বুয়েট: র‌্যাগিংয়ের নামে চলতো অমানবিক নির্যাতন

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

বুয়েট: র‌্যাগিংয়ের নামে চলতো অমানবিক নির্যাতন

শাহাদাত স্বপন ৪:২১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৯

বুয়েট: র‌্যাগিংয়ের নামে চলতো অমানবিক নির্যাতন

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর সিনিয়রদের সালাম দিতে হবে। জুনিয়রদের আচরণের বহিঃপ্রকাশ যদি সামান্য এদিক ওদিক হয় তবে তাদের ওপর চলে আসতো অমানবিক নির্যাতন। শুধু সালাম না দিলে ৭০ থেকে ৮০টি চড় খেতে হয়।

প্রভাব-প্রতিপত্তি ধরে রাখতে সিনিয়ররা জুনিয়রদের চড়-থাপ্পড় ছাড়াও হকিস্টিক দিয়ে পেটান। যে কেউ এর প্রতিবাদ করলে তার ওপরেও নেমে আসতো এমন পৈচাশিক নির্যাতন।

বুয়েটে আবরার হত্যাকাণ্ডের পর বিক্ষুব্ধ ছাত্রদের আন্দোলনে শরিক হয়ে নির্যাতিত ছাত্ররা কান্নাবিজড়িত কণ্ঠে এভাবেই ঘটনাগুলো বর্ণনা করেছেন।

বুয়েটের ট্রিপল ই ডিপার্টমেন্টের ১৭তম ব্যাচের ছাত্র রুহুল আমিন বলেন, আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর আমাদের সিনিয়র ব্যাচের একজন আমাকে রুমে ডেকে নেয়। রুমে প্রবেশের সময় আমি সালাম দেইনি, যদিও রুমে প্রবেশের পর তাদেরকে সালাম দিয়েছিলাম। এর পর তারা আমাকে এক গালে আশিটি চড় মেরেছিল।

বুয়েটের আরেক শিক্ষার্থী রবিউল হাসান বলেন, তাওহীদ মাহমুদ খান নামে আমাদের ডিপার্টমেন্টের এক বড় ভাই আমাকে র‌্যাগিং করেছিলেন। সে সময় ব্যস্ততার কারণে কয়েকদিন আমি দাড়ি সেভ করতে পারিনি। এ জন্য মুখে খোঁচা খোঁচা দাড়ি দেখে আমাকে শিবির আখ্যায়িত করে আমার এক গালে ষাটটি, আরেক গালে ষাটটি চড় মেরেছিল। এর পরও তারা থেমে থাকেনি, তারা আমাকে হকিস্টিক দিয়ে মারধর করে। এই বর্ণনা দিতে গিয়ে কেঁদে ফেলেন রবিউল।

এ বিষয়ে পরিবর্তন ডটকমের কথা হয় বুয়েট ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ কনকের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আসলে এ ধরনের ঘটনা জুনিয়রদের প্রতি সিনিয়রদের দাপট এবং প্রভাব বিস্তারের জন্যই করে থাকে। শুধু ঢালাওভাবে রাজনৈতিক কারণে হয় এটা সঠিক নয়।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এ কে এম মাসুদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ধারাবাহিক চরম ব্যর্থতার কারণে এই ধরনের ঘটনা ঘটছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, সহকারী প্রক্টরসহ সংশ্লিষ্টদের দায়িত্ব হলে থাকা ছাত্রদের সার্বিক খোঁজখবর রাখা। শুধু আবরার হত্যার ঘটনা নয় হলগুলোতে এভাবে র‌্যাগিংয়ের ঘটনা প্রমাণ করে তারা তাদের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছেন।

তিনি বলেন, এর দায় বুয়েটের ভিসিও এড়াতে পারেন না। শিক্ষাঙ্গনে লেজুড়বৃত্তিক ছাত্র রাজনীতি এবং শিক্ষকদের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক সংগঠনগুলোর সঙ্গে সম্পৃক্ততা এর জন্য দায়ী।

এসএস/আরপি

 

পরিবর্তন বিশেষ: আরও পড়ুন

আরও