সমকামিতার সময় বিএনপি নেতাকে হত্যা

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

সমকামিতার সময় বিএনপি নেতাকে হত্যা

রাজশাহী ব্যুরো ৯:৪৫ অপরাহ্ণ, জুন ১৮, ২০১৯

সমকামিতার সময় বিএনপি নেতাকে হত্যা

সমকামিতার জের ধরে রাজশাহীর পুঠিয়ায় পরিবহন শ্রমিক ও বিএনপি নেতা নুরুল ইসলামকে হত্যা করা হয়। আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে এমন স্বীকারক্তি দিয়েছে আটক মো. জীবন (১৬)।

সোমবার আদালতে তার এই জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়ছে বলে মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশের মূখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইফতে খায়ের আলম।

বিকেলে সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তিনি উল্লেখ করেন, গত ১৬ জুন রামজীবনপুর এলাকার জিয়ারুল হকের ছেলে মো. জীবনকে গোয়েন্দা পুলিশ আটক করে। তিনি নূরুল ইসলামকে নানা বলে সম্বোধন করতেন। টাকার প্রলোভন দিয়ে প্রায় সময় তারা সাথে সমকামিতা করতেন এই শ্রমিক নেতা।

জীবন তার জবানবন্দিতে জানায়, গত ১০ জুন রাত ৯টার দিকে সমকামিতার জন্য দুজনেই কাঠালবাড়ীয়া গ্রামের এএসএস ইটভাটায় যায়। এক পর্যায়ে নূরুল হক মাটিতে পড়ে যায়। এ সময় ক্ষোভ ও জেদের বশবর্তী হয়ে প্রথমে গলা টিপে ধরে। এরপর ইট দিয়ে মাথায় আঘাত করে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে রেখে বাসায় চলে যায়।

মুখপাত্র বলেন, নূরুল ইসলামের পূর্ব থেকেই সমকামিতার বদ অভ্যাস ছিল। এলাকার বিভিন্নজনকে এ কাজে সে ব্যবহার করত। এ ব্যাপারে সাক্ষী হিসাবে আদালতে আরো তিনজন জবানবন্দি দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ১১ জুন রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার কাঠালবাড়ীয়া গ্রামে এএসএস ইটভাটায় পরিবহন শ্রমিক নেতা নূরুল ইসলামের মরদেহ পাওয়া যায়। তার বাড়ি উপজেলার ধোপাপাড়া গ্রামে।

এ ঘটনায় নিহত নূরুলের মেয়ে বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের নামে পুঠিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

নুরুল ইসলাম উপজেলা শ্রমিক দলের সহ-সভাপতি ও উপজেলার জিউপাড়া ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

এছাড়াও তিনি পুঠিয়া উপজেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি।

বিএইচএস/এসবি

 

রাজশাহী: আরও পড়ুন

আরও