খালেদ-শামীম-সম্রাট, এরপর কে?

ঢাকা, সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬

খালেদ-শামীম-সম্রাট, এরপর কে?

সালাহ উদ্দিন জসিম ১০:১৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৬, ২০১৯

খালেদ-শামীম-সম্রাট, এরপর কে?

সারাদেশে চলছে সরকারের শুদ্ধি অভিযান। ইতোমধ্যে ক্ষমতাসীন দলের অর্ধডজনের মতো নেতা গ্রেফতার হয়েছেন। অনেকেই গ্রেফতার আতঙ্কে গাঢাকা দিয়েছেন।

এ অভিযান জনসাধারণের কাছে প্রশংসনীয় হলেও রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, আমলা, এমনকি এমপি-মন্ত্রীদের মাঝেও আতঙ্ক তৈরি করেছে।

অভিযান নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠকে বলেছিলেন, ‘ছাত্রলীগের পরে যুবলীগ ধরেছি। একে একে সবাইকে ধরবো। এর মধ্য দিয়ে সামাজিক অসঙ্গতি দূর করতে হবে।’

যেই কথা সেই কাজ। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশা অনুযায়ী চলছে অভিযান। ইতোমধ্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনকি সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, প্রভাবশালী ঠিকাদার জি কে শামীম, কৃষকলীগের নেতা শফিকুল ইসলাম গ্রেফতার হয়ে কারাগারে আছেন।

তাদের নিয়ন্ত্রক ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট গ্রেফতার হচ্ছেন কীনা এ নিয়ে ছিল দ্বিধা-দ্বন্দ্ব। মাঝখানে অভিযানেও নামে শিথিলতা। তাতে সন্দেহ প্রকট হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ অপেক্ষা ছিল শেখ হাসিনার গ্রিন সিগন্যালের। সিগন্যাল পাওয়ার পরই রোববার ভোরে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থেকে সহযোগী আরমানসহ সম্রাটকে আটক করা হয়েছে।

তাৎক্ষণিক মদ্যপ আরমানকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ছয়মাসের দণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আর সম্রাটকে নিয়ে বিকেলে তার কাকরাইলের কার্যাযলয়ে অভিযান চালায় র‌্যাব। কাকরাইলের কার্যালয় থেকে একটি অস্ত্র, বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ ও ইয়াবা এবং দুটি ক্যাঙারুর চামড়া পাওয়া গেছে। ক্যাঙারুর চামড়া রাখার দায়ে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালত ছয়মাসের জেল দিয়েছেন। অবশেষে কারাগারে ঢাকার সম্রাট। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্র আইনে পৃথক মামলা হচ্ছে।

খালেদের গ্রেফতারের পর মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ও ‘শ্রেষ্ঠ সংগঠক’ ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট গ্রেফতার হবেন কীনা, এমন সংশয় তৈরি হলেও এখন আর সংশয় নেই। যে কেউ গ্রেফতার হতে পারেন।

এ নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আপনারা ( সাংবাদিক)  যাদের সন্দেহ করেছেন, তারা গ্রেফতার হয়েছেন।  সামনে আরও গ্রেফতার হবেন। এ অভিযান কোনো ব্যক্তি, দল বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয়, যে অপরাধ করেছে, তাকে গ্রেফতার করা হবে। সরকারের সিদ্ধান্ত- যেই অপরাধী তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। এ ব্যাপারে সরকার সংকল্পবদ্ধ।’

তবে আরও কারা গ্রেফতার হবেন? এমন উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক না দিলেও গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে।

গোয়েন্দা সূত্র বলছে, ‘সরকারের এমপি-মন্ত্রী, আমলা ও দলের অনেক নেতার রিপোর্ট প্রধানমন্ত্রীর হাতে। গোয়েন্দারা তাদের নজরদারিও করছেন। প্রতিনিয়ত আপডেট নিচ্ছেন। রিপোর্ট আকারে এগুলো জমা হচ্ছে। বিভিন্ন যায়গায় এগুলো বিশ্লেষনও করা হচ্ছে। যখন যার বিষয়ে গ্রিন সিগন্যাল পাওয়া যাবে, তাকেই গ্রেফতার করা হবে।’

তবে খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া, জি কে শামীম, শফিকুল ইসলাম, আরমান ও ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের পর কে গ্রেফতার হচ্ছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার এক সিনিয়র কর্মকর্তা পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘তালিকায় তো অনেকের নাম আছে। তবে ওই তালিকার শুরুতে এখন আছেন, সরকারের এমপি ও যুবলীগ নেতা নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন।’

অর্থাৎ এই গোয়েন্দা সূত্র জানাচ্ছে, সম্রাটের পর এবার যেকোনো মুহূর্তে গ্রেফতার হতে পারেন নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এমপি।

কে এই নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন?

ভোলা-৩ আসন থেকে তিনবারের নির্বাচিত এমপি নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন। তিনি কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য। সম্রাটের আগে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন শাওন। সম্রাট-শাওন একই সিন্ডিকেটের। কথিত আছে- শাওনের সাম্রাজ্যেই গদিনসীন ছিলেন সম্রাট। সম্রাটের আগে চাঁদাবাজি, ঠিকাদারিসহ এই ঢাকার সবকিছুর নিয়ন্ত্রক ছিলেন শাওনই।

ইতোমধ্যে (২৪ সেপ্টেম্বর) সম্রাটের সঙ্গেই নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন ও তার স্ত্রী ফারজানা চৌধুরীর সব ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়েছে।

গোয়েন্দা তথ্যের পাশাপাশি পূর্বাপর আলামতও বলছে, সম্রাটের পর শাওনই যাচ্ছেন র‌্যাবের জালে। কারণ সম্রাটের আগে এই শহরে রাজত্ব করেছেন শাওনই। আবার দুজনেরই ব্যাংক হিসাব একসঙ্গে জব্দ করে নজরদারি শুরু করা হয়েছে।

এসইউজে/এইচআর

আরও পড়ুন...
জুয়া খেলাই সম্রাটের একমাত্র নেশা: স্ত্রী শারমিন
হকার থেকে চলচ্চিত্র প্রযোজক আরমান!
যুবলীগ নেতা সম্রাট গ্রেফতার
কাকরাইলে সম্রাটের কার্যালয় ঘিরে র‌্যাবের অবস্থান
সম্রাট ও আরমান যুবলীগ থেকে বহিষ্কার
যেভাবে গ্রেফতার হলেন সম্রাট
ক্যাসিনো ব্যবসার গুরু কে এই আরমান?
সম্রাটের কার্যালয়ে র‌্যাবের অভিযান
সম্রাটের অফিস-বাসায় র‌্যাবের অভিযান
সম্রাটের কার্যালয় থেকে অস্ত্র-মাদক ও ক্যাঙারুর চামড়া উদ্ধার
সম্রাটের ৬ মাসের সাজা
ম্রাট কারাগারে

 

পরিবর্তন বিশেষ: আরও পড়ুন

আরও