যু হতে পারে। এ ব্যাপারে থানায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, গুড়পড়া অনেকেই খেয়েছেন, অন্য কেউই অসুস্থ হয় নি। আব্দুর রাজ্জাককে মানসিক নির্যাতনের কথাও অস্বীকার করেন তিনি।

আরজে/এইচকে

 

রাজশাহী: আরও পড়ুন

আরও