৮৭ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি, ৩০ হাজার মানুষ পানি বন্দি

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

৮৭ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি, ৩০ হাজার মানুষ পানি বন্দি

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ১:০৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৮, ২০১৯

৮৭ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি, ৩০ হাজার মানুষ পানি বন্দি

সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে যমুনার পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে। ফলে উপজেলার চরাঞ্চলসহ মোট ৮৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। বন্যার পানির প্রবল তোড়ে নাটুয়ারপাড়া কেবি উচ্চ বিদ্যালয় ও নিশ্চিন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রবেশের রাস্তা ধসে পড়েছে।

অপর দিকে সিরাজগঞ্জ সদর, বেলকুচি, এনায়েতপুর, চৌহালী, শাহজাদপুর উপজেলার চরাঞ্চলের অন্তত ৩০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এসমস্ত এলাকার ফসলি জমি, বসতবাড়ি এখন পানি নিচে।

এসব তথ্য নিশ্চিত করে কাজিপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন পরিবর্তন ডটকমকে জানান, বন্যার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকলে আরও শতাধিক প্রতিষ্ঠানে পানি উঠে যাবার আশঙ্কা রয়েছে।

মনসুরনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, গতবারের চেয়ে এবারের বন্যার ভয়াবহতা অনেক বেশি বিধায় ছাত্রছাত্রীরা স্কুল কলেজে যেতে পারছেন না। দুইদিন পূর্বে এক শিক্ষার্থী পানিতে ডুবে মারা গেছে। এতে করে অভিভাবগণ তাদের ছেলে মেয়েদের স্কুলে পাঠাচ্ছেন না। পাঠদান কার্যক্রম বন্ধের উপক্রম হয়েছে। শিক্ষকেরা যদিও বিদ্যালয়ে আসেন কিন্তু শিক্ষার্থীর দেখা নেই।

জেলা ত্রাণ কর্মকর্তা আব্দুর রহিম পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, বন্যায় যমুনার চরাঞ্চলের ৩০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এসব মানুষের জন্য ১৭২টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। পানিবন্দি মানুষের জন্য ৭০০ টন জিআর চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে বিতরণ কাজ শুরু করা হয়েছে।

এ ছাড়া আট লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, তা বিতরণের প্রক্রিয়ায় রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

কাজিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদ হাসান সিদ্দিকী পরিবর্তন ডটকমকে জানান, বন্যার পানি স্কুলে প্রবেশ করলেও কিছু বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা বিকল্প স্থানে পাঠদান করাচ্ছেন। তবে ছাত্র/ছাত্রীর উপস্থিতি খুবই কম।

একে/এএসটি

 

রাজশাহী: আরও পড়ুন

আরও