আজব সড়ক, দেখলেই মানুষ থমকে দাঁড়ায়! (ভিডিও)

ঢাকা, সোমবার, ২০ মে ২০১৯ | ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

আজব সড়ক, দেখলেই মানুষ থমকে দাঁড়ায়! (ভিডিও)

এইচ এম আলমগীর কবির, সিরাজগঞ্জ ৭:৪৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০১৯

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়নের পূর্ব মোহনপুর গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলের একটি আজব সড়ক। সড়কটির নির্মাণকাজ গত বছরের ডিসেম্বরে শেষ হলেও এখনো অপসারণ করা হয়নি মাঝখানে থাকা দুটি বৈদ্যুতিক খুঁটি।

মানুষ দেখলেই থমকে দাঁড়িয়ে যায়, অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে খুঁটির দিকে। এদিকে খুঁটি দুইটি না সরানোয় ওই রাস্তায় যানবাহন ও মানুষ চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, যানবাহন ও মানুষ চলাচলের জন্য রাস্তাটি নির্মাণ হলেও মাঝখানে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে এই খুঁটি দুটি।

ইউপি সদস্য মো. সেলিম রেজা পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, এ সড়কটি এলাকাবাসীর কোন কাজে আসবে না। মাঝখানে খুঁটি থাকায় যানবাহন যাতায়াত করতে পারে না। সড়কটি নির্মাণে অনেক অনিয়ম হয়েছে। সয়দাবাদ শিল্পপার্ক অফিসের সামনে থেকে পূর্ব মোহনপুর ঈদগাহ মাঠ পর্যন্ত করার কথা থাকলেও প্রায় দু'শ ফুট বাকি রেখেই রাস্তাটির কাজ শেষ করা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, যমুনা নদী বিধৌত পূর্ব মোহনপুর গ্রামবাসীর চলাচলের জন্যই এ সড়কটি নির্মাণ করে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ। এ সড়কের মাধ্যমে সয়দাবাদ মহাসড়ক ও সিরাজগঞ্জ সদরের সাথে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন হয়। কিন্তু ছোট ও মাঝারি যান চলাচলের জন্য নির্মিত এই সড়কটির মাঝখানে দুটি স্থানে বৈদ্যুতিক খুঁটি থাকায় দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে মানুষকে।

প্রকৌশল বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, সয়দাবাদ শিল্পপার্ক অফিস থেকে পূর্ব মোহনপুর পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার এই সড়কটির প্রস্থ ৮ ফুট। সম্পূর্ণ আরসিসি ঢালাই করা। এটি নির্মাণে ব্যয় হয়েছে এক কোটি ৬৪ লাখ টাকা। এটি একসময় পায়ে হাঁটার রাস্তা ছিল। আগের চেয়ে অনেক প্রশস্ত করার কারণে মাঝখানে বৈদ্যুতিক খুঁটি পড়েছে। তবে সড়কটির দৈর্ঘ্য যা ধরা হয়েছে তার চেয়ে ৫ মিটার বেশি করা হয়েছে বলেও দাবী করেন তিনি।

সদর উপজেলা প্রকৌশলী মো. বদরুজ্জোহা জানান, রাস্তাটির নির্মাণ কাজ চলাকালে পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগকে অবহিত করা হলেও খুঁটির অপসারণ করা হয়নি। তবে গত সপ্তাহে তারা এসে দেখে এক সপ্তাহের মধ্যে খুঁটিটি অপসারণ করার কথা বলেছেন।

সিরাজগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর মহা ব্যবস্থাপক কামরুল হাসান বলেন, বিদ্যুতের খুঁটি মাঝখানে রেখে রাস্তা নির্মাণের বিষয়টি আমরা পরে জেনেছি। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগ আমাদের কোন চিঠি দেয়নি। এ জন্য খুঁটি অপসারণ হয়নি। খুঁটি মাঝখানে রেখেই তারা রাস্তাটি নির্মাণ করেছে। এখন আর ওই খুঁটি মাটি খুঁড়ে তোলা সম্ভব নয়।

পিএসএস