‘ভারত ও ইংল্যান্ডে গিয়ে খেলাই বাংলাদেশের লক্ষ্য’

ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

‘ভারত ও ইংল্যান্ডে গিয়ে খেলাই বাংলাদেশের লক্ষ্য’

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৬:১৬ অপরাহ্ণ, জুন ২০, ২০১৭

‘ভারত ও ইংল্যান্ডে গিয়ে খেলাই বাংলাদেশের লক্ষ্য’



গত কয়েক বছরে আমূল বদলে গেছে বাংলাদেশ। গেল বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলার পর চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সেমি-ফাইনাল। ধারাবাহিকভাবে উন্নতি করে বাংলাদেশ এখন শক্তিশালী একটি দল। অথচ ১৭ বছরের টেস্ট ক্যারিয়ারে মাত্র একবার ভারত সফর করেছে বাংলাদেশ। তাও মাত্র একটি টেস্ট। ইংল্যান্ডে শেষ দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলেছে ২০১০ সালে। এফটিপি সূচিতে দেশদুটিতে ভবিষ্যতেও নেই কোন সফর। তাই তাদের মাটিতে গিয়ে ক্রিকেট খেলাই এখন বাংলাদেশের লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) মিডিয়া বিভাগের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস। আইসিসির চলতি বার্ষিক সাধারণ সভায় আলাপ আলোচনা করে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ আয়োজনের সুযোগ রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের বিসিবি কার্যালয়ে জালাল ইউনুস বলেন, ‘আইসিসি সভায় সবসময়ই আলাপ আলোচনার সুযোগ রয়েছে। এক দেশ আরেক দেশের সঙ্গে কথা বলে দ্বিপাক্ষিক সিরিজগুলো ঝালিয়ে নিতে পারে। আমরা অনেক দিন থেকে ভারতে সিরিজ পাচ্ছিনা। ইংল্যান্ডেও সিরিজ হচ্ছে না। আগামী এফটিপিতে ইংল্যান্ডের কোনো সিরিজ নেই, ভারতেও নেই। যেহেতু এখানে সব দেশের সদস্যরা থাকবে, প্রধান নির্বাহীরা থাকবে, সভাপতিরাও থাকবে, তাই এটা একটা সুযোগ সবার সঙ্গে আলাপ আলোচনা করার।’

আইসিসি সাধারণ সভার আগে দুদিন ব্যাপী চলবে প্রধান নির্বাহীদের সভা। সেখানেই আলোচনা ভিত্তিতে এফটিপির দ্বিপাক্ষিক সিরিজ ঠিক করা হয় বলে জানান জালাল ইউনুস। বাংলাদেশের বর্তমান পারফরম্যান্স অনুযায়ী এবার সভায় ভারত ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের মাটিতে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলার প্রস্তাব দেবে বাংলাদেশ। আর বিষয়টি সময়ের দাবী বলেই জানান মিডিয়া চেয়ারম্যান। বর্তমানে তাদের দেশে সফর করলে তারা আর আর্থিকভাবে ক্ষতি হবেনা বলেই এ দাবিটি জোরালো হয়েছে বলে মনে করেন তিনি।

‘এ সভায় এক দেশ আরেক দেশের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করেই এফটিপি ঠিক করে। আমাদের জন্য একটা সুযোগ আছে। ইংল্যান্ড ও ভারতের মতো দেশে সফর করলে আর্থিকভাবে তাদের জন্য তত একটা লাভজনক হতো না। কিন্তু বিগত তিন চার বছরে আমাদের পারফরম্যান্স দেখেছেন। আমরা এখন আর আগের অবস্থানে নেই। র‍্যাঙ্কিংয়ে আমরা মাঝামাঝি আছি। তাই আমরা দাবি করতে পারি যে তাদের থেকে সিরিজ নিতে পারি।’

এছাড়াও ইংল্যান্ড এবং ভারতে বর্তমানে বাংলাদেশের ম্যাচ দেখার জন্য ভক্তরা অনেক আগ্রহী বলে জানান জালাল ইউনুস, ‘এই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে বাংলাদেশ খেললো, পুরো স্টেডিয়ামে আমাদের দর্শক দেখেন। যে পরিমাণ সমর্থন, এই সমর্থন ওয়েস্ট ইন্ডিজ আসলে এতোটা পেতো না। ইংল্যান্ডে এখন বাংলাদেশ সফর করলে তারা বুঝতে পারবে আমাদের অবস্থানটা কোথায়। এখন সফর করলেই বোঝা যাবে এটা আর্থিকভাবে লাভজনক হবে কি হবে না। আমরাই এটা বুঝিয়ে দিতে পারবো।’

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে ভারতের মাটিতে প্রথমবারের খেলতে যায় বাংলাদেশ। ব্যঙ্গালুরুতে একটি টেস্ট খেলে টাইগাররা। আর এখন পর্যন্ত ইংল্যান্ডে মাত্র দুইবার সফর করেছে টাইগাররা। প্রথমবার ২০০৫ সালে এরপর ২০১০ সালে শেষবার দেশটিতে সফর করে টাইগাররা।

আরটি/এসএইচ

 

ক্রিকেট: আরও পড়ুন

আরও