কেনাকাটা করার স্মার্ট কৌশল

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯ | ১১ বৈশাখ ১৪২৬

কেনাকাটা করার স্মার্ট কৌশল

পরিবর্তন ডেস্ক ১:১২ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৯, ২০১৯

কেনাকাটা করার স্মার্ট কৌশল

বর্তমান সমাজ ব্যবস্থার প্রধান লক্ষ্যই বলা যায় কেনা-বেচাকে। সারা বিশ্ব আজ যত কর্মকাণ্ড করে যাচ্ছে তার সব কিছুই জড়িয়ে আছে কেনা-বেচা। এতো গেল বিশ্ব বাজারের কথা। রোজকার কথাই চিন্তা করে দেখুন। এমনটা কি হয় না যে, আপনি কেনাকাটা করতে গিয়ে অনেক ধরনের ঝামেলার সম্মুখীন হন? মনে হয় কোনো কিছু কেনার পর ঠকে গেলাম কি না! ভালো কিনা, ভেজাল কিনা। এই সব নানা চিন্তা। আজ আপনাকে কেনাকাটার পরে যেন না পস্তাতে হয় সে জন্য কিছু টিপস দেওয়া হল।

কেনাকাটা করতে গেলে আগে থেকে কিছু জিনিস খেয়ালে রাখতে হয়। যেমন:
ফেলবেন সে ক্ষেত্রে দেখা যাবে কার্ডের ইন্টারেস্ট রেট আপনার কমিশন থেকে আরও বেশি। এতে আপনি ক্ষুদ্র লাভ করতে গিয়ে অধিক ক্ষতির সম্মুখীন হবেন।

সময় সম্পর্কে সচেতন থাকুন: কেনাকাটা করতে গিয়ে আপনি অবশ্যই একটা সময় নির্ধারণ করে রাখুন আগে থেকেই। দীর্ঘ সময় কেনাকাটার ফলে আপনার বিরক্তি চলে আসতে পারে অথবা আপনি দুর্বল হয়ে পরতে পারেন এ ক্ষেত্রে সঠিক জিনিস হয়ত আপনি কিনতে পারবেন না। তাই কেনাকাটার জন্য একটা নির্দিষ্ট সময় বাজেট করে নিতে হবে আপনাকে।

আপনার অভিজ্ঞতা সমৃদ্ধ করুন: যেখানেই যা কিনবেন সে দোকান ও সে পণ্যের বিষয়ে আপনি একটা অভিজ্ঞতা লাভ করবেন। সব ক্ষেত্রে চেষ্টা করুণ পূর্বের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে এবং নতুন অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করতে। একজন অভিজ্ঞ ক্রেতা সহজেই নিজের জন্য সঠিক জিনিসটি কিনে নিতে পারে তাকে এ ক্ষেত্রে অন্য কারো সাহায্য নিতে হয়না। যখন যেখানেই যাবেন দেখে নিবেন ওই এলাকায় কি কি জিনিস পাওয়া যায় এবং তার মূল্য ও মান কেমন।

শপিংমল এড়িয়ে চলুন: কেনাকাটা করতে গেলে অবশ্যই শপিং মল এড়িয়ে চলুন। নির্দিষ্ট পণ্যের শোরুম অথবা আউটলেট থেকে পণ্য কেনার চেষ্টা করুন। এতে দাম ও পণ্যের মান ভালো পাবার নিশ্চয়তা থাকে।

কেনাকাটা করুণ দিনের প্রথম ভাগে: চেষ্টা করুন দিনের প্রথম ভাগেই কেনাকাটা করার। দিনের প্রথম ভাগে কেনাকাটা করলে ভিড় এড়ানো যায় এবং ফ্রেস আবহাওয়ায় কেনাকাটা করা যায়। মনে রাখবেন মানসিক প্রশান্তির মাঝে কেনাকাটা করতে পারাটা সঠিক জিনিস বেছে নেয়ার মূল নিয়ামক শক্তি।

তালিকা করুন: কি কি কিনবেন সেসব পণ্যের একটা তালিকা তৈরি করে ফেলুন। তালিকাতে এটাও নিশ্চিত করুন কোন পণ্য কোথায় থেকে সহজে পাওয়া যাবে। এতে আপনার কেনাকাটা অনেকটা সহজ ও গোছানো হয়ে যাবে।

সোমবার থেকে বৃহস্পতিবারের মাঝে কেনা কাটা করুন: সাপ্তাহের এ সময় টাতে ভিড় কম থাকে কারণ সবাই চায় সাপ্তাহের শুরুর দিকেই কেনাকাটা করে ফেলতে। কম ভিড় কম ঝামেলা, সঠিক জিনিসটি কেনা সহজ।

বাজেট তৈরি করুন: কেনাকাটার মূল শক্তি বাজেট। আপনি কি কিনবেন সেটা ঠিক করার পর যেটা ভাবনার বিষয় তা হচ্ছে এর মূল্য কত এবং এ মূল্য কি আপনার স্বাদ ও সাদ্ধের মাঝে আছে? অতএব আপনি কেনাকাটা করতে যাওয়ার আগেই নিজের পণ্য তালিকা অনুসারে একটা বাজেট করে ফেলুন।

পণ্য ও দোকানের খ্যাতি ও সামাজিক পরিচিতি: আপনি যে দোকান থেকে পণ্যটি কিনবেন সে দোকানের সামাজিক পরিচিতি কেমন তা অবশ্যই জেনে নিবেন। অখ্যাত কনো দোকান বা প্রতিষ্ঠান থেকে পণ্য কিনলে ঠকে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশী থাকে। টাকা দিয়ে জিনিস কিনবেন অতএব আপনি নিজেও অবশ্যই ঠকতে চাইবেন না।

উৎসবের আগে কেনাকাটা করতে সাবধান: যেকোনো সামাজিক উৎসবের আগে কেনাকাটা করা থেকে বিরত থাকুন। কারণ এসময় জিনিস পত্র স্বাভাবিক দাম থেকে অনেক বেশী দামে বিক্রি হয়। অতএব আপনি যদি কোন পণ্য সঠিক মূল্যে কিনতে চান তবে অবশ্যই উৎসবের আগে আগে তা কিনবেন না এ ক্ষেত্রে আপনাকে চড়া মূল্য দিতে হতে পারে।

ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের কার্ড ব্যবহার করবেন না: কেনাকাটার জন্য ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের কার্ড ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। তারা আপনাকে অফার দিবে ৫% থেকে ৬% কমিশনের কিন্তু আপনি যখন কানাকাটা করে

ইসি/