সিরাজগঞ্জে ভুয়া দাতা সাজিয়ে বাড়ি দখল!

ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮ | ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

সিরাজগঞ্জে ভুয়া দাতা সাজিয়ে বাড়ি দখল!

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি ১১:৫৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮

সিরাজগঞ্জে ভুয়া দাতা সাজিয়ে বাড়ি দখল!

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার ধামাইনগর ইউনিয়নে নওপা গ্রামে সততা রোটার স্পিনিং মিলের মালিক ও ইটভাটা ব্যবসায়ী আবু হানিফা টিপুর বিরুদ্ধে মাহাতো ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর এক ব্যক্তির বাড়ি দখলের অভিযোগ উঠেছে। জমির ভুয়া দাতা সাজিয়ে জাল দলিলের মাধ্যমে বাড়িটি দখলে নেয়া হয়।

একই সঙ্গে ফসলি জমি দখল করে সেখানে সততা রোটার স্পিনিং মিলের নির্ধারিতস্থান উল্লেখ করে সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়াল নির্মাণ করা হয়েছে।

সরেজমিন জানা গেছে, সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার দেবরাজপুর গ্রামের বাসিন্দা আবু হানিফা টিপু। তিনি মিথ্যা দাতা সাজিয়ে একই এলাকার মৃত এন্তাজ আলীর ছেলে নূরুল ইসলামের সঙ্গে যোগাসজশ করে ধামাইনগর ইউনিয়নের নওপা গ্রামের মৃত মনো মারডি ওরফে সাগু মারডির বাড়িসহ সকল ফসলী জমি জোরপূর্বক দখলে নেন।

মনো মারডি পরিবারের সদস্যরা আবু হানিফা টিপুর অবৈধ কাজে বাধা দিলে সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে মাহাতো পরিবারের উপর নির্যাতন চালায় বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় মনো মারডির ছেলে রায় চরণ বাদী হয়ে সিরাজগঞ্জ কোর্টে চলতি বছরের ৪ ফেব্রুয়ারি আবু হানিফা টিপুর সাত সহযোগীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন (মামলা নং-৬/১৮)।

এদিকে মামলা দায়ের পর টিপুর বাহিনী মামলা তুলে নেয়ার জন্য হুমকি দিচ্ছে। ফলে পরিবারটি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

মনো মারডি ওরফে সাগু মারডির বসতবাড়ি ও আবাদি জমি একাধিক জাল দলিল তৈরি করে ওই চক্রটি মালিকানা দাবি করার ঘটনায় তার ছেলে রায় চরণ মারডি সকল ভুয়া দলিলগুলো বাতিল করার জন্য সিরাজগঞ্জ জেলা যুগ্ম জজ আদালতে আবু হানিফা টিপুর প্রধান সহযোগী নুরুলসহ তিনজনের বিরুদ্ধে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন।

রায় চরণ বলেন, আমার বাবা নিরক্ষর ছিল। বাবার স্বাক্ষর জাল করে তারা জমি দখলে নিয়েছে। স্বাক্ষর সনাক্ত করার জন্য সিরাজগঞ্জ চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে আবু হানিফা টিপুর সহযোগী নূরুল ইসলাম ও রায়গঞ্জ সাব রেজিস্ট্রি অফিসের দলিল লেখক আশরাফ আলী এবং দলিলের সাক্ষীসহ সাতজনের বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা দায়ের করেছেন। এর পিটিশন কেস নং ৯১/২০১৭ইং মামলাটি বর্তমানে সিরাজগঞ্জ সিআইডিতে তদন্তাধীন রয়েছে।

এ বিষয়ে সততা রোটার স্পিনিং মিলের মালিক ও ভাটা ব্যবসায়ী আবু হানিফা টিপু বলেন, নূরুল ইসলামের কাছ থেকে জমিগুলো আমি কিনে নিয়েছি। সেটা জাল-জালিয়াতি কিনা আমি জানি না। তবে ওই পরিবারটিকে বসতবাড়ি ছেড়ে দেয়ার শর্তে আমি কিছু সহযোগিতা করতে চেয়েছি। কিন্তু তারা তাতে রাজি হননি।

তিনি বলেন, এই জমি নিয়ে বেশ কয়েকটি মামলা হয়েছে যা আদালতে চলমান রয়েছে বলে আমি জানি। এ ব্যাপারে একাধিক মীমাংসা বৈঠকের কথা স্বীকার করলেও জাল-জালিয়াতির বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

মাধাইনগর ইউপি চেয়ারম্যান সুমন আহমেদ জানান, জমিজমা নিয়ে একাধিকবার সালিশি বৈঠক করা হয়েছে। সমস্যার কোনো সমাধান হয়নি। এখন মামলা চলছে। মামলায় যে রায় পাবে সেই জমির মালিক হবে।

একে/এফবি/এমএসআই