সিরাজগঞ্জে অভিযান, সড়ক থেকে লাপাত্তা ৪ শতাধিক যান

ঢাকা, বুধবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫

সিরাজগঞ্জে অভিযান, সড়ক থেকে লাপাত্তা ৪ শতাধিক যান

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ৩:৩৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১০, ২০১৮

সিরাজগঞ্জে অভিযান, সড়ক থেকে লাপাত্তা ৪ শতাধিক যান

চলমান অভিযানের মুখে ফিটনেস, রুট পারমিট, ইন্সুরেন্সসহ কাগজপত্র ঠিক না থাকায় সিরাজগঞ্জের বিভিন্ন রুটের চার শতাধিক বাস-মিনিবাস ও কোচ চলাচল করছে না। এগুলো বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ড ও গ্যারেজে রাখা হয়েছে।

অথচ সিরাজগঞ্জ-ঢাকাসহ বিভিন্ন রুট এক সময় এই অবৈধ যানগুলো দাপিয়ে বেড়াতো। নিরাপদ সড়ক দাবির আন্দোলনের পর অভিযান শুরু হলে তারা সড়ক থেকে লাপাত্তা হয়ে গেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে আবারো এসব ফিটনেসবিহীন যানগুলো সড়কে ছাড়বেন মালিক-শ্রমিকেরা।

জানা গেছে, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) সিরাজগঞ্জ অফিস থেকে ৫৪০টি বাস, মিনিবাস ও কোচের রেজিস্ট্রেশন দেয়া আছে। সর্বশেষ গত ৩১ জুলাই এসব গাড়ির মধ্যে মাত্র ১৭৬টি ফিটনেস ও রুট পারমিট হালনাগাদ করেছে।

সিরাজগঞ্জ থেকে শহরের ঢাকা রোডস্থ বেশ কয়েকটি কাউন্টারের মাধ্যমে সিরাজগঞ্জ-ঢাকা, এম এ মতিন বাস টার্মিনাল থেকে সিরাজগঞ্জ-কাজিপুর, সিরাজগঞ্জ-রায়গঞ্জ, সিরাজগঞ্জ-তাড়াশ, সিরাজগঞ্জ-এনায়েতপুর, সিরাজগঞ্জ-বগুড়া, সিরাজগঞ্জ-রংপুর, সিরাজগঞ্জ-পাবনা, সিরাজগঞ্জ-কুষ্টিয়াসহ অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লা রুটে চলাচল করে অন্তত পাঁচ শতাধিক বাস-মিনিবাস ও কোচ।

এর মধ্যে অধিকাংশই ফিটনেসবিহীন। আবার ফিটনেস থাকলেও নেই বৈধ লাইসেন্সধারী চালক। এতে যেমন রয়েছে প্রাণনাশের হুমকি, তেমন বাড়ছে দুর্ঘটনা।

সিরাজগঞ্জ জেলা বাস মিনিবাস ও কোচ মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মেজবাহুল ইসলাম লিটন পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘শুধু গাড়ির ফিটনেস নয়, ড্রাইভিং লাইসেন্সসহ গাড়ির সব কাগজপত্রের জন্যই অভিযান চলছে। আমরা মালিকদের সব কাগজপত্র দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রস্তুত করে বাস রাস্তায় বের করতে বলেছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের সমিতির অন্তর্ভুক্ত ৫১৬টি বাস রয়েছে। ট্রাফিক অভিযান শুরুর প্রথম দিনে চলেছে মাত্র ১৩টি বাস। পর্যায়ক্রমে বাস চলাচলের সংখ্যা বাড়ছে। আশা করছি, মালিকরা দ্রুত সময়ের মধ্যে সব বাসের কাগজপত্র প্রস্তুত করে রুটে ছাড়বেন।’

মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সম্পাদক হাজি আনছার আলী পরিবর্তন ডটকমকে জানান, তাদের ইউনিয়নের শ্রমিক সংখ্যা প্রায় পাঁচ হাজার। এদের অধিকাংশের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ও বৈধ লাইসেন্সে রয়েছে। যাদের বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই, তাদের কাগজপত্র ঠিক করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আহসান হাবিব পরিবর্তন ডটকমকে জানান, অভিযান চলাকালে ফিটনেসবিহীন কোনো পরিবহন সড়কে দেখা যায়নি। আগামীকাল শনিবার পর্যন্ত এ অভিযান চলবে।

বিআরটিএ সিরাজগঞ্জ অফিসের সহকারী পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার আলতাব হোসেন পরিবর্তন ডটকমকে জানান, ফিটনেসবিহীন বাস চলাচল বন্ধ এবং লাইসেন্সবিহীন অদক্ষ চালকদের দৌরাত্ম্য থামাতে অভিযান চলছে। জুলাই মাসে আটটি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার মাধ্যমে ৯৫টি মামলা ও নগদ ১ লাখ ৫ হাজার ৪০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

একে/আইএম