আশু চন্দ্রের লিফলেট

ঢাকা, বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ | ৫ পৌষ ১৪২৫

আশু চন্দ্রের লিফলেট

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ২:৫৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৮

আশু চন্দ্রের লিফলেট

আশু চন্দ্র শীল। দীর্ঘ ২১ বছর কুয়েতে ছিলেন। গত ৫ মাস আগে দেশে ফিরেছেন। স্বদেশে ফিরে কি আর অলস বসে থাকতে পারেন কর্মঠ এই মানুষ! নেমে পড়েছেন অসাধারণ এক প্রচারণায়। দেশীয় মাছের প্রজনন বাড়াতে পথে-ঘাটে, বাসে-ট্রেনে বিলি করছেন প্রচারণামূলক এক লিফলেট। এবং সব কিন্তু নিজ খরচায়!

আশু চন্দ্র শীলের সেই গল্প শোনাচ্ছেন পরিবর্তন ডটকমের আবুল হাসনাত মোঃ রাফি।      

আশু চন্দ্র শীল পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, জীবিকার তাগিদে দীর্ঘ ২১ বছর ধরে আমি কুয়েতে ছিলাম। ৫ মাস হলো দেশে ফিরেছি। কিন্তু দেশে এসে দেখি দেশীয় মাছ পাওয়া যায় না বললেই চলে।

নিজের সন্তানদের দেশীয় মাছ কিনে খাওয়াতে পারছি না। বাজারে যে মাছ পাওয়া যায় তার অধিকাংশ বিদেশি ও হাইব্রিডের। দিন দিন দেখছি জলাশয়গুলো থেকে দেশীয় মাছ বিলুপ্তির পথে।

পাঁচ মাস ধরে নিজ খরচে সচেতনতামূলক লিফলেট তৈরি করে বাস-ট্রেন সহ বিভিন্ন গণ-পরিবহণে ও জনবহুল এলাকায় বিলি করছি। পাশাপাশি মুক্ত জলাশয়ে মাছের ছোট পোনা কিনে অবমুক্ত করছি।

এই দেশটা আমাদের, বিদেশে যতই থাকিনা কে এই দেশে আমাকে ফিরে আসতে হবে। দেশের প্রতি আমারও দায়িত্ব রয়েছে। সেই দায়িত্ব থেকে আমি স্বেচ্ছায় দেশীয় মাছ রক্ষায় প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছি। আমার বিশ্বাস আমাকে দেখে অন্যরাও দেশীয় মাছ রক্ষায় এগিয়ে আসবেন।

আশু’র লিফলেট

প্রাকৃতিক মাছ বিলুপ্তির প্রধান কারণ হলো বৈশাখ, জ্যৈষ্ঠ মাসে পোনা মাছ ধরে ফেলা। তাই পোনা মাছ খাবেন না, ডিম যুক্ত মাছ খাবেন না, জাটকা ইলিশ খাবেন না। দেশের মুক্ত জলাশয়ে প্রাকৃতিক মাছে পরিপূর্ণ হতে সহযোগিতা করুন।

প্রাণিজ আমিষের ৬০ ভাগ যোগান দেয় মাছ। আপনার সন্তানের পুষ্টি সুরক্ষায় নিজে দায়িত্ববান হোন। আপনার আদরের সন্তান আমাদের সোনালী ভবিষ্যৎ। তাই দেশ মাতৃকার টানে এই বিজ্ঞাপনটি কয়েকটি কপি করে, আপনার এলাকায় প্রচার করুন।

লিফলেটের নিচের অংশে দেশীয় মাছ রক্ষায় মতামতের জন্য দেওয়া হয়েছে মোবাইল নম্বর ও তার নিজের ফেসবুক আইডি।

আশু চন্দ্র শীলের বাবার নাম ভজন চন্দ্র শীল। জেলার আখাউড়া উপজেলার ধরখার ইউনিয়নের গোলখার গ্রামের তিনি স্থায়ী বাসিন্দা। বর্তমানে বসবাস করছেন জেলা শহরের পূর্ব মেড্ডায়।

এএইচএমআর/এএসটি