ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজের ওপর দিয়ে চলছে ট্রেন

ঢাকা, ১৪ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজের ওপর দিয়ে চলছে ট্রেন

নওগাঁ প্রতিনিধি ৩:১৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ১১, ২০১৯

ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজের ওপর দিয়ে চলছে ট্রেন

নওগাঁর রানীনগরে ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজের ওপর দিয়ে চলাচল করছে ট্রেন। বর্তমানে প্রতিটি পিলারের নিচ থেকে ইট খুলে গিয়ে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে যেকোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। বিষয়টি নিয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন সচেতনরা।

নওগাঁর আত্রাই ও রানীনগর উপজেলার ওপর দিয়ে চলে যাওয়া এই রেললাইন ব্রিটিশ আমলে নির্মিত হয়েছে। সে সময় নদী বা খালের ওপর ইট দিয়ে ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছিল। রানীনগর উপজেলায় অবস্থিত রতনডাড়া খালের ওপর ২৮৫ নম্বর চকের ব্রিজটিও ওই সময়ে নির্মাণ করা হয়। বর্তমানে ব্রিজের মাঝখানের পিলারের নিচ থেকে মাটি সরে যাওয়ায় ইটগুলো খুলে যাচ্ছে।

ব্রিজের ওপর দিয়ে উত্তরা, বরেন্দ্র, রূপসা, লালমনি, একতা, পঞ্চগড়, সীমান্ত এক্সপ্রেসসহ দিনে ১৬টি ট্রেন যাওয়া-আসা করে। ট্রেনগুলোতে প্রতিদিন প্রায় ২০ হাজার যাত্রী যাতায়াত করেন। এছাড়া তেলবাহী ট্যাংকার ও যাতায়াত করে। ইটগুলো খুঁলে যাওয়ায় অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ হয়েছে ব্রিজটি।

স্থানীয় বাসিন্দা রুহুল আমিন বলেন, ব্রিটিশ আমলে চকের ব্রিজটি তৈরি করা হয়েছিল। বর্তমানে ব্রিজের মাঝখানের পিলারের নিচ থেকে ইটগুলো খুলে পড়ে গর্ত হয়ে গেছে। কোনো রকমে পিলারগুলো দাঁড়িয়ে আছে। যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এ বিষয়ে আত্রাইয়ের আহসানগঞ্জ স্টেশন মাস্টার সাইফুল ইসলাম বলেন, চকের ব্রিজের ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থার কথা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজার খন্দকার শহীদুল ইসলাম বলেন, কোনো ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ মনে হলে সেখানে একটি নির্দিষ্ট গতিসীমা চিহ্নিত করা হয়। যখন ঝুঁকি মনে হয় তখন ১৬ কিলোমিটার গতিসীমা লেখা থাকে। আর যদি একেবারে ঝুঁকি মনে হয় তখন ব্রিজে আমরা আলাদা (এক্সটা) গার্ডার দিয়ে দিই। এছাড়া আমাদের কিম্যান (লাইন তদারক) নিয়মিত রেললাইন তদারকি করে থাকেন।

তিনি আরো বলেন, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের ছোট-বড় যতগুলো ব্রিজ আছে সবগুলো নিরাপদ। যাত্রীদের জন্য যতটুকু নিরাপত্তার প্রয়োজন ততটুকু নিশ্চিয়তা (ইনশিয়র) দেয়ার পর আমরা ট্রেন ছাড়ি।

বিআর/এএসটি

 

রাজশাহী: আরও পড়ুন

আরও