ভোটে সহোদরের ১৬ বছরের বৈরিতা দূর!

ঢাকা, ৩০ ডিসেম্বর, ২০১৮ | 2 0 1

ভোটে সহোদরের ১৬ বছরের বৈরিতা দূর!

নওগাঁ প্রতিনিধি ৩:৫৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮

ভোটে সহোদরের ১৬ বছরের বৈরিতা দূর!

আসন্ন সংসদ নির্বাচন দুই ভাইকে এক করেছে। দীর্ঘ ১৬ বছরের বৈরিতা ভুলে তারা এখন ধানের শীষকে বিজয়ী করতে কাজ করছেন।

যে রাজনীতি আপন দুই ভাই আলমগীর কবীর ও আনোয়ার হোসন বুলুর সম্পর্কের মাঝে পাহাড় তৈরি করেছিল, সেই রাজনীতি তাদের এক করায় স্থানীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে স্বস্তি বিরাজ করছে।

বড় ভাই আলমগীর কবীর নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনে বিএনপি থেকে আগে তিনবার এমপি হয়েছেন। প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছেন। ২০০৬ সালের শেষ দিকে তিনি দল ছেড়ে এলডিপিতে যাওয়ার পর থেকেই ছোট ভাই আনোয়ার হোসেনে বুলু তৃণমূলে দলের হাল ধরেন। ২০০৮ সালে মনোনয়ন পেলেও বর্তমান সংসদ সদস্য মো. ইসরাফিল আলমের কাছে পরাজিত হন। তিনি বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্যের দায়িত্বে রয়েছেন।

প্রায় এক যুগ তৃণমূল নেতাকর্মীদের বিপদে-আপদে পাশে থাকায় বুলুকেই বিএনপির মনোনয়ন দেয়ার দাবি ছিল। কিন্তু, হঠাৎ করেই তার বড় ভাই আলমগীর কবীর বিএনপিতে ফিরে আসেন। অবশেষে দল তাকেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপি থেকে ধানের শীষের চূড়ান্ত প্রার্থী করেছে।

এতে দুই উপজেলার বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। গত ২২ নভেম্বর নওগাঁতে আলমগীর কবীরকে অবাঞ্ছিতও ঘোষণা করা হয়।

তবে, রাজনীতি দুই ভাইয়ের মধ্যকার সব দ্বন্দ্ব দূর করেছে। নওগাঁ-৬ আসনে তারা ধানের শীষকে বিজয়ী করার জন্য এক মঞ্চে ভোট চাচ্ছেন। দুই ভাই একসঙ্গে নির্বাচনী গণসংযোগ, উঠান বৈঠখ, মতবিনিময় সভাসহ সব কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

দুই ভাইয়ের পুনঃমিলনকে স্থানীয়রা ইতিবাচক হিসেবে নিয়েছে। নেতাকর্মীদের মাঝে চাঙ্গাভাব বিরাজ করছে।

রাণীনগর থানা বিএনপির সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএস আল ফারুক জেমস পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘নওগাঁ-৬ আসনে বিএনপি বলতে তাদের দুই ভাইকেই বোঝায়। এবার তারা একসঙ্গে কাজ করছেন। বিষয়টি মানুষের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ হলে আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত।’

এ বিষয়ে আনোয়ার হোসেন বুলু পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘নানা কারণে প্রায় ১৬ বছর আমাদের দুই ভাইয়ের সম্পর্ক ভাল যাচ্ছিল না। কিন্তু, রাজনীতি আবার আমাদের দুই ভাইকে একত্রিত করে দিয়েছে। এখন আমরা সব বিভেদ ভুলে ধানের শীষের বিজয় নিশ্চিতে কাজ করছি। সাধারণ ভোটারা কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে পারলে এখানেই বিপুল ভোটে ধানের শীষ বিজয়ী হবে।’

এ বিষয়ে আলমগীর কবির পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘এলাকার মানুষ চেয়েছেন বলেই আবারও রাজনীতিতে ফিরে এসেছি। এই আসনের মানুষ এখন অত্যাচারের কষাঘাতে জর্জড়িত। অত্যাচারিত শাসকের হাত থেকে জনগণকে রক্ষা করার জন্য আল্লাহ আমাদের দুই ভাইকে এক করেছেন। আশা করি, আসন্ন নির্বাচনে কোনো পরাশক্তিই আমাদের বিজয় আটকাতে পারবে না।’

বিএআর/আইএম

 

রাজশাহী বিভাগ: আরও পড়ুন

আরও