পদ্মায় পার হয়ে যায় গরু, পার হয় গাড়ি

ঢাকা, ১৪ মে, ২০১৯ | 2 0 1

পদ্মায় পার হয়ে যায় গরু, পার হয় গাড়ি

আব্দুর রব নাহিদ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৪:১৫ অপরাহ্ণ, মে ১৫, ২০১৯

পদ্মায় পার হয়ে যায় গরু, পার হয় গাড়ি

আমাদের ছোট নদী চলে বাঁকে বাঁকে, বৈশাখ মাসে তার হাটু জল থাকে,পার হয়ে যায় গরু পার হয় গাড়ি। ববীন্দ্রনাথ ঠাকুরের আমাদের ছোট নদী কবিতার চরণ দুটি যেন মিলে যাবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পদ্মা নদীর বর্তমান অবস্থা দেখে।

শুধু পদ্মা নয়, শুষ্ক মৌসুমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ অন্য তিন নদীতেও পানির হাহাকার। নদীর এই মৃতযাত্রা দেখে প্রশ্ন পানির নায্য হিস্যা মিলছে কি? 

প্রতিবেশী দেশ ভারত ফারাক্কা বাঁধ দিয়ে একতরফা পানি প্রত্যাহার করে নিচ্ছে অভিযোগটি দীর্ঘদিনের। অভিযোগের বিষয়টি সুরাহা না হলেও বাস্তবে শুষ্ক মৌসুমে মরুময়তা আর বর্ষায় পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে ঘরবাড়ি ও ফসলি জমি। হুমকিতে রয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের চরের মানুষের জীবন।

পদ্মা নদীটি ভারত থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পাংখা পয়েন্ট দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। ১৯৭৫ সালে ফারাক্কা বাঁধ নির্মাণ কাজ শেষ হয় এবং সেই বছরে ২১ এপ্রিল থেকে ফারাক্কা বাঁধ চালু হয়। এরপর থেকেই বদলে যেতে থাকে এই নদীর গতিপথ। এক সময় সীমান্ত দিয়ে প্রবাহিত এই নদী ক্রমেই ভাঙতে থাকে চাঁপাইনবাবগঞ্জের আলাতুলি, চরবাগডাঙ্গা, নারায়ণপুর, পাকা, উজিরপুর ও দেবীনগর ইউনিয়নের অনেক এলাকা। আর ভাঙন কবলিত এসব এলাকা পরিণত হয় ধু ধু বালুচরে। যা এ অঞ্চলের মানুষের দুর্ভোগের বড় কারণ হয়ে দেখা দিয়েছে।

ফারাক্কা বাঁধ নির্মাণ করে ভারত পানি প্রত্যাহার করায় পদ্মা শুকিয়ে আশপাশের কয়েকটি নদী তাদের নাব্য হারাতে বসেছে। এমনকি কিছু নদীর অস্তিত এখন প্রায় বিলীন। এতে একদিকে হারিয়ে যাচ্ছে দেশি জাতের মাছ, অপরদিকে পদ্মা নদীর প্রাণ ঘড়িয়াল ও শুশুক এখন বিলুপ্ত। বারবার পদ্মার গতি পরিবর্তনের কারণে নদী ভাঙনের শিকার হচ্ছে এলাকার মানুষ, হারাচ্ছে ফসলি জমি।

পাকা ইউনিয়নের বাসিন্দা রাসেল রহমান জানান, ফারাক্কা বাঁধের আগে আমাদের এখানে পদ্মায় পানি থাকত, এখানকার জমিতে ফসলও হতো ভালো। এখন জমিগুলো বালুচরে পরিণত হয়েছে। শুষ্ক মৌসুমে পানি না পেলে বর্ষা মৌসুমে পদ্মায় এতো পানি আসে যে বন্যায় আমাদের ঘরবাড়ি ফসলি জমি সবই ডুবে যায়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের পদ্মা, পাগলা, মহানন্দা ও পুনর্ভবায় শুস্ক মৌসুমে পানি না থাকার পেছনে ফারাক্কার প্রভাবের বিষয়ে  চাঁপাইনবাবগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ সাহিদুল আলম বলেন, ‘পানির গতিপথ যদি বাঁধাপ্রাপ্ত হয় তাহলে তার প্রভাব তো থাকেই। তবে যে পানি পাওয়া যাচ্ছে তা পদ্মার তলদেশ ভরাট হয়ে যাওয়ায় ধরে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। আর হঠাৎ করে বেশি পানি চলে আসলে সৃষ্টি হচ্ছে নদীভাঙন।

ভারতের উত্তরা খণ্ড রাজ্যের গঙ্গোত্রী হিমবাহ থেকে গঙ্গা নদীর উদ্ভব। সেখান থেকে ভারতের বিভিন্ন স্থানে প্রবাহিত হয়ে গঙ্গা নদী পদ্মা নাম ধারণ করে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার পাংখা পয়েন্টে প্রবেশ করেছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জে পদ্মা নদীর দৈর্ঘ্য ৪০ কিলোমিটার।

১৯৭৬ সালের ১৬ মে মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী ফারাক্কার বিরূপ প্রভাবের কথা তুলে ধরে লংমার্চ করেছিলেন। শিবগঞ্জ উপজেলার ঐতিহাসিক কানসাট রাজবাড়ী মাঠে গিয়ে শেষ হয়েছিলো সেই লংমার্চ। প্রতিবছর ১৬ মে ভাসাসীর সেই লংমার্চের কথা স্মরণ করা হয়।

এইচআর

 

ফিচার : আরও পড়ুন

আরও