ফসলী জমিতে পুকুর কেটে মাছ চাষ, কৃষকের সর্বনাশ

ঢাকা, সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯ | ৩ আষাঢ় ১৪২৬

ফসলী জমিতে পুকুর কেটে মাছ চাষ, কৃষকের সর্বনাশ

তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি ২:১৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১২, ২০১৯

ফসলী জমিতে পুকুর কেটে মাছ চাষ, কৃষকের সর্বনাশ

চলনবিল অধ্যুষিত সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলা জুড়ে আবাদী ফসলী জমি কেটে পুকুরে মাছ চাষের ধুম পড়েছে। এদিকে ফসলী জমি কেটে পুকুর তৈরি করার ফলে কৃষকের সর্বনাশ হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

জানা গেছে, প্রতি বছরই এ উপজেলায় শত শত বিঘা আবাদী ও ফসলী জমি কেটে যত্রতত্র পুকুর কাটার ফলে অনেক কৃষক সঠিক সময়ে সরিষা, ভুট্টা, গম ও ধান চাষ করতে পারছে না। আবার সামান্য বৃষ্টিতে পানি বের হতে না পারায় আবাদী ফসলের ব্যপক ক্ষতি হয়।

কৃষক আব্দুল মজিদ পরিবর্তন ডটকমকে জানান, অসাধু ব্যক্তিরা বেশি মুনাফার লোভ দেখিয়ে জমি মালিকদের ভুমির শ্রেণির পরিবর্তন না করেই আবাদী জমিতে পুকুর কাটতে উৎসাহীত করছেন।

সরজমিনে দেখা যায়, উপজেলার তাড়াশ সদর ইউনিয়নের সোলাপাড়া, বোয়ালিয়া কাউরাইল, খুটিগাছা, নওগা ইউপির ভায়াট, খালখুলা, বানিয়াবহু, কালুপাড়া, সাস্তান, শ্রীকৃঞ্চপুর, মাধাইনগর ইউপি. সগুনা ইউপিতে এস্কাভেটর মেশিন (ভেকু) দিয়ে বেশ কয়েকটি গ্রামে চলছে আবাদী জমি কেটে পুকুর খননের কাজ।

উপজেলা কৃষি অফিসার সাইফুল ইসলাম জানান, গত পাঁচ বছরে এ উপজেলায় ২৪০০ বিঘা আবাদী জমি কমে গিয়েছে। এতে করে খাদ্য চাহিদানুযায়ী ঘাটতি পড়ছে। কৃষকের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। দ্রুত পুকুর কাটা বন্ধ করতে হবে। আর তা না হলে খাদ্যের ঘাটতি পড়বে।

তাড়াশ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইফফাত জাহান বলেন, আমাদের অভিযান চলমান রয়েছে। যখনই কোনো অভিযোগ পাই তখনই অভিযান চালিয়ে সেগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়।

এআরই