বগুড়ায় পরকীয়ার বলি ব্যবসায়ী

ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯ | ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

বগুড়ায় পরকীয়ার বলি ব্যবসায়ী

বগুড়া প্রতিনিধি ৯:১৪ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০১৯

বগুড়ায় পরকীয়ার বলি ব্যবসায়ী

বগুড়ার আদমদীঘির সান্তাহার পশ্চিম লকু কলোনি এলাকায় পরকীয়ার জের ধরে বাসায় ঢুকে ছুরিকাঘাতে বাদল (৩৫) নামে এক ভাংড়ি ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন।

গতকাল বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বাদল নওগাঁর কালিতলা এলাকার শহিদুল ইসলামের ছেলে।

তিনি সান্তাহার পশ্চিম লকু কলোনি দীঘিরপাড় এলাকার জামাল মিস্ত্রির বাসায় পরিবার নিয়ে ভাড়ায় বসবাস ও ভাংড়ি ব্যবসা করতেন। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্ততি চলছে।

স্থানীয়রা জানান, নওগাঁর বালুডাঙ্গা হাজি আমবাগানের আফতাব আলীর ছেলে রেজাউল ইসলাম ও হাট নওগাঁর শহিদুল ইসলামের ছেলে বাদল দুই বছর আগে মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধে একাধিক মামলায় গ্রেফতার হয়ে জেলখানায় থাকাকালে বন্ধুত্ব গড়ে তোলে। তারা জামিনে মুক্ত হয়ে বন্ধুত্বের সুবাদে একে অপরের বাসায় যাতায়াত করে। এক পর্যায়ে রেজাউল ইসলাম ও বাদলের স্ত্রীর মধ্যে উভয়ের পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। প্রায় ১ বছর আগে নিহত বাদলের স্ত্রী ২ সন্তানের জননী নার্গিস বেগমকে পালিয়ে নিয়ে রেজাউল ইসলাম দ্বিতীয় বিয়ে করেন।

এর ৬ মাস পর রেজাউল ইসলামের গর্ভবতী স্ত্রী ২ সন্তানের জননী ফাতেমা বেগমকে অপর বন্ধু ভাংড়ি ব্যবসায়ী বাদল পালিয়ে নিয়ে বিয়ে করেন। পরকীয়ার টানে একে অপরের স্ত্রীকে বিয়ে করায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

বাদল বিয়ে করার পর তার স্ত্রী ফাতেমা আগের স্বামী রেজাউল ইসলামের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখায় বাদল ক্ষিপ্ত হয় এবং রেজাউল ইসলামের সাথে বিরোধে জড়িয়ে পড়েন।

নিহত বাদলের বাবা শহিদুল ইসলাম জানান, গত বুধবার দুপুরে রেজাউল ইসলাম সন্তান দেখার অজুহাতে বাদলের ভাড়া বাসায় গিয়ে গালিগালাজ ও হুমকি দিয়ে যায়। এরপর রাত ৮টায় তারাবি নামাজের সময় রেজাউল ইসলাম বাদলের ভাড়া বাসায় অতর্কিত ঢুকে বাদলকে উপুর্যপরি ছুরিকাঘাতে রক্তাক্ত জখম করে পালিয়ে যায়।

রাতেই আহত বাদলকে প্রথমে নওগাঁ সদর ও পরে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর রাত ১২টায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আদমদীঘ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, তদন্ত করে দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এইচআর