সাক্ষ্য দিতে গিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় জালাল নিহত

ঢাকা, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

সাক্ষ্য দিতে গিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় জালাল নিহত

নাটোর প্রতিনিধি ৪:৪৭ অপরাহ্ণ, জুন ১৩, ২০১৯

সাক্ষ্য দিতে গিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় জালাল নিহত

নাটোরের গুরুদাসপুরে প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত জালাল উদ্দিন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। নিহত জালাল উদ্দিন উপজেলার যোগিন্দ্র নগর গ্রামের আমজাদ হোসেন ওরফে আনন্দের ছেলে।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাহারুল ইসলাম জানান, ২০১৩ সালের ১৩ মে উপজেলার যোগিন্দ্র নগর গ্রামে সফুরা খাতুন নামে এক নারীকে শারীরিক নির্যাতনের পর হত্যা করে নদীতে ফেলে দেয় সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় নিহত সফুরার ভাই বাদী হয়ে সাইফুল ইসলাম, শরিফুল ইসলাম রফিকুল ইসলামসহ আরো কয়েকজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে মামলা দায়ের করেন।

মামলায় জালাল উদ্দিনকে প্রধান সাক্ষী করা হয়। সেই সফুরা হত্যা মামলায় বৃহস্পতিবার আদালতে জালালের সাক্ষ্য দেয়ার দিন ধার্য ছিল। সকালে জালাল উদ্দিন  সাক্ষ্য দিতে আদালতে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হলে পথে যোগিন্দ্র নগর বাজারের কাছে প্রতিপক্ষরা ধারালো অস্ত্র নিয়ে তার ওপর হামলা করে।

এ সময় প্রতিপক্ষরা জালাল উদ্দিনের একটি হাত কেটে নেয় এবং অন্য হাতসহ পা কেটে জখম করে। পরে স্থানীয়রা আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জালাল উদ্দিন মারা যায়। ঘটনার পর থেকে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

পিএসএস

 

রাজশাহী: আরও পড়ুন

আরও