বারবার তওবার পর গুনাহ হয়ে যাচ্ছে?

ঢাকা, ১৪ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

বারবার তওবার পর গুনাহ হয়ে যাচ্ছে?

মুহাম্মাদ ফয়জুল্লাহ ৩:৩৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৬, ২০১৯

বারবার তওবার পর গুনাহ হয়ে যাচ্ছে?

বারবার তওবার পরেও পাপের পুনরাবৃত্তি হয়ে যায়। এমনটা অনেকেরই হয়। বিশেষত বর্তমান সময়ে ইসলামকে জীবনে ধারণ করে চলতে চাওয়া তরুণেরা এ সমস্যার সম্মুখীন হন সবচে বেশি। এভাবে তারা মানসিক যন্ত্রণায় ভুগতে থাকেন। কখনো নিজের উপর হতাশ হয়ে পড়েন।  

জেনে রাখা উচিত যে, কুরআন এমন বান্দাদের জন্য হতাশার পরিবর্তে আশার কথা জানিয়ে দেয়। পবিত্র কুরআনে নবীজি (সা.)কে সম্বোধন করে আল্লাহ তাআলা বলেন–

قُلْ یٰعِبَادِیَ الَّذِیْنَ اَسْرَفُوْا عَلٰۤی اَنْفُسِهِمْ لَا تَقْنَطُوْا مِنْ رَّحْمَةِ اللهِ، اِنَّ اللهَ یَغْفِرُ الذُّنُوْبَ جَمِیْعًا، اِنَّهٗ هُوَ الْغَفُوْرُ الرَّحِیْمُ.

অর্থঃ বলুন, হে আমার বান্দাগণ! তোমরা যারা নিজেদের প্রতি অবিচার করেছ— আল্লাহ্‌র অনুগ্রহ হতে নিরাশ হয়ো না; নিশ্চয় আল্লাহ্‌ সমস্ত গোনাহ ক্ষমা করে দেবেন। নিশ্চয় তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।” [সূরা যুমার, আয়াত: ৫৩]

আল্লাহর ক্ষমার দরজাও কখনো বন্ধ থাকে না। এক হাদীসে কুদসীতে নবীজি (সা.) বলছেন, আল্লাহ বলেন–

يَا ابْنَ آَدَمَ إِنَّكَ مَا دَعَوتَنِيْ وَرَجَوتَنِيْ غَفَرْتُ لَكَ عَلَى مَا كَانَ مِنْكَ وَلا أُبَالِيْ، يَا ابْنَ آَدَمَ لَو بَلَغَتْ ذُنُوبُكَ عَنَانَ السَّمَاءِ ثُمَّ استَغْفَرْتَنِيْ غَفَرْتُ لَكَ، يَا ابْنَ آَدَمَ إِنَّكَ لَو أَتَيْتَنِيْ بِقِرَابِ الأَرْضِ خَطَايَا ثُمَّ لقِيْتَنِيْ لاَتُشْرِك بِيْ شَيْئَاً لأَتَيْتُكَ بِقِرَابِهَا مَغفِرَةً

অর্থঃ হে আদম সন্তান! তুমি যতক্ষণ পর্যন্ত আমাকে ডাকতে থাকবে এবং আমার কাছে আশা করতে থাকবে, আমিও তোমাকে ক্ষমা করতে থাকবো। হে আদম সন্তান! তোমার গুনাহ যদি আসমান পর্যন্তও ভরে ওঠে, এরপর তুমি আমার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো, আমি তোমাকে ক্ষমা করে দিব। হে আদম সন্তান! যদি তুমি আমার কাছে সমগ্র জমিন পরিমাণ ভুল-ভ্রান্তি নিয়ে এসেও উপস্থিত হও, আর তুমি আমার সঙ্গে কাউকে শরীক করনি, তাহলে আমিও এই পরিমাণ ক্ষমা নিয়েই তোমার কাছে আসব। [তিরমিযি, হাদীস নং: ৩৫৪০, হাদীসটি সহীহ]  

সুতরাং সর্বদা আল্লাহর কাছে আপনার গুণাহের জন্য ক্ষমা চাইতে থাকুন এবং বিশ্বাস রাখুন,  নিশ্চিতভাবে আল্লাহ আপনার গুণাহকে মাফ করে দেবেন।

আল্লাহ কোথাও বান্দার ক্ষমা প্রার্থনাকে প্রত্যাখ্যানের কথা বলেননি। কেউ যদি কখনো আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে, তবে আল্লাহ কখনোই বলেন না- “আমি তোমাকে ক্ষমা করব না।” 

তিনি সবসময়ই আপনাকে ক্ষমা করার জন্য প্রস্তুত আছেন। যতক্ষণ পর্যন্ত আপনি আপনার গুনাহকে স্বীকার  করেন, আন্তরিকভাবেই আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং প্রতিজ্ঞা করেন– ঐ গুনাহের কাজ আপনি দ্বিতীয়বার মত করবেন না, আপনি আল্লাহর ক্ষমা পাওয়ার যোগ্য থাকেন। 

যদিও আপনার মনের ভুলে আবার গুনাহ করে ফেলেন, তবুও যতক্ষণ আপনার মাঝে প্রতিজ্ঞা থাকে আপনি ঐ গুণাহ থেকে চিরতরে বিরত হবেন, আল্লাহর ক্ষমার দরজা আপনার জন্য খোলা থাকবে।

সুতরাং, গুনাহ আমাদের দ্বারা হয়ে যেতেই পারে। তবে সর্বদা আমাদের উচিত গুনাহের উপর থেকে না গিয়ে ক্ষমার জন্য আল্লাহর কাছে নিজেকে মেলে দেওয়া।

আল্লাহ আমাদের সকলের যাবতীয় গুণাহকে ক্ষমা করে দিন এবং জীবনে স্থিরতা দান করুন।

এমএফ/ 

আরও পড়ুন...
বারবার তওবার পরে গুনাহ হতে থাকলে করণীয়
তাওবাহ মানে কী?
যে কারণে তাওবাহ করবেন
তাওবাহ: কেন করব, কিভাবে করব?
গুনাহ থেকে তওবার পরও লোকেরা বিষোদগার করছে?
তওবা ও ইস্তিগফার বান্দার মুক্তির উপায়
তাওবার সুন্নত পদ্ধতি কি?
প্রাত্যহিক জীবনে তাওবার গুরুত্ব
হতাশায় ভুগছেন? নবীজির মুখে শুনুন ফিরে আসার গল্প
আল্লাহর সাথে অভিমান?
হতাশায় ভুগছেন? নবীজির মুখে শুনুন ফিরে আসার গল্প
মরণব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তির কি তওবার সুযোগ নেই?

 

কুরআনের আলো: আরও পড়ুন

আরও