লিচুগাছে বৈদ্যুতিক ফাঁদ, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

ঢাকা, রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৮ আশ্বিন ১৪২৫

লিচুগাছে বৈদ্যুতিক ফাঁদ, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

নাটোর প্রতিনিধি ১১:৪৫ পূর্বাহ্ণ, মে ২৫, ২০১৮

লিচুগাছে বৈদ্যুতিক ফাঁদ, দুর্ঘটনার আশঙ্কা

‘সাবধান, এই লিচু গাছের আশপাশে এবং লিচু গাছে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া আছে। বি.দ্র. কেউ যদি মারা যায় তাহলে কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না’- এ ধরনের কথা সংবলিত সাইনবোর্ড টাঙিয়ে লিচু চুরি ঠেকাতে এমন পদ্ধতি অবলম্বন করেছেন লিচু গাছের এক মালিক।

এমন কর্মকাণ্ডে যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ও প্রাণহানীর ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। আর এই বিপজ্জনক কাণ্ডটি  ঘটেছে নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার মালঞ্চি রেল স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় বাংলাদেশ রেলওয়েতে কর্মরত পোর্টার আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে জুয়েল আহমেদ।

এ ঘটনাটি এখন এলাকায় মুখরোচক ও ভীতিকর পরিবেশ তৈরী করেছে। এলকাবাসীর দাবি এলাকার শিশু কিশোরসহ সকল বয়সের মানুষের জীবনের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে দ্রুত লিচু গাছ থেকে বিপদজনক এই খোলা বৈদ্যুতিক তারটি অপসারন করা হোক। 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পাবনার ঈশ্বরদীর পাকশি এলাকার আব্দুর রাজ্জাক। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ রেলওয়েতে পোর্টার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। চাকুরির সুবাদে দীর্ঘদিন থেকেই তিনি বাগাতিপাড়ার মালঞ্চি রেল স্টেশনের পাশে সরকারি একটি জমিতে পরিবার নিয়ে বসবাস করে আসছেন। তিনি তার বাড়ির পাশে একটি লিচু গাছ লাগিয়েছেন।  সেই লিচু গাছে এ বছর প্রচুর লিচু ধরেছে। কিন্তু লিচু বড় হওয়ার পর থেকেই প্রতিনিয়ত লিচু চুরি হতে থাকে। কোন ভাবেই লিচু চোর ধরতে পারে না এবং চুরিও ঠেকাতে পারেনা। তাই লিচু চোর ধরতে এবং চুরি ঠেকাতে আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে জুয়েল আহমেদ সেই লিচু গাছে এবং গাছের আশে পাশে খোলা তার দিয়ে বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতেছেন। শুধু ফাঁদ পেতেই রাখেন নি, সেখানে বোর্ড টাঙ্গিয়ে দিয়েছেন। আর সেই বোর্ডে লিখা রয়েছে ‘সাবধান লিচু গাছের আশে পাশে এবং লিচু গাছে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া আছে। বিঃ দ্রঃ কেউ যদি মারা যায় তাহলে কতৃপক্ষ দায়ী থাকবে না।’ কিন্তু সেই খোলা তারের বৈদ্যুতিক ফাঁদ দেখে এলাকাবাসী চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। তাদের ধারনা যে কোন সময় এই ফাঁদ থেকে বড় কোন দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। সেজন্য দ্রুত এই ফাঁদ অপসারন করা প্রয়োজন।

এ বিষয়ে জানতে স্থানীয় সোনাপাতিল মহল্লার রবিউল আলম, জালাল উদ্দিন ও পেড়াবাড়িয়া মহল্লার লিমন হোসেনের সাথে কথা বললে তারা জানান, ওই লিচু গাছে বিদ্যুতের তার জড়ানো এলাকাবাসী দেখেছেন।  গাছটির পাশ দিয়ে এলাকার শিশু কিশোর সহ সকল বয়সের মানুষ চলাচল করে। গাছে জড়ানো বিদ্যুৎ এর তারে জড়িয়ে যে কোন সময় প্রাণহানীর মতো বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এমনকি ভুল করে গাছের মালিকদের নিজেদের পরিবারের সদস্যরাও দুর্ঘটনার শিকার হতে পারেন। এজন্য গাছ থেকে দ্রুত এই বিদ্যুতের ফাঁদটি সড়িয়ে ফেলা জরুরি।

এ ব্যাপারে মালঞ্চি রেলওয়ে স্টেশনে দায়িত্বরত ওয়েম্যান সানোয়ার কবীর বলেন, আমি এমন কাণ্ডটি দেখেছি। এ ব্যাপারে আব্দুর রাজ্জাককে নিষেধও করেছি। কিন্তু তিনি কোন কথা কানে নেননি। বড় কোন দুর্ঘটনা বা এলাকাবাসী বিষয়টি নিয়ে ক্ষিপ্ত হতে পারে এমন আশংকায় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানোনো হয়েছে। এখন এটা কর্তৃপক্ষ দেখবেন।

এ ব্যাপারে বাগাতিপাড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, লিচু গাছে পাহারার ব্যবস্থা করতে পারে। কিন্তু বৈদ্যুতিক ফাঁদ দিয়ে নয়। এমন কর্মকাণ্ড আইনসিদ্ধ নয়। যদি এমন কোন কাজ তারা করে থাকে তাহলে বিষয়টি প্রথমে তাদের অবহিত করে এমন কাজের থেকে দুরে সরে যেতে বলা হবে। অন্যথায় আইগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এ বিষয়ে গাছের সাথে বিদ্যুতের ফাঁদ তৈরী করা জুয়েল আহমেদকে না পেয়ে তার বড় ভাই জিয়ার সাথে কথা বললে তিনি বলেন, গাছের লিচু চুরি ঠেকাতে এমন দৃশ্যমান বৈদ্যুতিক তার পেঁচিয়ে সাইনবোর্ড টানানো হয়েছে। প্রকৃত পক্ষে এতে কোন বিদ্যুৎ সংযোগ নেই। কারও কোন ক্ষতি হবে না বলেও দাবি করেছেন তিনি। 

বিএল/এফএম