ককটেল হামলা নিয়ে ‘২ বিএনপি নেতার’ মোবাইল আলাপ শোনাল পুলিশ (অডিও)

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ আগস্ট ২০১৮ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৫

ককটেল হামলা নিয়ে ‘২ বিএনপি নেতার’ মোবাইল আলাপ শোনাল পুলিশ (অডিও)

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৪:৪৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ২২, ২০১৮

print
ককটেল হামলা নিয়ে ‘২ বিএনপি নেতার’ মোবাইল আলাপ শোনাল পুলিশ (অডিও)

রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়রপ্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের প্রচারণা সভায় ককটেল হামলার মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মন্টুকে। শনিবার রাতে তাকে গ্রেফতার করা হলেও প্রথমদিকে পুলিশের পক্ষ থেকে তা অস্বীকার করা হয়।

এরপর রোববার দুপুর ১২টার দিকে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ (আরএমপি) কমিশনার একেএম হাফিজ আকতার।

আরএমপি সদর দফতরের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ককটেল হামলার বিষয়ে আমরা রাজশাহী মহানগর পুলিশ সর্বোচ্চ গুরুত্ব এবং অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চৌকস অফিসারদের সমন্বয়ে একটি বিশেষ টিম গঠন করি। ঘটনার সম্পৃক্ত সন্দেহে তখনই পুলিশ একজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে।

আরএমপি কমিশনার দাবি করেন, ‘তদন্তের এক পর্যায়ে তদন্তকারী টিম মামলার স্বার্থেই ফোনের কথপোকথনের একটি অডিও রেকর্ড হাতে পায়। যেখানে রাজশাহী জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক একেএম মতিউর রহমান মন্টু বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা তাইফুল ইসলাম টিপুকে ককটেল হামলায় নিজেদের সম্পৃক্ততার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুইজন নিজেদেরই ব্যক্তি বলে নাম উল্লেখ করেন।’

সংবাদ সম্মেলনে মন্টুর কথোপকথনের একটি অডিও রেকর্ড বাজিয়ে শোনানো হয়।

রাজশাহী জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মন্টুর পক্ষ থেকে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা তাইফুল ইসলাম টিপুকে দেয়া কলে শোনা যায়…
টিপু: ভাইইইই
মন্টু: ভালো আছো?
টিপু: আছি ভাই
মন্টু: কালকে কামকাজ করে প্রচণ্ড রোদের তাপে, জ্বর, অসুস্থ। গত পরশু দিন যে ঘটনা, সেটা শুনছোতো। নাকি?
টিপু: একটু শুনেছি, বেশি শুনি নাই।
মন্টু: ...
টিপু: না, ওই বোম মেরেছে ওইটাতো?
মন্টু: হ্যাঁ।
টিপু: সেটাতো জানি।
মন্টু: জান, কিন্তু কারা করলো, তুমি জানো?
টিপু: অ্যা...
মন্টু: কারা করেছে? এটা কি জানো?
টিপু: তা জানি না।
মন্টু: যাক, আমি যে কথা বলছি, সেটা হজম করবা। জায়গামতো দরকার হলে বলবা। .... ভাই জড়িত।
টিপু: হ্যাঁ!
মন্টু: আমাদের দুইজন জড়িত। বিএনপির লোক দিয়ে কাজ করানো হয়েছে। ভাইয়ের কাছে ক্রেডিট নেয়ার জন্য...কাম করছে। ঠিকাছে? ... আর খালেক। ... শাহিন।
টিপু: এগুলা আমার বিশ্বাস হয়।
মন্টু: জাবেদ হলো আমাদের শাহিন... ভাইয়ের লোক।
টিপু: এটা আমার বিশ্বাস হয়।
মন্টু: এটা হওয়ার সাথে সাথে ভাইয়াকে তুমি হে…, সব ঠিক হয়ে গেছে। আমার... মিছিলে এই করছে, সেই করছে। নেতা ধরছে খালেক ভাই,... দলের মনে হয় কিছু ক্ষতি হচ্ছে। এখানে আছে...

এ রেকর্ড শুনিয়ে আরএমপি কমিশনার বলেন, এর পরিপ্রেক্ষিতে আমরা কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাই।

তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন ব্যাহত বা প্রশ্নবিদ্ধ করার লক্ষ্যে জনগণের সহমর্মিতা অর্জন করতে এবং জনগণকে নিজেদের দিকে টানতে নিজেরাই পরিকল্পিতভাবে এ ককটেল বিস্ফোরণটি ঘটায়। প্রকৃত ঘটনার জন্য আমরা একেএম মতিউর রহমান মন্টুকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আমাদের হেফাজতে নেই।

হাফিজ আকতার বলেন, ওই ঘটনায় জড়িত সকল ব্যক্তি, যারা পরিকল্পনাকারী, মদদদাতা এবং সহযোগীদের গ্রেফতারপূর্বক প্রচলিত আইনে বিচারের আওতায় আনতে তৎপর রয়েছি।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘এটা ভুয়া অডিও। সংস্থার লোকেরা বিএনপিকে হেনস্থা করার জন্য এটা ছড়িয়ে দিয়েছে। এর সঙ্গে আমার কোনো সম্পর্ক নেই।’

রাজশাহী মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘আমার ঘটনার দিনই সংবাদ সম্মেলন করে বলেছিলাম যারাই জড়িতদের শাস্তির আওতায় আনার জন্য। সরকার অতীতের মতো আমাদের নেতাদের উপর চাপানোর চেষ্টা করছে। এর সঙ্গে আমার দলের কেউ জড়িত নেই।’

উল্লেখ্য, গত ১৭ জুলাই সকালে রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণার সময় পথসভা চলাকালে ককটেল হামলার ঘটনা ঘটে। এতে অজ্ঞাত আটজনের বিরুদ্ধে বোয়ালিয়া থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

বোয়ালিয়া থানার এসআই শামীম হোসেন বাদী হয়ে মঙ্গলবার রাতে থানায় বিস্ফোরকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলাটি দায়ের করেন।

এরপর শনিবার রাত আড়াইটার দিকে মহানগর গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) ও বোয়ালিয়া থানা পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে মহানগরীর রামচন্দ্রপুর বাসা থেকে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান মন্টুকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের সময় তার লাইসেন্সকৃত পিস্তলটিও জব্দ করা হয়।

এফএম/এমএইচ/এমএসআই
আরও পড়ুন...
রাজশাহী জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গ্রেফতার

 
.


আলোচিত সংবাদ